টপিকঃ জনসংখ্যা বিস্ফোরণঃ আতঙ্কিত হবো নাকি হবো না?

জনসংখ্যা বিস্ফোরণ নিয়ে কি আসলেই আতঙ্কিত হওয়া উচিত? রথসচাইল্ড বা বিলগেটসের মতে আতঙ্কিত হওয়া উচিত। কিন্তু প্রফেসর হান্স রসলিং চমৎকার লেকচারের মাধ্যমে বোঝান যে, আসলে বিশ্বের জনসংখ্যা ১১০০ কোটি পর্যন্ত বাড়বে। কিভাবে? সেটার ইন্টারেস্টিং ব্যাখ্যাই বাংলায় বলার চেষ্টা করলাম। ৫৪ মিনিটের মূল লেকচারটাও ভিডিওর ডেসক্রিপশনে দেয়া আছে যার বড় অংশ জুড়ে আছে বাংলাদেশ। আগ্রহীরা দেখতে পারেন। শুরু করলে শেষ করার আগে ওঠা মুশকিল।

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

Re: জনসংখ্যা বিস্ফোরণঃ আতঙ্কিত হবো নাকি হবো না?

ফসলের জমি কমে গেলে এমনিতেই জনসংখ্যা কমে আসবে।

লেখাটি LGPL এর অধীনে প্রকাশিত

Re: জনসংখ্যা বিস্ফোরণঃ আতঙ্কিত হবো নাকি হবো না?

দ্যা ডেডলক লিখেছেন:

ফসলের জমি কমে গেলে এমনিতেই জনসংখ্যা কমে আসবে।

আপনার সাথে কেন জানি একমত হতে পারছি না।ফসলের জমি কমলে কি করে এমনিতেই জনসংখ্যা কমবে?

ডিজিটাল বাংলাদেশে ত আর সাক্ষরের নিয়ম চালু নাই।সবটায় দেখি বায়োমেট্রিক।তাই আর সাক্ষর দিতে পারলাম না।দুঃখিত।

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন ছায়ামানব (১৪-০৭-২০১৭ ২৩:৫৪)

Re: জনসংখ্যা বিস্ফোরণঃ আতঙ্কিত হবো নাকি হবো না?

অপেক্ষা লিখেছেন:

আপনার সাথে কেন জানি একমত হতে পারছি না।ফসলের জমি কমলে কি করে এমনিতেই জনসংখ্যা কমবে?

ফসলের জমি কমলে খাদ্য উৎপাদন কমবে। আর খাদ্য উৎপাদন কমলে দূর্ভিক্ষ হবে। দূর্ভিক্ষ হলে মানুষ মারা যাবে এবং জনসংখ্যা কমবে।

ভিডিও এখনো দেখিনি তবে কমন্সেন্স বলে এটা জনসংখ্যা কমার সম্ভাব্য কারণগুলোর একটা হতে পারে।

আপডেটঃ ভিডিও দেখলাম smile thumbs_up

ইট-কাঠ পাথরের মুখোশের আড়ালে,
বাধা ছিল মন কিছু স্বার্থের মায়াজালে...

Re: জনসংখ্যা বিস্ফোরণঃ আতঙ্কিত হবো নাকি হবো না?

ছায়ামানব লিখেছেন:
অপেক্ষা লিখেছেন:

আপনার সাথে কেন জানি একমত হতে পারছি না।ফসলের জমি কমলে কি করে এমনিতেই জনসংখ্যা কমবে?

ফসলের জমি কমলে খাদ্য উৎপাদন কমবে। আর খাদ্য উৎপাদন কমলে দূর্ভিক্ষ হবে। দূর্ভিক্ষ হলে মানুষ মারা যাবে এবং জনসংখ্যা কমবে।

ভিডিও এখনো দেখিনি তবে কমন্সেন্স বলে এটা জনসংখ্যা কমার সম্ভাব্য কারণগুলোর একটা হতে পারে।

আমি মনে করি জনসংখ্যা অবশ্যই দেশের একটা গুরুত্বপূর্ণ উপাদান।আর দুভিক্ষ দ্বারা জনসংখ্যা কমানোর চেস্টা টা বড় কেমন কেমন হয়ে যায় না!

ডিজিটাল বাংলাদেশে ত আর সাক্ষরের নিয়ম চালু নাই।সবটায় দেখি বায়োমেট্রিক।তাই আর সাক্ষর দিতে পারলাম না।দুঃখিত।

Re: জনসংখ্যা বিস্ফোরণঃ আতঙ্কিত হবো নাকি হবো না?

আমাদের আতংকিত হবার কথা ।

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন দ্যা ডেডলক (১৪-০৭-২০১৭ ২৩:০৯)

Re: জনসংখ্যা বিস্ফোরণঃ আতঙ্কিত হবো নাকি হবো না?

অপেক্ষা লিখেছেন:

দুভিক্ষ দ্বারা জনসংখ্যা কমানোর চেস্টা টা বড় কেমন কেমন হয়ে যায় না!

তাহলে ১০০ কোটি লোককে বিশেষ ভ্যাকসিন দিয়ে তারপরে ডেডলি ভাইরাস ছেড়ে দেওয়া যেতে পারে। যেমন বিভিন্ন হলিউড মুভিতে  দেখায়।

ছায়ামানব লিখেছেন:

ভিডিও এখনো দেখিনি তবে কমন্সেন্স বলে এটা জনসংখ্যা কমার সম্ভাব্য কারণগুলোর একটা হতে পারে।

এই ভিডিওতে আশা প্রকাশ করা হয়েছে হয়েছে যে, ভবিষ্যতে নতুন জন্ম নেওয়া বাচ্চার সংখ্যা স্ট্যাটিক থাকবে।

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন তার-ছেড়া-কাউয়া (১৪-০৭-২০১৭ ২৩:৩০)

Re: জনসংখ্যা বিস্ফোরণঃ আতঙ্কিত হবো নাকি হবো না?

আমার মনে হচ্ছে, আপনারা কেউই ভিডিও দেখেননি। বিলগেটস বা রথসচাইল্ডরা মনে করে ৭০০ কোটি অনেক বেশি। আসলে তা না। এখন আপনি কি করবেন? অতিরিক্তদের মেরে ফেলবেন? কারা অতিরিক্ত সে হিসাব কে করবে?

যদি বড় ধরনের কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হয় তাহলে, জনসংখ্যা কমবে না। আগামী ৫০ বছরে এটা ১০০০-১১০০ কোটি হবে। কিভাবে এই জনসংখ্যা সমভাবে বন্টন করা যায়, পৃথিবীর রিসোর্স কাজে লাগিয়ে তাদের সম্পদে পরিণত করা যায় সেগুলো নিয়ে ভাবা উচিত।
হান্স রসলিং এর লেকচার খুবই ইন্টারেস্টিং। চমৎকার বোঝায়। আর ভিডিওর ডেসক্রিপশনে দেয়া লিঙ্কটার লেকচার শুনে দেখতে পারেন। "বাংলাদেশ মিরাকল" বলে উনি একটা টার্ম ব্যবহার করেছেন এবং ভিডিওর বড় অংশ জুড়ে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে বাংলাদেশের সাফল্যকে তুলে ধরেছেন।

4 minutes and 28 seconds after:

দ্যা ডেডলক লিখেছেন:

এই ভিডিওতে আশা প্রকাশ করা হয়েছে হয়েছে যে, ভবিষ্যতে নতুন জন্ম নেওয়া বাচ্চার সংখ্যা স্ট্যাটিক থাকবে।

এটা স্ট্যাটিক ধরা হয় নাই। পুরো বিশ্বের গত এক শতকের জন্মহার দেখে হিসেব করে বের করা হয়েছে। এবং দেখা যাচ্ছে যে, গত ২০০০ সাল থেকে যে হারে শিশু জন্ম নিচ্ছে তাতে মোট শিশুর সংখ্যা (০-১৫বছর) মোটামুটি ২০০ কোটিই থাকছে। তাই এই মানকে বলা হচ্ছে, পিক চাইল্ড। এবং আগামী শতক জুড়ে এটার মান এমনই থাকবে। তেমন একটা বাড়বেনা।
বাই দ্যা ওয়ে, ইউরোপের কিছু দেশের জন্মহার নেগেটিভ। আবার চায়নার এক সন্তান নীতির কুফল তারা এখন বুঝতে পারছে।  অন্য আরেকটা ডকুমেন্টারিতে দেখলাম যে, সেখানে বিবাহযোগ্য ছেলে এবং মেয়ের সংখ্যার মধ্যে বিশাল পার্থক্য। এটা নিয়ে এখন তারা বিভিন্নভাবে ভুগছে।

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(