সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন onlysoBuj (০৭-০৩-২০১৭ ২৩:০৯)

টপিকঃ আটপৌরে প্রলাপঃ ৩

এই এক একটা দিন আসে, আপনার কিছুই ভালো লাগবে না। সকল কাজ, প্রার্থনার সকল সময় শুন্য মনে হবে – পন্ড মনে হবে। আপনি ঘুম থেকে জেগেই আবিস্কার করবেন, এই এক অর্থহীন দিন এলো! অসীমের এক নিঃসঙ্গতা জাপটে ধরবে আপনাকে। সারাদিনের কাজ, সামাজিক মিথস্ক্রিয়া, ক্ষুধা, তৃষ্ণা, যৌনতা... সবকিছুই অর্থহীন মনে হবে সেদিন। আবার অদ্ভুত ব্যাপার, বেশিরভাগ মানুষের এই অনুভূতিই হয় না... তারা এই অর্থহীন নিঃসঙ্গতা বুঝতেই পারে না। আপনার এই অনুভূতি কখনও যদি হয়, আপনি দুর্ভাগা! সৌভাগ্যবান মানুষগুলো কিন্তু এই অনুভূতি ছাড়াই বেঁচে থাকে, নিঃশ্বাস নেয়, খায়-ঘুমায়, রতি ক্রিয়া করে।


আমি কি একটা আহামরি জীবনের স্বপ্ন দেখে এসেছি একত্রিশটি বছর? বরং জীবনে সবচেয়ে বেশি যা চেয়েছি, তা বোধহয় বৈচিত্র্য। হায়... সেই আমিই ভীষণ এক বৈচিত্র্যহীন জীবন নিয়ত যাপন করি। ঘুম, জেগে ওঠা, অফিস, খাওয়া, বাড়ি, আবার ঘুম, অফিস... চমৎকার জীবন!


ফেইসবুকে সেদিন কথা হচ্ছিলো সুস্মিতার সাথে। ছোটবেলার সহপাঠিনী মেয়েটি আর তো ছোট নেই, স্বামীর সাথে সুদূর অস্ট্রেলিয়ার নিউ ওয়েলসে বসবাস তার... নিজেদের গাড়ি, বাড়ি। দারুন গানের গলা। স্বামী হয়েই আছে, খুব জলদি তারও নাগরিকত্ব পেয়ে যাওয়ার কথা। ভালোই আছে। ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্যে পরীক্ষা দিতে গিয়ে সে খুবই উত্তেজিত। আমি বলি, “একটা অতিথি আনো বাড়িতে, খা খা করে না?”


সুস্মিতা লাজুক ইমোটিকন পাঠায়, তারপর উত্তর করে, “ইশ... দেরী আছে। আমরা এখনও কিডস্!”


আমি হাসি... মাসখানেক পর বয়স হবে বত্রিশ। গালের কয়েকটা দাড়ি আর মাথার অসংখ্য পেকে যাওয়া চুল, বয়সের সাক্ষ্য দিয়ে বেড়ায়। সুস্মিতা হাসে খিলখিল করে... ইমোকটিনে, টেক্সটে। তারপর সিরিয়াস হয়, “বিয়ে কর বালক। মিষ্টি একটা মেয়ে দেখে, বিয়ে করে ফেলো।"


আমিও সিরিয়াস হই, “তা না হয় করলাম। কিন্তু বিয়ে করে ফেলে দেবো? এটা কি বললা?”


সুস্মিতা রেগে যায়, “আমি ফাজলামো করছি? বয়স কত হলো খেয়াল আছে? এখনও বিয়ে না করলে কবে করবা আর? বুড়া হইলে?”


আমি লিখি, “ঠিকই তো! এখনও যদি না করি কবে আর? বেলা বয়ে যায় গো মাঝি!”


সুস্মিতা অগ্নিশর্মা হয়ে যাওয়ার একটা ইমো দিয়ে অফলাইনে চলে যায়।


একটা সিগারেট ধরিয়ে ভাবতে বসি। বিয়েটা দরকার বটে। শরীরের দাবীদাওয়া-চাহিদার জন্যে... রাত বিরেতে গল্প করার জন্যে। গিটার বাজিয়ে অখাদ্য গান খাওয়ানোর জন্যে... একসাথে বসে ভাত খাওয়ার জন্য। রাত করে বাড়ি ফিরলে অভিমানী হাতে দরজা খুলে দেয়ার জন্যে। চোখে চোখ রেখে বন্ধুকে দিয়ে ছবি তুলিয়ে ফেইসবুকের কভার ফটো করার জন্যে। তারপর? দিনের পাহাড়সম বাকিটা? আমি ভেবে পাই না।


মায়ের জোরাজুরি বাড়ছে। ছেলে বুড়ো হয়ে যাচ্ছে, অথচ ফরজ কাজটা করা হলো না। আমি তাকে বলি, “আম্মা, বিয়ে করবো তো। এখন না। আমার আরও সময় চাই।"


আম্মা প্রতিবাদ করতে করতে আজকাল আর কিছু বলেন না... কিছুই না। শুধু চাচী, খালা, কিংবা কাজিনদের কল করলে তারা কুশলদি বিনিময়ের পরই বিয়ে প্রসংগে চলে আসেন। খালাতো বড় বোনটা নাকি দারুন সুন্দরী এক মেয়ে দেখেছেন। পছন্দ না হলে নাকি আমার রুচিই নেই। আপাকে বলতে যাই, “দুলাভাইকেই না হয় আরেকবার...!”


আমার ধরটাতে মাথাতো একটাই... তাই তাকে বলি, “আপা, আমারে একটা এলিয়েন গাড়ি উপহার দেবেন তো শশুরসাহেব? না না, যৌতুক তো নয়... এটা উপহার বলতে পারেন।“ বলেই হাসতে থাকি হা হা করে।


আপা চুপ করে থাকেন, তারপর উত্তর দেন “ তুই তো এমন ফাজিল ছিলি না? দেশের বাইরে থেকে থেকে তুই নষ্ট হয়ে গেছিস! যৌতুক বা উপহার দিলেও তো বিয়ে করবি না, জানি। বাজে কথা বলিস কেন?”


একটু থেমে আপা আবার যোগ করেন, “আচ্ছা, একটা কথা জিজ্ঞেস করি? তুই কি কাউকে...”


কান থেকে ফোনটা সরিয়ে হ্যালো হ্যালো করি কিছুক্ষন। তারপর লাইনটা কেটে দেই। নেটওয়ার্কের বড় দুঃসময় যাচ্ছে আজকাল।


ওভারটাইমের কাঁথা বালিশ পুড়িয়ে অফিস থেকে বেড়িয়ে পরি। আজ আকাশের মন খারাপ... ফিরবে না বাড়ি!

যদি আসো... স্বাগতম!
যদি না আসো... সুস্বাগতম!!

Re: আটপৌরে প্রলাপঃ ৩

ভালো

  “যাবৎ জীবেৎ সুখং জীবেৎ, ঋণং কৃত্ত্বা ঘৃতং পিবেৎ যদ্দিন বাচো সুখে বাচো, ঋণ কইরা হইলেও ঘি খাও.

Re: আটপৌরে প্রলাপঃ ৩

চমৎকার সাবলীল লেখা।  thumbs_up

hard to hate but tough to love

Re: আটপৌরে প্রলাপঃ ৩

আমারও একই অবস্থা। ফোন করলেই দুটো কথার পরেই বিয়ে নিয়ে ঝুলে পড়ে। এজন্য ফোন করাই বাদ দিয়েছি  hairpull
নিঃসঙ্গতা জেঁকে বসছে...সাবধান হয়ে যান। বড় আপার কথামত মিষ্টি একখানা মেয়েকে আপন করে নিন। এইসব ফাইজলামি বাদ দেন। কত দেখলাম! হাহা হা হা। আমার একটা কবিতা দেই এখানেঃ

কখনো কখনো বড় একা হয়ে যাই।
কখনো কখনো নিঝুম প্রাতে,
চোখ মেলেই বিষন্ন হয়ে যাই!
ভালোলাগে না আলো, নিষ্ঠুর লাগে
নাগরিক চৈতন্যের নিত্য শ্রুত শব্দ!
আত্মার গভীরে জেগে ওঠে
ঘুমিয়ে থাকা শব্দহীন নির্বিবাদি সমঝোতা;
বুক ধড়াসে মনে পড়ে যায়-
আমি একা, বড় একা!
কখনো কখনো ভুলে যাই বেমালুম-
বিস্মৃতির অভিনয়, সুনিপুণ;
ভ্রমাশ্রয়ী মায়া-কল্প,
অসুখী অনবধানে গেয়ে ফেলে আত্ম-ব্যজস্তুতি!
প্রতিবোধনের অশ্রু আনমনে গড়িয়ে পড়ে,
হাহাকারে মনে বাজে নিঃসঙ্গতার নিগুঢ় ধ্বনি !
কখনো কখনো বড্ড ওলটপালট হয়ে যায়...
আপাত সুখী জীবনের চকচকে মোড়কে
চাপা পড়া দীর্ঘশ্বাস,
ক্ষেপা অঘটন হয়ে জুড়ে যায়!
ভেঙ্গে গেলে মোহ, গুড়িয়ে গেলে আত্মরম্ভ
সত্যের ক্ষারক জলে ক্ষয়িষ্ণু ‘আমি’ কে দেখি।
তখন বড্ড অভিমান হয়ে যায়...
জাগতিক বিধির সাধ্য কি
ছোঁয় আমার মর্মন্তুদ মৃদুল নিধি!
কখনো কখনো বড় নিঃস্ব হয়ে যাই
উদাসীনতায়ও মানে না মন,
শত প্রবোধেও উন্নদ্ধ উচাটন;
কখনো কখনো বেঁচে থাকাটাই
বড্ড উপদ্রব মনে হয়!!

ভাল থাকুন।

কিছু বাধা অ-পেরোনোই থাক
তৃষ্ণা হয়ে থাক কান্না-গভীর ঘুমে মাখা।

Re: আটপৌরে প্রলাপঃ ৩

একই জেনারেশনের মানুষগুলো মনে হয় কিছুটা একই রকম ফেজের মধ্য দিয়ে যায়, নইলে আপনার সব লেখার মাঝেই মিল খুজে পাই কেনো?

লেখাটি CC by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: আটপৌরে প্রলাপঃ ৩

আপনার মনেহয় পেন্সিল শার্পনার আর রাবার নিয়ে একটা লেখা আগে পড়েছিলাম। চমৎকার ছিলো। এটাও চমৎকার হয়েছে।

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

Re: আটপৌরে প্রলাপঃ ৩

লেখাটা মন ছুয়ে গেল... smile thumbs_up

তার-ছেড়া-কাউয়া লিখেছেন:

আপনার মনেহয় পেন্সিল শার্পনার আর রাবার নিয়ে একটা লেখা আগে পড়েছিলাম। চমৎকার ছিলো। এটাও চমৎকার হয়েছে।

আপনি সম্ভবত রসাস ভাইয়ের লেখাটার কথা বলছেন isee

ইট-কাঠ পাথরের মুখোশের আড়ালে,
বাধা ছিল মন কিছু স্বার্থের মায়াজালে...

Re: আটপৌরে প্রলাপঃ ৩

ছায়ামানব লিখেছেন:

লেখাটা মন ছুয়ে গেল... smile thumbs_up

তার-ছেড়া-কাউয়া লিখেছেন:

আপনার মনেহয় পেন্সিল শার্পনার আর রাবার নিয়ে একটা লেখা আগে পড়েছিলাম। চমৎকার ছিলো। এটাও চমৎকার হয়েছে।

আপনি সম্ভবত রসাস ভাইয়ের লেখাটার কথা বলছেন isee

ও । ঠিক বলেছেন। ওনার তাহলে আরও একটা লেখা পড়েছিলাম। স্যান্ডউইচ বা বার্গার নিয়ে। ওটা চমৎকার ছিলো।
লেখককে সরি। অন্য লেখার সাথে আপনাকে গুলিয়ে ফেলেছিলাম। ব্যাপারটা পীড়াদায়ক। আমি জানি। তাই দুঃখ প্রকাশ করছি।

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন onlysoBuj (০৯-০৩-২০১৭ ০৮:০৩)

Re: আটপৌরে প্রলাপঃ ৩

সমালোচক লিখেছেন:

ভালো

ধন্যবাদ...  smile


Gypsy Saleh লিখেছেন:

চমৎকার সাবলীল লেখা।  thumbs_up

আপনাকেও ধন্যবাদ ... smile

যদি আসো... স্বাগতম!
যদি না আসো... সুস্বাগতম!!

১০

Re: আটপৌরে প্রলাপঃ ৩

উদাসীন লিখেছেন:

আমারও একই অবস্থা। ফোন করলেই দুটো কথার পরেই বিয়ে নিয়ে ঝুলে পড়ে। এজন্য ফোন করাই বাদ দিয়েছি  hairpull
নিঃসঙ্গতা জেঁকে বসছে...সাবধান হয়ে যান। বড় আপার কথামত মিষ্টি একখানা মেয়েকে আপন করে নিন। এইসব ফাইজলামি বাদ দেন। কত দেখলাম! হাহা হা হা। আমার একটা কবিতা দেই এখানেঃ

কখনো কখনো বড় একা হয়ে যাই।
কখনো কখনো নিঝুম প্রাতে,
চোখ মেলেই বিষন্ন হয়ে যাই!
ভালোলাগে না আলো, নিষ্ঠুর লাগে
নাগরিক চৈতন্যের নিত্য শ্রুত শব্দ!
আত্মার গভীরে জেগে ওঠে
ঘুমিয়ে থাকা শব্দহীন নির্বিবাদি সমঝোতা;
বুক ধড়াসে মনে পড়ে যায়-
আমি একা, বড় একা!
কখনো কখনো ভুলে যাই বেমালুম-
বিস্মৃতির অভিনয়, সুনিপুণ;
ভ্রমাশ্রয়ী মায়া-কল্প,
অসুখী অনবধানে গেয়ে ফেলে আত্ম-ব্যজস্তুতি!
প্রতিবোধনের অশ্রু আনমনে গড়িয়ে পড়ে,
হাহাকারে মনে বাজে নিঃসঙ্গতার নিগুঢ় ধ্বনি !
কখনো কখনো বড্ড ওলটপালট হয়ে যায়...
আপাত সুখী জীবনের চকচকে মোড়কে
চাপা পড়া দীর্ঘশ্বাস,
ক্ষেপা অঘটন হয়ে জুড়ে যায়!
ভেঙ্গে গেলে মোহ, গুড়িয়ে গেলে আত্মরম্ভ
সত্যের ক্ষারক জলে ক্ষয়িষ্ণু ‘আমি’ কে দেখি।
তখন বড্ড অভিমান হয়ে যায়...
জাগতিক বিধির সাধ্য কি
ছোঁয় আমার মর্মন্তুদ মৃদুল নিধি!
কখনো কখনো বড় নিঃস্ব হয়ে যাই
উদাসীনতায়ও মানে না মন,
শত প্রবোধেও উন্নদ্ধ উচাটন;
কখনো কখনো বেঁচে থাকাটাই
বড্ড উপদ্রব মনে হয়!!

ভাল থাকুন।


কবিতার জন্যে অসংখ্য ধন্যবাদ।  thumbs_up
আপনি নিজে ঝুলে দেখান, পেছনে আমি আছি...  lol

যদি আসো... স্বাগতম!
যদি না আসো... সুস্বাগতম!!

১১

Re: আটপৌরে প্রলাপঃ ৩

লেখাটা ভাল লাগলো।

IMDb; Phone: Huawei Y9 (2018); PC: Windows 10 Pro 64-bit

১২

Re: আটপৌরে প্রলাপঃ ৩

রেজওয়ানুর লিখেছেন:

একই জেনারেশনের মানুষগুলো মনে হয় কিছুটা একই রকম ফেজের মধ্য দিয়ে যায়, নইলে আপনার সব লেখার মাঝেই মিল খুজে পাই কেনো?


আমারও তাই মনে হয়। পরের জেনারেশনের সাথে ব্যাপক একটা গ্যাপের অনুভূতি তারই সাক্ষ্য দেয়।  smile

অফটপিকঃ আমি একসাথে সব (একটির পর আরেকটি) কমেন্টের জবাব দিতে পারি না... এরর দেখাচ্ছে। প্রথম কমেন্টের পর যতবারই কমেন্ট করতে যাই, একই এরর মেসেজ আসতেই থাকে। কারন কি বলতে পারেন?

যদি আসো... স্বাগতম!
যদি না আসো... সুস্বাগতম!!

১৩

Re: আটপৌরে প্রলাপঃ ৩

onlysoBuj লিখেছেন:

অফটপিকঃ আমি একসাথে সব (একটির পর আরেকটি) কমেন্টের জবাব দিতে পারি না... এরর দেখাচ্ছে। প্রথম কমেন্টের পর যতবারই কমেন্ট করতে যাই, একই এরর মেসেজ আসতেই থাকে। কারন কি বলতে পারেন?

আপনি উক্তি ব্যবহার করে মন্তব্য করুন।

hard to hate but tough to love

১৪

Re: আটপৌরে প্রলাপঃ ৩

onlysoBuj লিখেছেন:

কবিতার জন্যে অসংখ্য ধন্যবাদ।  thumbs_up
আপনি নিজে ঝুলে দেখান, পেছনে আমি আছি...  lol

আহা, আমি তো বুড়ো হয়ে গেছি। hehe
এখন আপনাদের দিন।

কিছু বাধা অ-পেরোনোই থাক
তৃষ্ণা হয়ে থাক কান্না-গভীর ঘুমে মাখা।

উদাসীন'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত