টপিকঃ রোগীর সাথে হাস্যরস : পর্ব - ২

ভুমিকা:  আমি রসিকতা প্রিয় মানুষ। দিনের অনেকটা সময় কাটে রোগীদের নিয়ে। কিন্তু রোগীর সাথে রসিকতা খুবই স্পর্শকাতর বিষয়। বিশেষকরে বাংলাদেশে, যেখানে বেশির ভাগ সময়ই ডাক্তার রোগীর সম্পর্ক রেষারেষি পূর্ণ। তবু কখনো কখনো কিছু হাস্যরসের অবতারনা ঘটে, যা ঠিক ওই মূহুর্তের অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে। পাঠক বিষয়টি ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন আশা করি। সিরিয়াস টাইপ পাঠক, টপিকটি না পড়াই ভাল হবে।

কিছু ইনভেস্টিগেশন রিপোর্ট টেবিলে ছিল সেগুলো দেখছিলাম, এমন সময় একজন মধ্যবয়সী রোগী রুমে ঢুকল। আমি বললাম ২ মিনিট একটু বসতে হবে। তিনি আমার সামনের চেয়ারে বসলেন। আমি রিপোর্ট দেখছি….

কিছুক্ষন পর হঠাৎ ভদ্রলোক বললেন, “এই রিপোর্ট গুলা আমার না”  (মানে কি না, আমি যে রিপোর্ট গুলা দেখছি সেগুলা ওনার না)
আমি বললাম, এগুলা আপনার রিপোর্ট।
: কি বলেন? এগুলা আমার রিপোর্ট না।
: আমি শিওর, এগুলা আপনারই রিপোর্ট।
: আরে মাথা খারাপ নাকি (ভদ্রলোক উত্তেজিত) আমার নাম ইসমাইল হোসেন, আমি কোন রক্ত পরীক্ষা করাইনি, আপনি নাম মিলিয়ে দেখেন।
: (খুব শান্তভাবে গম্ভীর হয়ে বললাম) আসলে নামে কিছু যায় আসে না। আর নাম যাই হোক না কেন, এগুলা আপনারই রিপোর্ট, আমি শতভাগ নিশ্চিত।
: কি পাগল ছাগল ডাক্তার!!! (রোগী হন হন করে বেরিয়ে গেল)……

পরে অনেক ভেবেছি কাজটা আমার করা ঠিক হল কিনা। কিন্তু আমার ঠিক সেই মূহুর্তের যুক্তি ছিল, যিনি আমার বুদ্ধির এতটুকু নির্ভর করতে পারেননা যে, শুরুতেই অনুমান করে ভাবতে থাকেন আমি অন্যের রিপোর্ট দেখে তার চিকিৎসা করছি, তাকে আমার না দেখাই শ্রেয় মনে হয়েছে।

পর্ব : ১

Re: রোগীর সাথে হাস্যরস : পর্ব - ২

ভালো লাগলো thumbs_up। তবে পড়া শুরু করতে না করতেই শেষ হয়ে গেল। দুই পর্ব মিলিয়ে এক পর্ব করলে ভালো হতো smile

ইট-কাঠ পাথরের মুখোশের আড়ালে,
বাধা ছিল মন কিছু স্বার্থের মায়াজালে...