৪১ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন amilee.2008 (১৬-০৭-২০১৪ ১৫:৪২)

Re: সর্দিজনিত স্বাস্থ্য সমস্যা

হুম! আমাদের সব কিছুই ব্যালান্সড হওয়া ভালো।
সে জন্যই তো আমাদের দেহের সব কিছু মেজারমেন্টেই একটা রেঞ্জ থাকে। একটা থ্রেসোল্ড লেভেল থাকে। সেই level টপকালেই সমস্যা  mad mad

ব্যাপারটি কিন্তু ঠিক উল্টো।

সব সময় তাই কি? আমি, আপনি আরো ৪জন মিলে বৃষ্টিতে ভিজে ফুটবল খেললাম,
কিন্তু আমার আর আপনার সর্দি কাশি জ্বর গায়ে ব্যাথা হলো,তার পর দমের কষ্ট। (যেটা আমার আগে প্রচন্ড ভাবে হতো, এখন আমি ২-৩ ঘন্টা আরাম সে ভিজতে পারি, যদিও আমি দীর্ঘ্য ১০ বছর কোনো এলোপ্যাথিক মেডিসিন খাইনি)
আমার ও আপনার এই সমস্যাটা আছে একটু ভিজলেই, ২-৪ ফোটা মাথায় পড়েছে তো আর রক্ষে নেই।
তাহলে কি আমাদের ইম্যুনিটি বেশি সক্রিয়? না তা মোটেই না, কিন্তু কোনো কোনো ক্ষেত্রে কোনো কিছুর প্রতি আমাদের বডি বেশি সাস্পেটেবল হয়, পরে ইম্যুনিটি ওভার এক্টিভিটি দেখায়।

শরীরের ইম্যিউন সিস্টেমটাকে দাবানোর জন্য স্টেরয়েড ব্যবহার করা হয়।

এটা কি ঠিক ট্রিটমেন্ট বলে মনে হয়?  thinking
আমার তো মনে হয় না,  আশাকরি সকলের তাই মত হবে।
ইম্যিউন সিস্টেমট যে ভুলটা করছে বা তার যে ইমব্যালান্সটা হচ্ছে সেটাকে ঠিক না করে,
তাকে জোর করে চড়, থাপ্পড় মেরে বসিয়ে রাখা হচ্ছে। ghusi ghusi

দেখা যাচ্ছে জীবনের প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রেই এসব জীবাণুদের ভূমিকা আছে। আপনি মোটা নাকি রোগা, মিষ্টি না টক খাবার পছন্দ, মুড ভালো না খারাপ

থাকতে পারে কিন্তু জীবানু, ভাইরাস, পরজীবি এরাই দায়ী, এটা আমি ১০০% মানতে পারলাম না।
একটা উদাঃ দিই, আমদের আম-আদমির ধারনা আছে, মিষ্টি খেলে কৃমি হয়, না সেটা ঠিক নয় বরং  ক্মৃমির জন্যই বাচ্ছাদের  মিষ্টি খাওয়ার প্রবন্তা বাড়ে, কিন্তু সব বাচ্ছাদের কি এই মিষ্টি খাওয়ার প্রবন্তা বাড়ে, উত্তর না। কেন না,
এটাই হলো কনস্টিটিউশান, একেক জন মানুষের একেক রকম।
     একই বাড়ীর ৪জন , প্রায় সমবয়সী/ ভিন্ন, একই পরিবেশ, বড় হওয়া, খাওয়া দাওয়া, স্টাটাস, জল বায়ু,
জীবানু ভাইরাসে ডুবে আছি,  সবই তো একই রকম হয়, তবুও সবার (একে আপরের মধ্যে)  মধ্যেই তো বিস্তর ফারাক, কেউ টক খায়, কেউ মিষ্টি, কেউ তেতো,কেউ ভাতে কাচা নুন, কেন? জীবানু -ভাইরাস? এরাই সব নয়, মনে হয়।
মেরুতে যেখানে জীবানু -ভাইরাস কম, সেখানে কি এই সব খাওয়ার ইচ্ছা কম?

আরো নিখুত ভাবে ভাবা যায়।
আমি, আপনি আরো ৪জন মিলে ভোর বেলার কনকনে ঠান্ডায় স্যান্ডো পরে সাইকেল রেসিং এ বেরোলাম।
তারপর দেখ লাম, আমার, আপনার, আর মেসির  ঠান্ডা লাগলো ... সর্দি কাশি জ্বর গায়ে ব্যাথা হলো।
কিন্তু দেখা গেল মেসির কেবল সর্দি আর কাশিতেই থেমে গেল, আর আমি ও আপনি সর্দি কাশি জ্বর গায়ে ব্যাথা,
কিন্তু আপনার প্রচন্ড পানি পিপাসা রেড়ে গেল, আমার একদম কমে গেল... কেন?
আমি চুপ করে শুয়ে আছি এক্টুও নড়া চড়া করতে ভালো লাগছে না, কিন্তু আপনি শুতে পারছেন না,
শুলেই অস্থির লাগছে, বরং একটু খোলা জায়গায় আস্তে আস্তে ঘুরে বেড়ালেই একটু আরাম পাচ্ছেন, কিন্তু কেন?
আমার মাথাটা ভারী, দপদপ করছে, মাথা নাড়ালেই মনে হচ্ছে, ফেটে যাবে এখুনি, কিন্তু আপনার শুধু মাথাটা কেবল ভারী
লাগছে, এছাড়া মাতায় আর কষ্ট নেই । কিন্তু কেন?
কিন্তু আমাদের ঠান্ডা লাগার সোর্স ছিলো এক্টাই। বাট সিম্পটম কত ভাগে, ভাগ হলো। কেবল মানুষ গুলো আলাদা আলাদা বলে।
যদি খুব নিখুত ভাবে ভাবি আলাদা আলাদা সিম্পটম তাই কি আলাদা আলাদা ওষধ হওয়া উচিৎ নয়?

এটা থেকে কিছুটা ধারনা হতে পারে
https://www.youtube.com/watch?v=6W1ZpLBnAYA

ব্রাসু ভাই এটা দেখার জন্য অনুরোধ রইলো তবে সবাই দেখতে পারেন
https://www.youtube.com/watch?v=f2htwWueR1g

প্রজন্ম ফোরাম

লেখাটি GPL v3 এর অধীনে প্রকাশিত

৪২

Re: সর্দিজনিত স্বাস্থ্য সমস্যা

ভাইয়া শীতকাল আসলে আমার নাকের নাকের মাংস বেড়ে যায় ।  এবং শ্বাস নিতে সমস্যা হয় মাথা গোরায় ।    এর সমাধান কি ??  কি ঔষদ ব্যবহার করতে পারি ?? দয়া করে বলবেন ভাইয়া

2 minutes and 18 seconds after:

ভাইয়া শীতকাল এলে নাকের মাংস বেড়ে যায় ফলে শ্বাস নিতে সমস্যা হয় মাথা ঘোরে । এর জন্য কি ঔষদ খাব ভাইয়া  দয়াকরে বলবেন ।

৪৩

Re: সর্দিজনিত স্বাস্থ্য সমস্যা

symoon লিখেছেন:

ভাইয়া শীতকাল আসলে আমার নাকের নাকের মাংস বেড়ে যায়


শীত কাল বলে কথা নয়, আমি শুনেছি নাকের মাংশ যে কোন সময়ে বাড়তে পারে, একজন ভালো চিকিৎসকের সাথে আলাপ করুন

"We want Justice for Adnan Tasin"