টপিকঃ আমাদের সূর্য সন্তানরা সব পারে

প্রযুক্তি আমদের কত কিই না এনে দিয়েছে। গবেষকরা নিরন্তন চেষ্টা চালিয়ে মানব কল্যাণে উপকারী আবিষ্কারে ব্যস্ত। বিদেশীদের থেকে আমাদের সোনার ছেলেরা পিছিয়ে নেই কোন অংশে। আমাদের দেশের সন্তানরা নিজেদের প্রচেষ্টায় অনেক উপকারী জিনিষ আবিষ্কার করেছন। যেমন সিঁড়ি বেয়ে উপরে উঠছেন কোন রকম স্পর্শ ছাড়াই জ্বলে
উঠবে লাইট। একইভাবে সিঁড়ি অতিক্রম শেষে তা বন্ধ হবে আপনা আপনি। ঘরে মানুষ থাকলে বাল্ব জ্বলবে, বের হয়ে যাওয়া মাত্রই তা বন্ধ হয়ে যাবে স্বয়ংক্রিয়ভাবে। বিদ্যুত সাশ্রয়ী এমন এলইডি সেন্সর লাইট উদ্ভাবন করে চমকে দিয়েছেন ইলেক্ট্রিশিয়ান ফিরোজ শিকদার। শুধু তাই নয়, দিনের আলোতে রাস্তায় জ্বলতে থাকা স্ট্রিট লাইটও তাকে ভাবিয়ে তোলে। বিদ্যুতের অপচয় রোধে তিনি উদ্ভাবন করেছেন ডিটেক্টিং এলইডি স্ট্রিট লাইট, যা সূর্যের আলো ডিটেক্ট করে কেবল জ্বলবে রাতের অন্ধকারে। সাশ্রয়ী এই বাল্বের ব্যবহার বিদ্যুত খাতে আনতে পারে বৈপ্লবিক পরিবর্তন। একইভাবে তার উদ্ভাবিত সেন্সর সিস্টেম আপনা আপনি বন্ধ করবে বিদ্যুৎ ও গ্যাসের সংযোগ, যা ব্যবহার করলে বাসাবাড়িতে ঘটে যাওয়া আকস্মিক অগ্নিকান্ডের সঙ্গে সঙ্গেই বন্ধ হয়ে যাবে বিদ্যুৎ ও গ্যাস। এতে বড় ধরনের মারাত্মক দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে। ইলেক্ট্রিশিয়ান ফিরোজ শিকদার ব্যতিক্রমী এই তিন উদ্ভাবনেই থেমে থাকেননি। বিদ্যুতের অপচয় যেমন তাকে ভাবিয়েছে তেমনি উৎপাদন বৃদ্ধিতেও তিনি তার মেধাকে কাজে লাগাতে চেয়েছেন। সেই ভাবনায়ই তাকে পথ দেখিয়েছে ড্রেনের বহমান স্রোত। পানির স্রোত থেকে বিদ্যুত উৎপাদন হয়ে আসছে বহু বছর। তবে ড্রেনে বহমান পানির স্রোত থেকে বিদ্যুত উৎপাদনের ধারণা একেবারেই নতুন। বিদ্যুত উৎপাদনের ভিন্ন রকমের এই ধারণা সবাইকে চমকে দিয়েছে। এই উদ্ভাবনটি প্রয়োগ করা সম্ভব হলে কেবল ঢাকার ড্রেনের বহমান স্রোত ব্যবহার করে ১০০ থেকে ১৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা সম্ভব। পুরো ঢাকায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে শত শত ড্রেন। এর কোন কোনটিতে প্রচন্ড বেগে বইছে স্রোত। আবার কোনটিতে জমে আছে ময়লা। এই পদ্ধতি প্রয়োগ করা সম্ভব হলে শুধু বিদ্যুৎই উৎপাদিত হবে তা নয়, ঢাকা হয়ে উঠতে পারে ময়লা ও মশা-মাছিমুক্ত। আমাদের দেশের সন্তানরা উপযুক্ত কর্ম পরিবেশ ও আর্থিক সার্পোট পেলে অনেক কিছুই করতে পারবে।

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন আউল (২৯-১২-২০১৬ ১১:৫৯)

Re: আমাদের সূর্য সন্তানরা সব পারে

শম্পা লিখেছেন:

ঢাকার ড্রেনের বহমান স্রোত ব্যবহার করে ১০০ থেকে ১৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা সম্ভব।

দিদি এতই যখন সম্ভবনা, এত প্রতিবাদের পরও তবে সুন্দরবন উজাড় করে কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র করতে হচ্ছে কেন?

নিজে শিক্ষিত হলে হবে না- প্রথমে বিবেকটাকে শিক্ষিত করতে হবে

Re: আমাদের সূর্য সন্তানরা সব পারে

আউল লিখেছেন:
শম্পা লিখেছেন:

ঢাকার ড্রেনের বহমান স্রোত ব্যবহার করে ১০০ থেকে ১৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা সম্ভব।

দিদি এতই যখন সম্ভবনা, এত প্রতিবাদের পরও তবে সুন্দরবন উজাড় করে কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র করতে হচ্ছে কেন?

বাদ দেন। ওনার সবগুলো টপিকই মোটামোটি BTV। সরকারের মার্কেটিং এবং বিরোধীদের গালাগালি। শোনা যায় সরকার যথেষ্ট ট্যাকাটুকা খরচ করে অনলাইনে সরকারের মার্কেটিং করতে এবং বিরোধীদের চিহ্নিত করতে। এই আইডিও সম্ভবত সেরকমই কোন ফেক আইডি। যাকে বলে snitch  lol2

লেখাটি GPL v3 এর অধীনে প্রকাশিত