সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন সীমান্ত ঈগল (মেহেদী) (২৭-১১-২০১৬ ২১:৩৬)

টপিকঃ কেমন হবে জান্নাত? দেখে নিন জান্নাতের ফিচারসমূহ

ভূমিকাঃ একটি ফ্ল্যাট কিনতে গেলে আপনি প্রথমে কি করেন? অবশ্যই আগে ফ্ল্যাটের বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা, আয়তন, কোয়ালিটি ইত্যাদি দেখেন। একটা ফ্ল্যাট কত দিন দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে? আনুমানিক ১০০ বছর। কিন্তু মহান আল্লাহ আপনাকে শুধুমাত্র ক্ষনস্থায়ী একটি ফ্ল্যাট নয়, বরং অনন্ত জীবনের জন্যে বিশাল এক জান্নাত অফার করেছেন। আসুন দেখে নেই সেই জান্নাতের ফিচারসমূহ। নিচে জান্নাতের ফিচারগুলো তুলে ধরা হলো।

আয়তনঃ পৃথিবীর তুলনায় বহুগুন বেশী প্রশস্ত, যা আমাদের কল্পনাতীত। জান্নাত এত বিশাল যে, এর নির্দিষ্ট সীমারেখা বলা অসম্ভব।এমনকি জান্নাতে সর্বশেষ প্রবশেকারী ব্যক্তিও পাবে পৃথিবীর চেয়েও দশগুন বড় জান্নাত (মুসলিম, কিতাবুল ইমান, বাব ইসবাতুশশাফায়া)। জান্নাতে রয়েছে শত স্তর, আর সকল স্তরের মাঝে আকাশ ও পৃথিবী সম দুরুত্ব রয়েছে (তিরমীযী)। জান্নাতে এক একটি বৃক্ষের ছায়া এত লম্বা হবে যে, কোন অশ্বারোহী শত বছর পর্যন্ত তার ছায়ায় চলার পরও সে ছায়া শেষ হবে না (বুখারী)।

জান্নাতী লোকদের জন্যে যা থাকছে, তার সামান্য কিছু বর্ণনাঃ জান্নাতী লোকদের জন্যে থাকবে সুরম্য দু’টি বাগিচা। বাগিচাগুলো হবে ঘন শাখা-প্রশাখা বিশিষ্ট। সেখানে দুটো ঝর্ণাধারা প্রবাহমান থাকবে। প্রতিটি ফল হবে দুই প্রকারের। জান্নাতের অধিবাসীরা রেশমের আস্তর দিয়ে মোড়ানো পুরু ফরাশের উপর হেলান দিয়ে আয়েশ করে বসবে। এ সময় উভয় উদ্যান ফলসহ তাদের সামনে ঝুলন্ত অবস্থায় থাকবে। সেখানে আরো থাকবে আনত নয়না হুরগন, যাদেরকে এই জান্নাতবাসীদের পূর্বে কোন মানুষ বা জ্বীন স্পর্শ করেনি। এই দুটো উদ্যান ব্যতীত আরো দুটো ভিন্ন ধরনের উদ্যান দেয়া হবে, যেগুলো হবে চির সবুজ ও ঘন। সেখানেও দু’টো ঝর্ণাধারা ফোয়ারার মত উচ্ছল গতিতে অবিরাম বইতে থাকবে। এইা উদ্যানগুলোতে থাকবে রং বেরংয়ের ফল পাকড়া- খেজুর ও আনার। জান্নাতীরা সুন্দর গালিচার বিছানা ও সবুজ চাদরের উপর হেলান দিয়ে থাকবে (সূরা আর রহমানঃ আয়াত ৪৬-৭৬)। জান্নাতের উদ্যানগুলোর তলদেশ দিয়ে নহর বইতে থাকবে (সূরা তাওবা, আয়াতঃ ৭২)। এধরনের অসংখ্য সুযোগ সুবিধা থাকবে, বিস্তারিত জানতে এই ফাইলটি ডাওনলোড করে পড়ুন- Click Here
ツ কোন ফ্লাটের সুযোগসুবিধাগুলো পছন্দ হওয়ার পর আপনি দেখেন যে, ফ্লাটটি কেনার সামর্থ আপনার আছে কি না! এবার জান্নাতের ফিচারগুলো দেখে একবার ভাবুন, এই জান্নাত পাওয়ার যোগ্যতা আপনার আছে কি না!

কারা হবে সেই জান্নাতী?
এক কথায় বলতে গেলে পরিপূর্ণভাবে ইসলাম ধর্মের বিধি-নিষেধ মান্যকারী, কোরআন ও সহীহ সুন্নাহর অনুসরণকারী মুত্তাকী মুমিন বান্দারাই হবে জান্নাতের উত্তরাধকিারী।
জান্নাতী কারা, সে সম্পর্কে জানতে বিস্তারিত পড়ুনঃ Click Here

পরিশিষ্টঃ আজ থেকেই প্রস্তুতি নেয়া শুরু করুন- জান্নাতী হওয়ার জন্যে, জান্নাতে আপনার সুবশিাল রাজ্য পাওয়ার জন্যে।

[Yes, you can copy and share this post. Islamic post hasn't any copyright.]

Re: কেমন হবে জান্নাত? দেখে নিন জান্নাতের ফিচারসমূহ

সীমান্ত ঈগল (মেহেদী) লিখেছেন:

সেখানে আরো থাকবে আনত নয়না হুরগন, যাদেরকে এই জান্নাতবাসীদের পূর্বে কোন মানুষ বা জ্বীন স্পর্শ করেনি।

মহিলাদের জন্য কি থাকবে?

"সংকোচেরও বিহ্বলতা নিজেরই অপমান। সংকটেরও কল্পনাতে হয়ও না ম্রিয়মাণ।
মুক্ত কর ভয়। আপন মাঝে শক্তি ধর, নিজেরে কর জয়॥"

Re: কেমন হবে জান্নাত? দেখে নিন জান্নাতের ফিচারসমূহ

একটু আগে Netflix এর Black Mirror S03E04(San Junipero) দেখলাম। চরম লাগলো। ডিজিটাল জান্নাত নিয়ে গল্প। ৫০০ বছর পরে হতো এটা সম্ভব হলেও হতে পারে।

লেখাটি LGPL এর অধীনে প্রকাশিত

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন নিয়াজ মূর্শেদ (২৭-১১-২০১৬ ২২:৫০)

Re: কেমন হবে জান্নাত? দেখে নিন জান্নাতের ফিচারসমূহ

কি ধরনের টপিক দিলেন এটি। জান্নাতের টিকেট পাওয়ার সাথে ফ্ল্যাট কিনার তুলনা। এইটা হইলো কিছু?

জান্নাত বর্ননা রুপকথার মতো। বিশ্বাস করতে ইচ্ছা হয় কিন্তু তবুও কোথায় জানি আটকে যাই। বিশ্বাস না করলে মুসলমান থাকা যায় না। কাফির হতে হয়। নাউজুবিল্লাহ।

Re: কেমন হবে জান্নাত? দেখে নিন জান্নাতের ফিচারসমূহ

আরণ্যক লিখেছেন:
সীমান্ত ঈগল (মেহেদী) লিখেছেন:

সেখানে আরো থাকবে আনত নয়না হুরগন, যাদেরকে এই জান্নাতবাসীদের পূর্বে কোন মানুষ বা জ্বীন স্পর্শ করেনি।

মহিলাদের জন্য কি থাকবে?

প্রশ্নটা আমার মনেও জাগল। এ পর্যন্ত যতবারই জান্নাতের বর্ননা শুনেছি, কখনোই মহিলাদের জন্য কি থাকবে সেটা শোনা হয়নাই। জান্নাত কি শুধু পুরুষদের জন্যই নাকি!

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন নিয়াজ মূর্শেদ (২৮-১১-২০১৬ ১০:২৯)

Re: কেমন হবে জান্নাত? দেখে নিন জান্নাতের ফিচারসমূহ

রিমন রনবীর লিখেছেন:
আরণ্যক লিখেছেন:

মহিলাদের জন্য কি থাকবে?

প্রশ্নটা আমার মনেও জাগল। এ পর্যন্ত যতবারই জান্নাতের বর্ননা শুনেছি, কখনোই মহিলাদের জন্য কি থাকবে সেটা শোনা হয়নাই। জান্নাত কি শুধু পুরুষদের জন্যই নাকি!

মহিলাদের জন্য এক পুরুষ। তার স্বামী। পুরুষদের জন্য স্ত্রী সহ কম বেশী ৭২ হূরপরী (সংখ্যা নিয়ে বিরোধ আছে)।

এখানে স্পষ্টত আল্লাহ্‌ মহিলাদের প্রতি অবিচার করেছেন বলে মনে হতে পারে কিন্তু এই ব্যাপারে একটা ব্যাখ্যা দাড় করানো যায় যে, পুরুষদের সেক্সের ইচ্ছা বা কামনা বাসনা মহিলাদের চাইতে বহুগুন বেশী। মহিলারা এক পুরুষে সন্তুষ্ট থাকতে পারে কিন্তু পুরুষরা বেশির ভাগ সময়ই এক নারীতে সন্তুষ্ট থাকতে পারে না। আল্লাহ্‌ পুরুষদের নারীদের প্রতি অত্যধিক দূর্বলতার ব্যাপারে জ্ঞাত বিধায় পুরুষদের জন্য অধিক সুন্দরী হূরপরীদের ব্যাবস্থা করেছেন জান্নাতে। মহিলারা যেহেতু এক পুরুষে সন্তুষ্ট থাকে (যদিও ব্যাতিক্রম আছে) তাই তাদের জন্য এক স্বামীর ব্যাবস্থা।

জান্নাত আসলে এভাবে বর্ননা করা কঠিন। এখানে সুখ শান্তির সব ব্যাবস্থা থাকবে। মহিলাদের যদি সুখ শান্তির জন্য আরো কিছু দরকার হয় জান্নাতের কেয়ারটেকারের মাধ্যমে বা সরাসরি আল্লাহর কাছে আর্জি পেশ করলে আল্লাহ্‌ নিশ্চয়ই তার ইচ্ছা পূরন করবেন।

Re: কেমন হবে জান্নাত? দেখে নিন জান্নাতের ফিচারসমূহ

আরণ্যক লিখেছেন:

মহিলাদের জন্য কি থাকবে?

নিয়াজ মূর্শেদ লিখেছেন:
রিমন রনবীর লিখেছেন:

প্রশ্নটা আমার মনেও জাগল। এ পর্যন্ত যতবারই জান্নাতের বর্ননা শুনেছি, কখনোই মহিলাদের জন্য কি থাকবে সেটা শোনা হয়নাই। জান্নাত কি শুধু পুরুষদের জন্যই নাকি!

মহিলাদের জন্য এক পুরুষ। তার স্বামী। পুরুষদের জন্য স্ত্রী সহ কম বেশী ৭২ হূরপরী (সংখ্যা নিয়ে বিরোধ আছে)।

এখানে স্পষ্টত আল্লাহ্‌ মহিলাদের প্রতি অবিচার করেছেন বলে মনে হতে পারে কিন্তু এই ব্যাপারে একটা ব্যাখ্যা দাড় করানো যায় যে, পুরুষদের সেক্সের ইচ্ছা বা কামনা বাসনা মহিলাদের চাইতে বহুগুন বেশী। মহিলারা এক পুরুষে সন্তুষ্ট থাকতে পারে কিন্তু পুরুষরা বেশির ভাগ সময়ই এক নারীতে সন্তুষ্ট থাকতে পারে না। আল্লাহ্‌ পুরুষদের নারীদের প্রতি অত্যধিক দূর্বলতার ব্যাপারে জ্ঞাত বিধায় পুরুষদের জন্য অধিক সুন্দরী হূরপরীদের ব্যাবস্থা করেছেন জান্নাতে। মহিলারা যেহেতু এক পুরুষে সন্তুষ্ট থাকে (যদিও ব্যাতিক্রম আছে) তাই তাদের জন্য এক স্বামীর ব্যাবস্থা।

যেসকল নারী এক পুরুষে সন্তুষ্ট না তাদের জন্য কি ব্যবস্থা থাকবে ? যেহুতু পুরুষরা ৭২ জন নারী পাবেন, তাহলে নারীদের জন্যও ৭২ জন নর থাকা উচিত। যার লাগবে সে ব্যবহার করবে, যার লাগবে না সে একজনকে ব্যবহার করবে। হিসেবটা সহজ হওয়া উচিত ছিল।

   নেই, আছে এবং নৈবচ নৈবচ . . . . .
   দেশ, দশ, দুনিয়া তথা বিশ্ব ব্রম্মান্ড হইতে নহে ষাইফ ঋাষেল আপাতত ফেসবুক হইতে আনা গাইয়েবুন

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন নিয়াজ মূর্শেদ (২৮-১১-২০১৬ ১৪:০৮)

Re: কেমন হবে জান্নাত? দেখে নিন জান্নাতের ফিচারসমূহ

RUSSEL13 লিখেছেন:

যেসকল নারী এক পুরুষে সন্তুষ্ট না তাদের জন্য কি ব্যবস্থা থাকবে ? যেহুতু পুরুষরা ৭২ জন নারী পাবেন, তাহলে নারীদের জন্যও ৭২ জন নর থাকা উচিত। যার লাগবে সে ব্যবহার করবে, যার লাগবে না সে একজনকে ব্যবহার করবে। হিসেবটা সহজ হওয়া উচিত ছিল।

এক পুরুষে সন্তুষ্ট না হলে জান্নাতে আল্লাহ্‌কে বললে বিকল্প ব্যাবস্থা করে দিতেও পারেন। এইসব ব্যাপারেতো শিউরিটি দিয়ে দুনিয়াতে বসে আমরা কিছু বলতে পারবো না। আমরা শুধু ব্যাখ্যা দিতে পারবো কোরআন ও হাদীসের আলোকে। বাকিটা আল্লাহ্‌ ভালো জানেন।

জান্নাতী মহিলারা যা চাইবেন তাই পাবেন। তারা যদি বলেন তাদের পুরুষ হূর দরকার তবে সেই ব্যবস্থাও করে দেয়া হতে পারে যদি আল্লাহ্ চান।

৭২ হূরপরীর কথা কোরআনে নেই। বলা হয়েছে পুরুষ জান্নাতীদের ডাগর নয়না সুন্দরী হূরপরী দেয়া হবে। সংখ্যার কথা আছে বিভিন্ন হাদীসে। তাই নিশ্চিত করে বলা যায় না পুরুষরা কয়টি করে হূরপরী পাবেন। এরা মানুষ না। এরা পরী। মহিলাদের জন্য হয়তো পুরুষ হূরের ব্যাবস্থা আছে জান্নাতে।

Re: কেমন হবে জান্নাত? দেখে নিন জান্নাতের ফিচারসমূহ

নিয়াজ মূর্শেদ লিখেছেন:

মহিলাদের জন্য হয়তো পুরুষ হূরের ব্যাবস্থা আছে জান্নাতে।

এমন রেফারেন্স কোন হাদিসে নাই।

লেখাটি LGPL এর অধীনে প্রকাশিত

১০

Re: কেমন হবে জান্নাত? দেখে নিন জান্নাতের ফিচারসমূহ

নিয়াজ মূর্শেদ লিখেছেন: পুরুষদের সেক্সের ইচ্ছা বা কামনা বাসনা মহিলাদের চাইতে বহুগুন বেশী। মহিলারা এক পুরুষে সন্তুষ্ট থাকতে পারে....

বাৎসায়ান* কামশাস্ত্রে বলেছেন মহিলাদের কামনা বাসনা পুরুষদের চাইতে ৮ গুন বেশি !

* ঋষি বাৎসায়ান হলেন সম্ভবত পৃথিবীর প্রথম সেক্সোলজিস্ট এবং যৌন মনোবিদ।

Life IS Neither TEMPEST, NOR A midsummer NIGHT'S DREAM, BUT A COMEDY OF Errors,
ENJOY AS U LIKE IT

লেখাটি CC by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

১১

Re: কেমন হবে জান্নাত? দেখে নিন জান্নাতের ফিচারসমূহ

অরিহন্ত লিখেছেন:

নিয়াজ মূর্শেদ লিখেছেন: পুরুষদের সেক্সের ইচ্ছা বা কামনা বাসনা মহিলাদের চাইতে বহুগুন বেশী। মহিলারা এক পুরুষে সন্তুষ্ট থাকতে পারে....

বাৎসায়ান* কামশাস্ত্রে বলেছেন মহিলাদের কামনা বাসনা পুরুষদের চাইতে ৮ গুন বেশি !

* ঋষি বাৎসায়ান হলেন সম্ভবত পৃথিবীর প্রথম সেক্সোলজিস্ট এবং যৌন মনোবিদ।


এখানে ইসলামি জান্নাত নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। ঋষি বাৎসায়ান কি বললেন সেটা এখানে গুরুত্বপূর্ন বিষয় নয়। ঋষি বাৎসায়ান কোথায় কি বললো সেটা গুরুত্বহীন যখন আমরা জান্নাত-জাহান্নাম নিয়ে আলোচনা করছি। মহিলারা যদি এক পুরুষে সন্তুষ্ট হতে না পারে তবে জান্নাতে আল্লাহ্‌ হূর পুরুষের ব্যাবস্থা করতেও পারেন আবার তাদের অন্তরে শুধু এক পুরুষের জন্য কামনার উদ্রেগ করে দিতে পারেন। এখন প্রশ্ন উঠতে পারে তাহলে পুরুষদের বেলায় কেনো এই পক্ষপাতিত্ব। এই ব্যাপারে আল্লাহ্‌ই ভালো জানেন। যদি দয়া হয় আল্লাহর এবং আমি যদি জান্নাতে যাই তবে ৭২ টার ৭২ টাই আমি চাইবো। এই সুযোগ হেলায় হারাবো না।  big_smile

১২

Re: কেমন হবে জান্নাত? দেখে নিন জান্নাতের ফিচারসমূহ

অরিহ্ন্ত যেটা বলেছেন, সেটা ভাবার বিষয়! ইসলামী জান্নাতের ধারণাটা একটা ত্রূটিপূর্ণ ব্যাপার। পক্ষপাতদুষ্ট। কামুক নর দিয়ে রচিত হলে অমনই হবে, এ আর আশ্চর্য কী!

কিছু বাধা অ-পেরোনোই থাক
তৃষ্ণা হয়ে থাক কান্না-গভীর ঘুমে মাখা।

উদাসীন'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

১৩ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন invarbrass (২৯-১১-২০১৬ ১১:২১)

Re: কেমন হবে জান্নাত? দেখে নিন জান্নাতের ফিচারসমূহ

reproduction স্ট্র্যাটেজী অনেক ধরণের আছে - তাদের মধ্যে সবচেয়ে পিকিউলিয়ার হলো যৌণ প্রজনন।

যৌণ প্রজনন করতে হলে একটি প্রজাতীর জীন পুলকে দুইভাগে বিভক্ত করে ফেলতে হবে - sexual dimorphism. দ্বিধাবিভক্ত করা মানেই কম্ম সারছে - এরা নিজেরা কিছু করতে পারবে না, একটাকে অন্যটার সাথে জোড়া লাগাতে হবে - নইলে খেল খতম। সেল্ফ রেপ্লিকেটিং প্রাণীগুলো যেখানে কারো সাহায্য ছাড়া নিজেরাই অযৌণ পদ্ধতিতে নতুন অপত্যের জন্ম দিতে পারে, সেখানে একটি প্রজাতীর জীন পুল স্রেফ আদ্ধেক করে ফেলা - বড্ড রিস্কী।

এবার ওই ৫০:৫০ দুই ভাগকে মিলিত করানোর জন্য ব্যাপক খরুচে সিস্টেম - এণ্ডোক্রিন, গোনাডস, জেনিটালিয়া ইত্যাদি অরগ্যান, ব্রেইনে এক্সট্রা নিউরাল নেটওয়ার্ক প্রভৃতি এ্যাটাচ করে দিতে হবে।  ইকোনমিক্সের দিক থেকে, অযৌণ প্রজননের তুলনায় দ্বিগুণেরও বেশি কস্টলী হলো সেক্সুয়াল রিপ্রডাকশন।

একজন পুরুষ প্রতি সেকেণ্ডে ১৫০০ স্পার্ম তৈরী করে, গড়ে দৈনিক ৪ থেকে ৬ কোটি (উর্দ্ধে ১৮০ কোটি অব্ধি) শুক্রাণু বাহিনীর জন্ম হয়। কিন্তু প্রতিটি স্পার্ম সেল ম্যাচিউর হতে ২ থেকে ৩ মাসের মতো সময় লাগে। গুগলমামা জানালো, প্রতি ইজাকুলেটে ৮ থেকে ৩০ কোটি স্পার্ম থাকে (৪-৬ কোটি/মিলিলিটার)। আবার এই কোটি কোটি আমশুক্রাণুদের ৯০+%ই ডিফেক্টিভ - এরা সাঁতারে নেমেই পটল তুলবে। আর যে ১০% থাকে, তাদের মধ্যে আবার পুং Y ক্রমোযম-ওয়ালাগুলো তুলনামূলকভাবে দুর্বল থাকে, ফিমেল X ক্রমযোম-ওয়ালা স্পার্মগুলো অধিকতর শক্তিশালী হয় (কারণ প্রকৃতির কাছে স্ত্রীলিঙ্গ বেশি গুরুত্বপূর্ণ)।

নারীদের ক্ষেত্রে পৃপেইড সিস্টেম। জন্মের আগে ৬০-৭০ লক্ষ ডিম্বাণু থাকে, জন্মের পরে অধিকাংশ নষ্ট হয়ে গিয়ে ১০ লাখের মতো অবশিষ্ট থাকে। যতদিনে সাবালিকা হয়, তখন বড়জোর লাখ তিনেকের মতো ডিম্বাণু অবশিষ্ট থাকে। আর এদের মধ্যে মাত্র ৩০০ থেকে ৪০০টা ডিম্বাণু রিলিজ হবে নারীর লাইফটাইমে - প্রতি মাসে একটা করে টাইমড রিলিজ হবে। ওই কয়েক শতখানা থেকেই যা করা যায় আর কি...  neutral

অথচ গাদাগাদা সিস্টেম মিস্টেম, অরগ্যান-ফরগ্যান, ইকোয়েশন-মিকোয়েশন, ক্যালকুলেশন-ম্যালকুলেশন এ্যাতো কিছু করার পরেও সাক্সেস রেট অতি, অতি ক্ষুদ্র। ট্রিলিয়ন ট্রিলিয়ন স্পার্ম, লিটারের পর লিটার সিমেন, লক্ষ লক্ষ ওভাম - ৯৯.৯৯৯৯৯৯%ই বেহুদা ধ্বংস হয়ে যায়।

যাকগে, অত্যন্ত খরুচে হলেও যৌণ প্রজননের দ্বারা পরবর্তী জেনারেশনে কিছু ফিটনেস বেনেফিট পাওয়া যেতে পারে। পিতা ও মাতার ডিএনএ কম্বিনেশন করিয়ে নেক্সট জেনারেশনে উপকার (আবার অনেক সময় অপকারও) পাওয়া যায় - এ কারণেই এই প্রজনন স্ট্র্যাটেজীটা পৃথিবীতে টিকে আছে।

উদাসীন লিখেছেন:

ইসলামী জান্নাতের ধারণাটা একটা ত্রূটিপূর্ণ ব্যাপার। পক্ষপাতদুষ্ট। কামুক নর দিয়ে রচিত হলে অমনই হবে, এ আর আশ্চর্য কী!

কাম, রিপু, লালসা - এগুলো means to an end মাত্র... আল্টিমেট উদ্দেশ্য হলোঃ ভার্টিকালী জীন ট্রান্সফার করা, এক জেনারেশন থেকে পরবর্তী জেনারেশনে।

তা, জান্নাতে বংশ বৃদ্ধির কোনো ব্যাপার স্যাপার আছে নাকি?  hehe ওইখানে ম্যাটারনীটি হাসপাতালের সুযোগ সুবিধা কেমন? অবস্টেট্রিশিয়ানরা কি জ্বীন না গেলমান প্রজাতীর? নূরানী ডেলিভারীর প্যাকেজ প্রাইস, ডিসকাউণ্ট সুবিধা কত এসব ব্যাপারে জান্নাতী ভাইয়েরা আগে থেকেই খোঁজখবর নিয়ে যাইয়েন... দুনিয়ায় এক বউ নিয়েই পারা যায় না, আবার সেভেন্ঠি ঠুউউউউউউ!  dontsee  dontsee  dontsee

Calm... like a bomb.

১৪

Re: কেমন হবে জান্নাত? দেখে নিন জান্নাতের ফিচারসমূহ

@ইনভারব্রাস ভাই, জান্নাতে আপনার চান্স নাই মনে হয় hehe দোজখে ট্রাই করেন। আমিও ভাবছি দোজখটাকে সহনীয় কীভাবে করা যায়  kidding

কিছু বাধা অ-পেরোনোই থাক
তৃষ্ণা হয়ে থাক কান্না-গভীর ঘুমে মাখা।

উদাসীন'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত