টপিকঃ প্রয়োজন সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন ও ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ

বর্তমান বাংলাদেশের এই ভয়াবহ সময়ে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ রুখতে প্রয়োজন দেশের সকল জনগণের সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন ও ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তোলা। সরকার সেই লক্ষেই কাজ করছে। সরকার দেশের জনগন সহ সকল  নিরাপত্তা বাহিনীর প্রত্যেক সদস্যকে সন্ত্রাস এবং জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যেতে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারে দক্ষতা অর্জন করতে সকল কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন। ধর্মকে কোনমতেই অসম্মানিত করা যাবে না। যাদের কারণে এগুলো হচ্ছে, অবশ্যই তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। এতে কোন সন্দেহ নেই। বর্তমানে ঘটে যাওয়া যে-সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদের ক্ষেত্রে প্রযুক্তির ব্যবহার বেড়ে যাওয়ায় এর ধরন পাল্টেছে, বদলেছে। সেই লক্ষে সরকার প্রত্যেক বাহিনীকে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের সক্ষমতা অর্জনের পাশাপাশি এই অশুভ শক্তিকে দমনে প্রশিক্ষণ গ্রহণের সকল ব্যাবস্থা নিচ্ছেন। ধর্মের দোহাই দিয়ে মেধাবী তরুণদের উগ্র জঙ্গীবাদে ঠেলে দেয়া হচ্ছে। জড়িতদের চিহ্নিত করে এর মূলোৎপাটন করা হচ্ছে। জনগণকে সঙ্গে নিয়েই দেশ থেকে সকল সন্ত্রাস-জঙ্গীবাদের দমন করবে সরকার আর সেই লক্ষেই কাজ করছে।

Re: প্রয়োজন সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন ও ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ

কেডা কইছে ঐক্য নেই ঐক্য তো আছেই ১৪ দল আর এরশাদ মিলে গত সিজনে মহাজোটের সরকার গঠন করেছে আর এবারও সরকার গঠন করেছেন,

প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা বিষয়ক উপদেষ্টা  তারিক আহমেদ সিদ্দিক বলেছেন, দেশে বিভিন্ন সময় অগণতান্ত্রিক শাসনের কারণে জাতীয় নিরাপত্তার ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। তাই এখন আমরা সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের প্রভাবের বিষয়টি লক্ষ করছি।http://www.sheershanewsbd.com/2016/07/20/135554