টপিকঃ এগিয়ে চলছে পদ্মা সেতুর কাজ

পদ্মা সেতুর কাজ দ্রুত এগিয়ে নিতে শিফটওয়াইজ কাজ চলছে এবং ড্রেজিংসহ নদীশাসনের কাজও দ্রুত এগোচ্ছে। নদীশাসনের কাজের দায়িত্বে রয়েছে চীনের সিনোহাইড্রো করপোরেশন। দেশের গুরুত্বপূর্ণ এ সেতুর মূল নির্মাণকাজের জন্য চীনের চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কনস্ট্রাকশন কোম্পানিকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া পদ্মা সেতুর কাজ তদারকির জন্য পরামর্শক প্রতিষ্ঠান হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে দক্ষিণ কোরিয়ার কোরিয়ান এক্সপ্রেসওয়ে ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে। মুন্সীগঞ্জের মাওয়া পয়েন্টে পদ্মা সেতুর মূল কাজের অংশ হিসেবে ৭ নম্বর পিলারের পাইলিং উদ্বোধনের পর থেকেই রাত-দিন পুরোদমে কাজ চলছে। ওই দিন আড়াই হাজার টন ওজনের জার্মানির হাইড্রোলিক হ্যামার দিয়ে শুরু হয় এ সেতুর ৭ নম্বর পিলারের পাইলিং কাজ। ইতিমধ্যেই পদ্মা সেতু প্রকল্পের প্রায় ২৯ শতাংশ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। সেতুর দুই পাশের সংযোগ সড়ক নির্মাণকাজের ৭৫ শতাংশ শেষ হয়েছে। এসব কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে আন্তর্জাতিকমানের বসুন্ধরা সিমেন্ট। পদ্মা সেতু বাস্তবায়ন হলে জাতীয় অর্থনীতিতে অবদানের পাশাপাশি আঞ্চলিক বাণিজ্য সম্প্রসারণেও বিশেষ ভূমিকা রাখবে। বিনিয়োগকারী ও পর্যটকদের জন্য দৃষ্টিনন্দন হবে পদ্মা সেতু প্রকল্প। এ প্রকল্পের কারণে স্থানীয় উন্নয়নের পাশাপাশি কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি হবে। পদ্মা সেতুকে কেন্দ্র করে রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশের সঙ্গে সড়ক নেটওয়ার্ক তৈরি হবে দক্ষিণবঙ্গের। পদ্মা সেতু এখন স্বপ্নের খোলস থেকে বেরিয়ে কাগজ-কলমের বন্দীদশা কাটিয়ে রূপ নিয়েছে দৃশ্যমান বাস্তবতায়। এ সেতুটি পৃথিবীর অন্যতম একটি সেতু হিসেবেই দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার সঙ্গে স্থাপন করতে যাচ্ছে সড়ক ও রেল যোগাযোগ। কনক্রিট আর স্টিলের নিখুঁত গাঁথুনিতে তৈরি হতে যাচ্ছে বিশ্বের অতুলনীয় এ দোতলা সেতু। হাজার হাজার শ্রমিক আর প্রকৌশলীর অক্লান্ত পরিশ্রমে ধাপে ধাপে এগিয়ে যাচ্ছে সেতুর মূল নির্মাণকাজ।

Re: এগিয়ে চলছে পদ্মা সেতুর কাজ

চামে চিকনে বসুন্ধরা সিমেন্টের গুনগান  thinking

  “যাবৎ জীবেৎ সুখং জীবেৎ, ঋণং কৃত্ত্বা ঘৃতং পিবেৎ যদ্দিন বাচো সুখে বাচো, ঋণ কইরা হইলেও ঘি খাও.

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন রুপকথা (১২-০১-২০১৬ ১৫:৪৬)

Re: এগিয়ে চলছে পদ্মা সেতুর কাজ

শুরুর আগেই খরচ বাড়লো মাত্র ৮০০০ কোটি টাকা !!! সেতুর মূলকাজ শুরু হওয়ার আগেই নতুন বাজেট এ্যসেসমেন্ট ।

http://www.prothom-alo.com/bangladesh/article/731626/ প্রথম আলো সংবাদটির পাঠক মতামত গুলো্ দেখুন

পদ্মা সেতুর ব্যয় আরও আট হাজার কোটি টাকা বাড়ল। দ্বিতীয়বার সংশোধন করে এ প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ২৮ হাজার ৭৯৩ কোটি টাকা।

আজ মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় এ প্রকল্পটির সংশোধিত ব্যয় অনুমোদন করা হয়েছে। শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলনকক্ষে অনুষ্ঠিত এ সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপারসন শেখ হাসিনা।

২০১১ সালের ১১ জানুয়ারি এ প্রকল্পের ব্যয় প্রথম সংশোধন করা হয়েছিল। তখন ব্যয় ধরা হয়েছিল ২০ হাজার ৫০৭ কোটি টাকা। আর ২০০৭ সালের ২৮ আগস্ট মূল প্রকল্পটি অনুমোদনের সময় এর ব্যয় ধরা হয়েছিল মাত্র ১০ হাজার ১৬১ কোটি টাকা।

দ্বিতীয়বার সংশোধনে যে ব্যয় বেড়েছে, এর মধ্যে পাঁচ হাজার কোটি টাকার ব্যয়ই বেড়েছে নদীশাসনে। নদীশাসনে এখন মোট ব্যয় হবে ৯ হাজার ৪০০ কোটি টাকা। এ ছাড়া দুই পাড়ের সংযোগ সড়ক, জমি অধিগ্রহণ, পুনর্বাসনে বাকি ব্যয় বেড়েছে। তবে মূল সেতু নির্মাণে কোনো ব্যয় বাড়েনি।
এ বিষয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সাংবাদিকদের বলেন, আগে বিস্তারিত সম্ভাব্যতা সমীক্ষা ও প্রকৌশল প্রাক্কলন ছিল না। ২০১৪ সালে এটি করা হয়। তাই এখন সমীক্ষা ও প্রকৌশল প্রাক্কলনের ভিত্তিতে নতুন করে ব্যয় বেড়েছে।