টপিকঃ যুগান্তকারী সেই সাফল্য

বিনা মূল্যের বই, উপবৃত্তি, স্কুল ফিডিং প্রভৃতির সুফল পাচ্ছি আমরা। প্রাক-প্রাথমিক, প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ের সব শিক্ষার্থীই বিনা মূল্যে বই পায়। এ তিন ধাপে শিক্ষার্থীর সংখ্যা চার কোটির ওপরে। বছরের প্রথম দিনেই তাদের হাতে তুলে দেওয়া হয় প্রায় ৩৩ কোটি পাঠ্য বই। সাত বছর ধরে কাজটি করছে সরকার।  বছরের প্রথম দিনেই শিক্ষার্থীরা হাতে বই পাওয়ায় শিক্ষার প্রতি তাদের আগ্রহ বেড়েছে। স্বাভাবিকভাবে মেয়েদের আগ্রহও বেড়েছে। শুধু বই সরবরাহ নয়, সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার (এমডিজি) শিক্ষা-সংক্রান্ত সব লক্ষ্যই অর্জন করেছে বাংলাদেশ। এমডিজি অনুযায়ী ২০১৫ সালের মধ্যে প্রাথমিক শিক্ষায় ছেলে-মেয়ে সমতা অর্জনের কথা ছিল। সেই লক্ষ্য অনেক আগেই অর্জিত হয়েছে।  শতভাগ শিশুকে স্কুলে নিয়ে আসা বড় চ্যালেঞ্জ ছিল। আমরা আজ সে সফলতা পেয়েছি। প্রাথমিক স্তরে মেয়েদের অংশগ্রহণের হার ৫১ শতাংশ ও ছেলেদের ৪৯ শতাংশ। মাধ্যমিকে মেয়ে ৫৩ শতাংশ ও ছেলে ৪৭ শতাংশ। আগামী ছয়-সাত বছরের মধ্যে উচ্চশিক্ষায়ও ছেলে-মেয়ে সমতা অর্জিত হবে। শিক্ষা খাতের বিপ্লবের কারণেই এমডিজির লক্ষ্য পূরণে সরকারকে বেগ পেতে হয়নি। ২০০৯ সালে ৯ শতাংশ শিশু বিদ্যালয়ে যেত না। যারা যেত তাদের ৪৮ শতাংশই পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষা শেষ করার আগেই ঝরে যেত। এখন প্রায় শতভাগ শিশুকে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আনা সম্ভব হয়েছে। কারিগরি শিক্ষায়ও যথেষ্ট অগ্রগতি হয়েছে। বলতে পারি, শিক্ষায় গত কয়েক বছরে যুগান্তকারী পরিবর্তন হয়েছে।

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন রুপকথা (১০-০১-২০১৬ ১১:৩৩)

Re: যুগান্তকারী সেই সাফল্য

সেই ৮০ দশক থেকেই আমরা সরকারী প্রাথমিক স্কুলের বই বিনামূল্যে পেয়ে আসছি,
কিন্ত এখন কি বিনামূল্যে বই সত্যই পাওয়া যায়? - এখানে দেখুন http://www.thedailysangbad.com/first-pa … 1/03/42670

তার পর গুগুলে সার্স দিয়ে দেখুন
https://www.google.com.bd/?gws_rd=cr,ss … %E0%A6%87+