টপিকঃ রাষ্ট্রের নিকট অবহেলিত আদিবাসী নারীর প্রগতি, উন্নয়ন ও মানবাধিকার।

বাংলাদেশে বাঙালি জাতীয়তাবাদের
যেভাবে অপচচা হচ্ছে তাতে মনে হয়
অচিরেই এটি Nazi ফ্যাসিজমে রূপ নিবে।
দেশের এক দশমাংশ ভূমিতে বাঙালিদের
আগমনের কয়েক শতাব্দী আগেই
আদিবাসী জনগোষ্ঠী নিজেদের সমাজ,
কৃষ্টি, ঐতিহ্য নিয়ে জীবনযাপন করে
আসছিল। ১৯৭২ সালে শেখ মুজিবের
একতরফা চাপিয়ে দেওয়া বক্তব্যে
[ "তোমরা সবাই বাঙালি হয়ে যাও" - শেখ
মুজিবের উক্তি পাহাড়ি প্রতিনিধিদলের
প্রতি ] আমাদের জাতিসত্বাকে
অস্বীকার করা হলো। ১৯৭৫ সালে
রাজনৈতিক পটপরিবর্তনের পরে
জেনারেল জিয়া নদীভাঙন, চর ভাঙনের
শিকার দরিদ্র বাঙালি পরিবারগুলোকে
গুচ্ছগ্রাম বানিয়ে স্থায়ী ভাবে আশ্রয়
দিয়ে পাহাড়ি আদিবাসীদেরই সংখ্যালঘু
জাতিসত্বায় পরিণত করবার প্রচেষ্টা শুরু
করেন। স্বৈরশাসক এরশাদ এটাকে আরও
পরিকল্পিত উপায়ে বাস্তবায়ন করতে
থাকেন তার দীঘ সাড়ে নয় বছরের অবৈধ
ক্ষমতা দখলের আঁকড়ে ধরে থাকবার
আমলে।
[চলবে... ]



কপিরাইট © পারোমি চাকমা মুনমুন।
স্ববসত্ত্ব লেখিকার।
বিনা অনুমতিতে এই ব্লগের কোন কনটেন্ট
যেকোন প্রিন্ট মিডিয়া / গণমাধ্যমে
প্রচার, কপি + পেস্ট করা আইনত দন্ডনীয়।

আই ডোন্ট নো আমি কি চাই। নিজেও জানি না। কেউ আমাকে নিয়ে ভাববেন না। কোন লাভ হবে না।

http://moonmunchakma.blogspot.com