সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন শামীম (১০-১০-২০১৩ ০৯:০২)

টপিকঃ স্বাগতম জানানো নিয়ে ব্যক্তিগত সমস্যা

হেলু বটগাছ, কিছু মনে না করলে কয়েকটা কথা বলি .... .... ....

কিছু কিছু শব্দ মনে করলেই বিভিন্ন কারণে হাসি পায়, স্বাগতম সেরকম একটা শব্দ -- কারণটা বলছি। তবে তার আগে রোলকলের সময়ের সমস্যাটা বলি।

কারো নামের সাথে হাসান (যেমন তারেক হাসান, মেহেদী হাসান ইত্যাদি) থাকলেই সেই হাসান পড়ার সময় হাসি পায় -- কারণ মনে হয় হাসান = যে হাসায়  big_smile (যে গান গায় সে যেমন গাঁয়েন সেরকম, যে জোক বলে বা কাতুকুতু দিয়ে হাসায় সে হাসান)। প্রতিবার রোলকলের সময়ে অতিকষ্টে নিজেকে সংবরণ করি।  donttell

স্বাগতম বলতে গেলেই জিভের ডগায় অন্য রিপ্লেসমেন্টগুলো চলে আসে। যেমন: অনেক জায়গাতেই স কে হ দিয়ে রিপ্লেস করে -- শালা কে হালা, সম্বন্ধীকে হম্বন্ধি, শাক কে ... আচ্ছা থাক, এটা না বলি; এই রকম আরকি। একবার ভানু তো বলেই ফেললো "গান গাইতে তো আপত্তি নাই কিন্তু এখানে যে শারমোনিয়াম নাই"; শারমোনিয়ামের শানে নযুল বলতে শ কে হ নাকি হ কে শ দিয়ে রিপ্লেস করার ট্রেন্ডটার সমস্যা বলেছিলো। তাই যখনই স্বাগতম লিখি/বলি স টাকে হ দিয়ে রিপ্লেস করার চিন্তা অতি কষ্টে দমন করি।  ghusi

অবশ্য এই ধরণের রিপ্লেসমেন্টের কথা সর্বপ্রথম মাথায় এসেছিলো এক ভাইয়ের বাসায় বেড়াতে গিয়ে (জাপানে ছিলাম)। উনি টয়লেটের দরজার উপরে বাংলায় স্বাগতম লেখা একটা স্টিকার নাকি ওয়ালপিস ঝুলিয়ে রেখেছিলেন। তখনই মাথায় এসেছিলো এখানে আসলে স্বাগতমের বদলে স --> হ ঐটা লিখলে এপ্রোপ্রিয়েট হত।  hehe

এছাড়া আরেকটা বিরাট সমস্যা হয় স্বাগতম নিয়ে। সেটা হল স কে ছ দিয়ে রিপ্লেসমেন্টের সমস্যা। ক্লাসে "ইয়েচ ছার" বলা সহপাঠি ছিল, এখন ছাত্র আছে। অবলীলায় তাঁরা স কে ছ দিয়ে রিপ্লেস করে। প্রতিবার কাউকে স্বাগতম জানানোর সময়ে মনে হয় দেব নাকি স্ব এর বদলে ছ লিখে।  ghusi

শামীম'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: স্বাগতম জানানো নিয়ে ব্যক্তিগত সমস্যা

lol lol
রাগ করবেন না  shame আপনার লেখা পড়ে এ ইমোটা ছাড়া আর কিছু লিখতে ইচ্ছে করল না।

Re: স্বাগতম জানানো নিয়ে ব্যক্তিগত সমস্যা

ভাল বুদ্ধি দিলেন তো hehe

Seen it all, done it all, can't remember most of it.

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: স্বাগতম জানানো নিয়ে ব্যক্তিগত সমস্যা

শামীম লিখেছেন:

সেটা হল স কে ছ দিয়ে রিপ্লেসমেন্টের সমস্যা। ক্লাসে "ইয়েচ ছার" বলা সহপাঠি ছিল, এখন ছাত্র আছে। অবলীলায় তাঁরা স কে ছ দিয়ে রিপ্লেস করে। প্রতিবার কাউকে স্বাগতম জানানোর সময়ে মনে হয় দেব নাকি স্ব এর বদলে ছ লিখে।

http://i.imgur.com/3cs7yDd.jpg

Calm... like a bomb.

Re: স্বাগতম জানানো নিয়ে ব্যক্তিগত সমস্যা

ব্রাশু ভাই দেখি আজকাল ছি:নেমা রিলেটেড ছবি পোস্টান  tongue

Rhythm - Motivation Myself Psychedelic Thoughts

লেখাটি CC by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: স্বাগতম জানানো নিয়ে ব্যক্তিগত সমস্যা

হিহিহিহিহি  lol2 lol2 ছাগুতম

জাযাল্লাহু আন্না মুহাম্মাদান মাহুয়া আহলুহু......
এই মেঘ এই রোদ্দুর

Re: স্বাগতম জানানো নিয়ে ব্যক্তিগত সমস্যা

lol2 মজা পেলাম  tongue

  Tenacity - Focus - Discipline - Repetition

   Sabbir's Blog 

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: স্বাগতম জানানো নিয়ে ব্যক্তিগত সমস্যা

ভাইজান এটা তো এখন দেখি জাতীয় সমস্যা ! = clap
শোল মাছের রিপ্লেস করা কি উচিত হবে ?

জানি আছো হাত-ছোঁয়া নাগালে
তবুও কী দুর্লঙ্ঘ দূরে!

লেখাটি CC by-nc-nd 3. এর অধীনে প্রকাশিত

Re: স্বাগতম জানানো নিয়ে ব্যক্তিগত সমস্যা

জামিল মণ্ডল লিখেছেন:

শোল মাছের রিপ্লেস করা কি উচিত হবে ?

মাছ বাজারে হ দিয়ে কিছু কথাবার্তা বলে আপনি যে শ কে হ দিয়ে রিপ্লেস করেন সেটা বুঝিয়ে তারপর শোল মাছকে সেভাবে দাম করতে চেষ্টা করে দেখতে পারেন। এক্সপেরিয়েন্সটা শেয়ার করতে ভুলবেন না যেন  tongue

শামীম'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

১০

Re: স্বাগতম জানানো নিয়ে ব্যক্তিগত সমস্যা

angry angry angry (এই ইমো ছাড়া বেশি রাগের আর ইমো পাইলাম না)........আমিও একজন ......হাসান.........বাট কাউরেই হাসাই না......।

টিপসই দিবার চাই....স্বাক্ষর দিতে পারিনা......

১১ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন শামীম (১০-১০-২০১৩ ১৩:৩৬)

Re: স্বাগতম জানানো নিয়ে ব্যক্তিগত সমস্যা

মেহেদী হাসান লিখেছেন:

angry angry angry (এই ইমো ছাড়া বেশি রাগের আর ইমো পাইলাম না)........আমিও একজন ......হাসান.........বাট কাউরেই হাসাই না......।

নামের স্বার্থকতা নাই  wink [মাখাএন]

তবে আপনার সুবিধা হল সিরিয়াস সিচুয়েশনে বাজে জোক করার পর কেউ মাইন্ড খাইলে বলতে পারবেন --- "কিছু মনে নিয়েন না, আমার নামের এই অংশটাই যত গণ্ডগোলের মূল"  kidding

তবে সমস্যাটা আমার ব্যক্তিগত। অন্যদের এ জন্য কোনরূপ পরিবর্তন করতে হবে এমন কোনো কথা নাই।

(যাই পিঠে বস্তা বাইন্ধা আসি কখন আবার তারেক হাসানও এসে যোগ দেয় ... ... ... )

নামে কী বা এসে যায় !


নিজের নাম নিয়েই একটা ছোট অনুভুতি লেখব বলে মনস্থির করলাম। যদিও এ ধরণের তুচ্ছ ব্যাপারে লেখা আদৌ উচিৎ হচ্ছে কি না সেটার ব্যাপারে মনে একটু সন্দেহ রয়েই গেল।

জগৎ-সংসারে এ্যাত বিষয় থাকতে নিজের নাম নিয়ে কেন পড়লাম? সেটা হয়ত আমিত্বকে সন্তুষ্ট করার জন্য, তবে লেখার মশলা মনে জমা হয়ে ছিল অনেক দিন আগে থেকেই, আগের লেখায় হাসান মোরশেদ ভাইয়ের একটা মন্তব্য দেখে ইচ্ছাটা মাথা চাড়া দিয়ে উঠল।

যা হোক, আমার নামটা বেশ ... মানে বেশ ভালই লম্বা। দৈর্ঘ্যের কারণেই নামে কিছু ব্যাপার এসে যায় আমার নিত্যজীবনে।

ছোট বেলা থেকেই বিড়ম্বনার শুরু। সবার খাতার নাম লেখার জায়গায় সুন্দর নাম এটে যায়... আমারটা হয় না। তারপর, পরীক্ষার ফর্ম পূরণ, বেতন বই, ব্যাংকের জমা বই সমস্ত জায়গাতেই নিজের নামের স্থান সংকুলান করতে ন্যারো ফন্টে হাতের লেখা শিখতে হয়েছে। টোফেল পরীক্ষা দেয়ার সময় তো কানের পাশ দিয়ে গুলি গেল, আর একটা অক্ষর বেশী হলেই ফর্মে নাম আটতো না। পাসপোর্টের নামের ঘরেও বেচারা অফিসার এক লাইনে নাম লিখতে পারে নাই। আর স্কুলের ক্লাসের স্যাররা আমাকে নাম ধরে ডাকতে গেলেই কেমন জানি ঘুম ঘুম হয়ে যেত তাঁদের কন্ঠস্বর।

আমার গবেষণার কাজে, প্রফেসরের পয়সায় প্রায়ই দেশে পাঠায়, নমুনা সংগ্রহ করতে হয় -- বিমানে চড়া/নামা আর ইমিগ্রেশনের ফর্ম পূরণ করতে আমার সবসময়ই সহযাত্রীদের চেয়ে বেশি সময় লাগে।

যা হোক সবচেয়ে বড় ফাপরে পড়েছিলাম জাপানে এসে। এখানে স্বাক্ষর করার তেমন চল নেই। সকলেই তার বদলে ছোট্ট সীল ব্যবহার করে। সীলগুলো গোলাকার বা চারকোনা। গোলাকার সীলগুলো মোটাসোটা একটা কলমের মত ৩ /৪ সে.মি. লম্বা এক টুকরা কাঠ। তাঁর নিচের মাথায় নামের কাঞ্জি বা জাপানী আকিবুকিমার্কা অক্ষরে নাম লেখা থাকে।

কাহিনী হলো, আমাকে দেশ থেকেই পরিচিতিমূলক সমস্ত মেইলে আমার দেশের প্রফেসর শামীম নামেই পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলেন। আমার নতুন জাপানী প্রফেসর আমার লম্বা নাম জানলেও সবসময় সুবিধাজনক ছোট শামীম নামে ডাকতেন। জাপানে আসার পরপরই ব্যাংকে এ্যাকাউন্ট খোলার জন্য সেই সীল (হাংকো/ইনকান বলে) লাগবে। প্রফেসর আমাকে সহ গিয়ে অর্ডার দিলেন ... জাপানী অক্ষরে শামীম। ওটা দিয়ে এ্যাকাউন্ট খুললাম। এরপর গাড়ী কেনার সময়ে জানা গেল এ জন্য সীলটাকে সিটি অফিসে নিবন্ধিত করতে হবে। কিন্তু ওখানে বলে এটা তো তোমার পাসপোর্টের নামের অংশ না এটা করা যাবে না। তখন ওখানকার অফিসার ফোনে আমার প্রফেসরকে না পেয়ে একটা চিঠি লিখে দিলেন।

চিঠি পড়ে প্রফেসর বললেন তোমার মূল নাম এ্যাত বড় যে এটা দিয়ে সাইজমত সীল বানানো অসম্ভব, তাই শেষাংশ জামান দিয়ে সীল বানাও। ওটার অর্ডার দিলাম -- কয়দিন পরে ওটা নিয়ে গেলাম সিটি অফিসে .... আবার বলে হবে না। তোমার নাম ভেঙ্গে কোন অংশ দিয়ে হবে না। তাই শেষ পর্যন্ত সীল হল ছোটখাটো মিয়া।

ওহহো.. আমার নামটাই তো দেয়া হল না: মিয়া মোহাম্মদ হুসাইনুজ্জামান (Miah Mohammad Hussainuzzaman)।

যশোরের প্রজেক্ট অফিসে আমাকে বলে মিয়াজাকির মিয়া ভাই।

তাই বলি, নামে এসে যায়। আমার পরবর্তী বংশধরদেরকে এ ধরনের ভোগান্তির হাত থেকে রক্ষা করতে ঠিক করেছি খুব ছোটখাট নাম রাখবো ওদের।

এ্য্যতক্ষণ শুধু অসুবিধাই বললাম। বড্ড একপেশে হয়ে গেল ব্যাপারটা। তাই বড় নামের একটা সুবিধার কথা বলে শেষ করি: এ্যাত বড় নাম সাধারণত হয় না জন্য একনামে চেনা যায়। আমার নামের মূল অংশ দিয়ে কোন ইমেইল বা অন্যকিছু রেজি: /নিবন্ধন করতে গেলে কখনই অসুবিধা হয় না। আর, কখনো যদি এই নাম দিয়ে গুগল করেন, নিশ্চিতভাবেই আমাকে খুঁজে দেবে।

১২

Re: স্বাগতম জানানো নিয়ে ব্যক্তিগত সমস্যা

জামিল মণ্ডল লিখেছেন:

শোল মাছের রিপ্লেস করা কি উচিত হবে ?

আমার এখানের জেলেরা এখনো শোল মাছকে হোল মাছ বলে । smile

১৩

Re: স্বাগতম জানানো নিয়ে ব্যক্তিগত সমস্যা

ইলিয়াস লিখেছেন:
জামিল মণ্ডল লিখেছেন:

শোল মাছের রিপ্লেস করা কি উচিত হবে ?

আমার এখানের জেলেরা এখনো শোল মাছকে হোল মাছ বলে । smile

big_smile । ব্যাপার না, আমরাও তো রেস্টুরেন্টে গিয়ে গরম গরম পুরী খাইতে চাই (সিলেট বাদে)।
এঁহ্!!
আরেকটু হইলেই আমার দামী চেয়ারটা, নাইলে কোমর ভাঙ্গতো।

শামীম'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

১৪

Re: স্বাগতম জানানো নিয়ে ব্যক্তিগত সমস্যা

হা হা হা। ভাল সমস্যায় পড়েছেন দেখি!

কিছু বাধা অ-পেরোনোই থাক
তৃষ্ণা হয়ে থাক কান্না-গভীর ঘুমে মাখা।

উদাসীন'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

১৫

Re: স্বাগতম জানানো নিয়ে ব্যক্তিগত সমস্যা

ইলিয়াস লিখেছেন:

আমার এখানের জেলেরা এখনো শোল মাছকে হোল মাছ বলে । smile

আপনাদের এখানে তাও ভাল কিছু বলে। আমাদের এখানে বলে হইল মাছ  big_smile

কারো আশা নষ্ট করবেন না, হয়তো এই আশাই তার শেষ সম্বল।

১৬

Re: স্বাগতম জানানো নিয়ে ব্যক্তিগত সমস্যা

পুরাতন পোস্ট রিভিউ করলাম। মনে কিছু নিয়েন না।  blushing

পরিবেশ প্রকৌশলী'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত