টপিকঃ রূপকল্প ২০২১ বাস্তবায়নে শতভাগ সাফল্যের পথে সরকার

বিদ্যুত নিয়ে কম আলোচনা-সমালোচনা হয়নি। জোট সরকার বিদ্যুত খাতে নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে দুর্নীতির চরম পরাকাষ্ঠা দেখিয়েছে। ‘খাম্বা দুর্নীতি’ আজও সাধারণ মানুষের মুখে মুখে। মানুষের জন্য অপরিহার্য বিদ্যুতের ঘাটতি যে অচিরেই পূরণের পথে যাচ্ছে সে কথা বলার অপেক্ষা রাখে না। নির্বাচনী অঙ্গীকারের ‘রূপকল্প ২০২১’-এর অন্যতম ঘোষণা সবার জন্য বিদ্যুত সুবিধা নিশ্চিত করার পথে আরেক ধাপ এগিয়ে যাচ্ছে দেশ। বিদ্যুত উৎপাদন কেন্দ্রের ক্ষেত্রে সেঞ্চুরি পূর্ণ করেছে  দেশ। বিদ্যুত কেন্দ্রের সংখ্যা এখন এক শ’। শততম উৎপাদন কেন্দ্রই বলে দেয় সরকারের উন্নয়নযাত্রা রয়েছে অব্যাহত। আগে যেখানে ৬০ শতাংশের বেশি মানুষ বিদ্যুত সুবিধার বাইরে ছিল এখন তা কমে দাঁড়িয়েছে ৪০ শতাংশের ওপরে, যা সরকারের অব্যাহত উন্নয়ন পরিকল্পনার সুফল। শতভাগ মানুষকে বিদ্যুত সুবিধার আওতায় আনা এখন সময়ের ব্যাপার। মানুষকে এ সুবিধার আওতায় আনার পরিকল্পনায় শতভাগ সাফল্যের পথে সরকার। নানা প্রতিকূলতা পেরিয়ে এখন প্রায় সাড়ে ছয় হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুত উৎপাদন সম্ভব হচ্ছে। সরকারের যে পদক্ষেপ দৃশ্যমান হচ্ছে তাতে ২০২১ সালে ২০ হাজার মেগাওয়াট উৎপাদন পূরণ হবে বলে প্রত্যাশা করা যায়।এসবকে ছাপিয়ে সবচেয়ে আশার অফুরন্ত দিগন্ত উন্মোচন করেছে সৌরবিদ্যুত। অন্যদিকে আশার আলো জাগিয়েছে পারমাণবিক বিদ্যুত। রাশিয়ার সহায়তায় রূপপুরে পারমাণবিক বিদ্যুত উৎপাদন কেন্দ্রের অগ্রগতি লক্ষণীয়।

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন রুপকথা (১২-১০-২০১৫ ১৮:০২)

Re: রূপকল্প ২০২১ বাস্তবায়নে শতভাগ সাফল্যের পথে সরকার

আমার তো হাসতে হাসতে কাশীতে যক্ষা হয়ে যাবার মত অবস্থা , এই সব কথা বলে নিজে লজ্জা পাবেন না

এত কিছু না করে প্রতিটি ঘরে একটি করে জেনারেটর দিয়ে দিলেই তো আরো ভালো হত, গত ৫ বৎরে বিদ্যুতের দাম বাড়াতে বাড়াতে মানুষের এখন এর খরচ জেনারেটারের চেয়েও বেশী পড়ে, অথচ আগের সরকার বিদ্যুতের মূল্য জনগন থেকে কত করে নিয়ে আর এখন কত করে নেয়া হচ্ছে?  dontsee, আগে আমরা বিদ্যুতের বিল দিতাম ২০০ টাকা আর এখন ১২০০ টাকা - এভাবে চললে ২০২১ সালে বিধ্যুতের বিল দিতে হবে ১০০০০ টাকা......

আর খাম্বার কথা বলছেন, তবে উত্তরার নতুন ১৫ নম্বর সেক্টরে যান দেখবেন হাজার হাজার খাম্বা কিন্ত বিদ্যুতের তারও নেই, এইসব দেখলে জ্ঞানের পরিধীটা বাড়তে পারে