সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন ইলিয়াস (০৬-০৭-২০১৫ ১২:২৯)

টপিকঃ মাওয়া ভ্রমণ

মাওয়া ভ্রমণ
        ঢাকার যেকোন স্থান থেকে যাত্রাবাড়ী পৌছে ফুটঅভার ব্রীজের দক্ষিণ দিকের পোস্তাগোলাগামী রাস্তা দিয়ে একটু সামনে এগুলেই পাওয়া যাবে মাওয়া বাসষ্ট্যান্ড। এখান থেকে প্রতি ৫ থেকে ১০ মিনিট অন্তর অন্তর বিভিন্ন পরিবহন কোম্পানির বাস ছেড়ে যায় মাওয়ার উদ্দেশ্যে। আনন্দ, ইঁলিশ, গুন-গুন ইত্যাদি পরিবহনে মাওয়া যেতে বাস ভাড়া লাগবে ৩৫ টাকা মাত্র (বর্তমানে কত জানা নেই) । ৩৫ টাকার বিনিময়ে প্রায় ৩৫ কি.মি. পারি দিয়ে মাওয়া ফেরী ঘাটে পৌছতে সময় লাগবে ঘন্টাখানেক।

https://c1.staticflickr.com/1/560/19128079170_244e906ece_b.jpg

নিশ্চিন্তে চড়ে বসুন যে কোন একটা বাসে। ইচ্ছে করলে সকাল কিংবা দুপুরে রওনা হয়ে বিকেলটা মাওয়ার পদ্মা পাড়ে কাটিয়ে সন্ধ্যার পরপরই ফিরে আসা যায় ঢাকাতে। যাত্রাবাড়ি ছাড়া গুলিস্থান থেকেও মাওয়ার সরাসরি বাস পাওয়া যায়। এখান থেকেও ভাড়া একই পরিমান লাগলেও সময় একটু বেশী লাগ।

https://c1.staticflickr.com/9/8875/17342580891_3b8b613dac_h.jpg

        বাস শহরের কোলাহল পার হয়ে কিছুটা পথ এগিয়ে গেলেই দেখা যাবে রাস্তার দুপাশে দিগন্ত বৃস্তিত ধূঁধূঁ সাদা বালির মাঠ। কিছুদিন আগেই এই বালির মাঠগুলি ছিলো সবুজ ধান খেত। বর্ষায় এই ধান খেত হয়ে যেত স্বচ্ছ জলের বিল। কিন্তু জমিখেঁকো কিছু কোম্পানির আবাসন প্রকল্পের চাপে আজ আর সেই বিলের চিহ্ন মাত্র নেই। আজও এই বালির মাঠের ঠাঁসবুনটের চাঁপ উপ্যো করে কিছু কিছু ফসলের মাঠ টিকে আছে ধুঁকতে ধুঁকতে। এখনো টিকে আছে কিছু গ্রাম বাংলার চিরায়ত প্রাকৃতিক পরিবেশ। বাসের জানলার পাশে বসে এই সব দেখতে দেখতেই পৌছে যাবেন মাওয়া ফেরিঘাট।

        বাস থেকে নামতেই রাস্তার পাশে দেখা যাবে অসংখ্য রেস্টুরেন্ট যারা ভাতের হোটেল নামেই বেশি পরিচিত। উপরে টিনের চালা আর তিনদিকে টিনের দেয়াল দেয়া এই সব রেস্টুরেন্ট দেখতে যেমনই মনে হোকনা কেন, এখানকার গরম ভাত আর গরম গরম ভাঁজা পদ্মার টাটকা ইঁলিশের স্বাদই আলাদা। পরিবেশটি যেমন আলাদা তেমনি এই ভোজনের আনন্দ আর স্বাদও আবশ্যই আলাদা।

https://c4.staticflickr.com/8/7791/17341067482_95d6bc7230_b.jpg

         মাওয়া ফেরিঘাটের উত্তর দিকে নদীর পাড়দিয়ে হাঁটতে হাঁটতে চলে যাওয়া যায় অনেক দূরে। নদীর পাড় দিয়ে হাঁটার সময় একপাশে থাকবে রূপালী পদ্মা আর অন্যপাশে থাকবে সবুজে ঘেঁড়া গ্রাম। ইচ্ছে করলেই ঢুকে পরা যায় গ্রামের ভেতরে। ছায়া সুনিভির গাছগাছালিতে ঢাকা চমৎকার একটি গ্রাম দেখে নেয়া যাবে ঘন্টাখানেক পাঁয়ে হেঁটেই। নিশ্চয়াতা দিয়ে বলতে পারি গ্রামকে গ্রাম হিসেবেই পাবেন এখানে। শহরের কোলাহল আর যান্ত্রিকতা মুক্ত এই গ্রাম অবশ্যই সবার ভালো লাগবে।

https://c1.staticflickr.com/9/8813/17155166558_d9768ec307_b.jpg

       দুপুরের পর থেকে সন্ধ্যার আগে পর্যন্ত নদীতে থাকবে সূর্যের রূপালী ঝিলিক। মৃদু বাতাসে নদীর জলে ছোট ছোট রূপালী ঢেউ ঝলকে দেয় চোখ। নদীর ঘাটে দেখা যাবে অসংখ্য স্পিডবোড। ইচ্ছে করলেই ১৫০টাকার বিনিময়ে ১৫-২০মিনিটে ¯স্পিডবোডে চড়ে পার হয়ে যাওয়া যায় নদী। ফেরী ঘাটে আরো দেখা যায় ফেরীর আনাগোনা আর তাতে করে গাড়ীদের নদী পারাপার। মন চাইলে এই ফেরিতেও চড়ে বসা যায়, তবে ফেরী ছেড়েদেবার আগে আগেই নেমে পরতে হবে।

https://c4.staticflickr.com/8/7689/17156731139_aa54a70a0a_b.jpg

       নদীপারের গ্রামের মানুষ আর ছোট ছেলে-মেয়েরা দুপুরে স্নান সেরে নেয় এই নদীরই বুকে। তাদের দেখলে নিজেরই ইচ্ছে করে নদীতে ঝাপিয়ে পরে তাদের সঙ্গী হয়ে যেতে। দেখা যাবে অসংখ্য জেলে নৌকো বাঁধা আছে পদ্মা পারে, হয়তো রাতের বেলা এই নৌকোই ছেড়ে যাবে রূপলী ইঁলিশ ধরতে। নদীতে দেখা যাবে ছোট্ট ছোট্ট নৌকা নিয়ে জেলেরা মাছ ধরছে।

https://c1.staticflickr.com/9/8856/17156721019_0c3252f1e6_b.jpg

দেখতে পাবেন আপনার সামনে দিয়েই নৌকো থেকে নামানো হচ্ছে সদ্য ধরে আনা পদ্মার হরেকরকম টাটকা মাছ আর সেই সাথে রূপালী ইঁলিশ। ইচ্ছে করলে একটু দামাদামি করে কিনে নিতে পারেন এই টাটকা মাছগুলী থেকে আপনার পছন্দমতো যে কোনো পারিমান।


         দুপুর পেরিয়ে বিকেল গড়িয়ে সূর্য যখন পাটে বসতে চলে তখন ম্লান সূর্যের সোনালী ছায়া পরে নদীর বুকে। চমৎকার সেই মূহুর্ত। নদীর জলে যেন তরল সোনা মিশিয়ে দিয়েছে প্রকৃতি। নদীর উপর দিয়ে একলা নিঃসঙ্গ কোনা বক বা এক ঝাঁক গাংচিল উড়ে যায় তার রাতের আশ্রয়ের দিকে।

https://c1.staticflickr.com/9/8880/17342578651_e70b854622_z.jpg
       
         এবার আমাদেরও ফেরার পালা। ফেরী ঘাটের কাছেই বাসষ্ট্যান্ড থেকে যেকোন বাসের টিকিট কেটে চড়ে বসুন বাসে। ঘন্টা খানেক পরে পৌছে যাবেন ঢাকা যাত্রাবাড়ি বা গুলিস্থান।

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

Re: মাওয়া ভ্রমণ

বরাবরের মতই ভাল লিখেছেন । আপনার লিখার হাতও ভাল । চালিয়ে যান ভায়া,ধন্যবাদ

Re: মাওয়া ভ্রমণ

ধন্যবাদ ভাই ধারাবাহিক ভাবে লিখার যাবার জন্য... smile

Re: মাওয়া ভ্রমণ

খুব সুন্দর। ধন্যবাদ ধারাবাহিকতা রক্ষা করার জন্য। আশা করি চালিয়ে যাবেন। আমাদেরকে ভ্রমনে উৎসাহিত করবেন ।

[img]http://i50.tinypic.com/2i6jclk.jpg[/img]

Re: মাওয়া ভ্রমণ

ইলিয়াস লিখেছেন:

আপনার লিখার হাতও ভাল ।

আমিও তাই মনেকরি

Re: মাওয়া ভ্রমণ

ভালো লেগেছে জেনে খুশি হলাম। মাওয়াতে বেড়াতে গিয়ে ভালো লেগে গিয়েছিলো যায়গাটিকে। তাই শেয়ার করলাম আপনাদের সাথে। ছবি গুলি কেমন লাগলো বললোনা কেউ।

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

Re: মাওয়া ভ্রমণ

qshohenq লিখেছেন:

ছবি গুলি কেমন লাগলো বললোনা কেউ।

ছবিগুলোও ভাল তুলেছেন । মানে সাবজেক্ট গুলো । হলোতো এবার  lol2 lol2 lol2 lol2

Re: মাওয়া ভ্রমণ

ইলিয়াস লিখেছেন:

ছবিগুলোও ভাল তুলেছেন ।

ছবি গুলাইতো এখন দেখা যাচ্ছে না!!  brokenheart আপডেট করে দেন।  dream

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

Re: মাওয়া ভ্রমণ

মরুভূমির জলদস্যু লিখেছেন:

আপডেট করে দেন। 

আপডেটেড smile

১০

Re: মাওয়া ভ্রমণ

পদ্মা কে তো দেখতে পুরাই সমুদ্র সমুদ্র লাগছে

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো

১১

Re: মাওয়া ভ্রমণ

RubaiyaNasreen(Mily) লিখেছেন:

পদ্মা কে তো দেখতে পুরাই সমুদ্র সমুদ্র লাগছে

এই ঈদের পর পর গিয়েছিলাম আবার আমার মেয়েকে নিয়ে, কিন্তু বৃষ্টি কাদা আর বাড়ী থেকে ফেরা মানুষের ঢলের কারণে অবস্থা বেগতিক দখে ফিরে এসেছিলাম না বেড়িয়েই। অবশ্য ফেরার সময় ৬০ টাকার ভাড়া ২০০ টাকা দিতে হয়েছিলো বাসে।

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।