সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন ইলিয়াস (২১-১০-২০১৫ ১৭:১৭)

টপিকঃ লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ভ্রমণ

১৯শে অক্টোবর ২০১৪ইং তারিখে সিলেটের একটা ফ্যামিলি-ফ্রেন্ড ভ্রমণের আয়োজন করেছিলাম। আমাদের গাড়ি ছাড়া হল ভোর ৫টা ৫০ মিনিটে। পথে তখনও কর্মব্যস্ততা শুরু হয়নি। পথের ধারের চিরচেনা গ্রামবাংলার আবহমান দৃশ্যাবলি দেখতে দেখতে আমরা এগিয়ে চলি।

“শ্রীমঙ্গলের পথে” চলতে চলতে আমরা যখন লাউয়াছড়া ন্যাশনাল পার্কে পৌছাই তখন ঘড়িতে সময় সকাল ১০টা ৪৫ মিনিট। লাউয়াছড়া ন্যাশনাল পার্কের প্রবেশ মূল্য জনপ্রতি ২০ টাকা, শিশুদের জন্য ১০ টাকা আর গাড়ি পার্কিং এর জন্য ২৫ টাকা। তাছাড়া গাইড নিতে চাইলে ২০০ থেকে ৬০০ টাকা পর্যন্ত তিন ক্যাটাগরির গাইড পাওয়া যায়। যেহেতু আমরা এখানে বেশি সময় থাকবো না তাছাড়া আমি এর আগেও একবার এসেছি তাই আমরা কোন গাইড নিলাম না। আমার পরামর্শ থাকবে আপনারাও কেউ গাইড নিবেন না। এই বনের ভেতরে বেরানোর জন্য গাইডের দরকার পরে না। ভেতরের তিনটি রাস্তার যেকোনো একটা রাস্তা ধরে আপনি পুরটা বাগান বেরিয়ে আসতে পারবেন।

যাইহোক টিকেট কেটে ভিতরে যাওয়ার সময় প্রবেশ দ্বারেরই দেখবেন আপনাকে সাদর নিমন্ত্রণ জানাচ্ছে পথের দুই ধারের বিশাল বড় বড় রক্তন গাছ। বড় বড় গাছগুলি দুপাশ থেকে এসে আপনার মাথার অনেক উপরে তৈরি করেছে সবুজের আচ্ছাদন। ঘন সবুজ মিশ্র চিরহরিৎ বনের ফাঁক দিয়ে সূর্যের সোনালী আলো এসে লুটাবে আপনার পায়ের কাছে। এখান থেকেই পথের দুই ধারে শুরু হয়েছে ঘন ঝোপ। এক ধরনের ঝিঁঝি পোকার তীব্র সাইরেনের মত ডাক আমাদের কান ঝালাপালা করে দিচ্ছিল এই পথে যাওয়ার সময়।

https://c4.staticflickr.com/8/7716/16796917263_e425a7649b_b.jpg
লাউয়াছড়ার প্রবেদ্বার


https://c4.staticflickr.com/8/7796/17417176555_f80617fe50_b.jpg
লাউয়াছড়ার প্রবেদ্বার


এই পথ ধরে কিছুটা এগিয়ে গেলেই সামনে একটা ছোট্ট কালভার্ট , নিচে ঝিরি ঝিরি বয়ে চলেছে স্বচ্ছে জল। নিচের লালচে হলুদ বালি আর স্বচ্ছ জলের খেলা। একটু ভাল করে লক্ষ্য করলেই দেখতে পাবেন জলে রয়েছে জলেরই মত স্বচ্ছে কিছু খুদে মাছ। নিচে নামর রাস্তা আছে ডান দিক দিয়ে। সাথে বাচ্চা আর মেয়েরা না থাকলে এই ছড়া ধরে ভিতরের দিকে অনেকটা পথ হেঁটে আসা যেত, এবারে তা পারা গেলো না। বনের গভীরে আর একটা ছড়া আছে, গত বার যখন এসেছিলাম তখন দেখে গিয়ে ছিলাম।

https://c4.staticflickr.com/8/7765/17229612170_77ce3c48df_b.jpg
লাউয়াছড়ার ছড়া


কালভার্ট পেরিয়ে আর কিছুটা সমনে গেলে আছে মসজিদ, মসজিদ পেরিয়ে সমনে গেলেই দেখতে পাবেন বাংলাদেশের সবচেয়ে সুন্দর রেল পথের অংশটুকু। সাবধান থাকবেন, এই অংশে কোন গেট ম্যান নাই। লাউয়াছড়া ন্যাশনাল পাকের মিশ্র চিরহরিৎ বনের বুক চিরে দুই ধারে চলে গিয়েছে চির সমান্তরাল রেল পথ। এই পথের উপরে বসে আর হেঁটেই অনেকটা সময় কাটিয়ে দেয়া যায়। আমরা যখন এই রেল পথের কাছা কাছি এসেছি তখনই একটা ট্রেন তার কুউউউ..... ঝিক ঝিক... শব্দে জানান দিয়ে গেলে যে সে যাচ্ছে এই পথ ধরে। একটুর জন্যে মিস একরে ফেললাম আমরা সেই দৃশ্যটা।

https://c1.staticflickr.com/9/8880/17391179166_253afba567_h.jpg
লাউয়াছড়া ন্যাশনাল পার্ক রেল লাইন


https://c2.staticflickr.com/8/7775/17229606600_19fe3619ca_b.jpg
লাউয়াছড়া ন্যাশনাল পার্ক (রেল লাইন)

রেল গেইটে গেইট ম্যান নাই তাই কোন বাধাও নাই ভাববেন না যেন, নিজেই সাবধান থাকবেন। রেল লাইন ধরে ডান বা বাম দিকের যেকোনো দিকে অনেক দূর পর্যন্ত হেঁটে আসতে পারেন খারাপ লাগবেনা। আমাদের হাতে সময় কম থাকার দরুন আমরা সেদিকে পা না বাড়িয়ে পাশের টিলাতে থাকা সাতরঙা চায়ের দোকানে উঠে গেলাম। অনেকটা সময় নষ্ট হল চা আসার অপেক্ষায় থেকে, তারপর হাটা ধরলাম বনের ভিতরের দিকে।

https://c1.staticflickr.com/9/8751/16794642824_3df1017861_b.jpg
সাত রঙ্গা চা

বনভ্রমণের জন্য বনে তিনটি ট্রেইল বা হাঁটা পথ রয়েছে আগেই বলেছি। তিনটি পথের মধ্যে একটি ৩ ঘণ্টার পথ, একটি ১ ঘণ্টার পথ আর অপরটি ৩০ মিনিটের পথ। খুব বেশী ভিতরে যাইনি আমরা। নানান গাছ গাছালি আর ঝোপে ছাওয়া পায়ে চলা ট্রেইল ধরে এগিয়ে যাই অনেকটা পথ। মুহু মুহুই শোনা যেতে থাকে নানান ধরনের পাখির ডাক আর পোকাদের কলতান। প্রচণ্ড ভালোলাগা থাকলেও পুরটা পথ না গিয়েই ফিরতি পথ ধরি আমরা সময় বাঁচাতে। বনের ভিতরের কিছু ছবি দেখিন শেষ করার আগে।


https://c1.staticflickr.com/9/8739/17229400138_5c9938155e_b.jpg
বনের শুরুর পথ


https://c1.staticflickr.com/9/8706/17417161005_58bfb4d62f_b.jpg
লুঙ্গি পরা টারজেন


https://c4.staticflickr.com/8/7749/17230940309_d676bf43ab_b.jpg
আলো ছায়ার খেলা


https://c2.staticflickr.com/8/7769/17416773971_16e5e6a82b_h.jpg
খুঁজে দেখেন আপনার নাম পান কিনা


https://c2.staticflickr.com/8/7739/17415194122_03e9d952e3_b.jpg
বনের ভিতরে


https://c1.staticflickr.com/9/8836/17417151575_80cf40e455_b.jpg
ব্যাঙের  ছাতা


https://c1.staticflickr.com/9/8871/17416768251_5fdd77298c_b.jpg
বনফুলের শুভেচ্ছা

পরের গন্তব্য মাধবপুর লেক অপেক্ষা করছে আমাদের জন্য।


লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে কিছু তথ্য:
বর্তমানে জীব বৈচিত্র্যের দিক থেকে লাউয়াছড়ার জাতীয় উদ্যান বাংলাদেশের সমৃদ্ধ-তম বনগুলোর একটি। লাউছড়ার জাতীয় উদ্যানে ১৬৭ প্রজাতির উদ্ভিদ, ৪ প্রজাতির উভচর, ৬ প্রজাতির সরীসৃপ, ২৪৬ প্রজাতির পাখি এবং ২০ প্রজাতির স্তন্যপায়ী প্রাণী দেখা যায়।

বিলুপ্তপ্রায় উল্লুকের জন্য এ বন বিখ্যাত। বনের মধ্যে কিছু সময় কাটালেই উল্লুকের ডাকাডাকি কানে আসবে। উল্লুক ছাড়াও এখানে রয়েছে মুখপোড়া হনুমান, বানর, শিয়াল, মেছো-বাঘ, বন্য কুকুর, ভাল্লুক, মায়া হরিণ (বার্কিং ডিয়ার), অজগরসহ নানা প্রজাতির জীবজন্তু।

উদ্যানের বন্য পাখির মধ্যে সবুজ ঘুঘু, বনমোরগ, তুর্কি বাজ, সাদা ভ্রু সাতভায়লা, ঈগল, হরিয়াল, কালো-মাথা টিয়া, কালো ফর্কটেইল. ধূসর সাত শৈলী, পেঁচা, ফিঙ্গে, লেজকাটা টিয়া, কালোবাজ, হীরামন, কালো-মাথা বুলবুল, ধুমকল প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য।

বনের শেষে আছে আদিবাসীদের গ্রাম, ওদের লেবু বাগান, আছে ছড়ায় বয়ে চলা ঝিরি ঝিরি জলের ধারা। শুধু আদিবাসীদের গামের ভিতরে ঢুকবেন না, আর লেবু বাগান থেকে লেবু ছিঁড়বেন না, তাহলেই হবে। ওদের সাথে খারাপ ব্যবহার না করলে ওরা খুবই শান্ত প্রকৃতির আচরণ করবে, সেধে বা আগবাড়ায়ে ওদের সাথে মিশতে যাবেন না তাহলেই হল।

ভ্রমণের সময় Nikon D80 ও সনি ক্যামেরা দিয়ে বেশ কিছু ছবি তুলেছি আমি আর ইস্রাফীল। বাকিরাও দু একটা ছবি তুলেছে, সেই সব ছবি থেকে লাউয়াছড়া ন্যাশনাল পার্কের কয়েকটা দেখলেন।

পথের হদিছ:
যাওয়ার খরচা খুব বেশি হবে না নিশ্চই। কিভাবে যাবেন তার উপরে নির্ভর করছে। যেতেতু আমরা নিজেদের গাড়িতে করে গিয়েছি তাই বাস ভাড়া সম্পর্কে কোন ধারনা দিতে পারছিনা।
প্রবেশ মূল্য ২০টাকা, শিশু ও ছাত্র ১০টাকা। বিদেশীদের জন্য ৫ ডলার।
গাড়ি পারর্কিং ২৫ টাকা।
পিকনিং স্পট ব্যবহার জন প্রতি ১০ টাকা।
ভিতরে বা আশে পাশে খাবারের কোন ব্যবস্থা নাই, নিজ দায়িত্বে করে নিতে হবে।


https://c1.staticflickr.com/9/8894/17391155176_e32418c915_b.jpg
তবে গেইটের বাইরে ডাব পাওয়া যায়।

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন Jol Kona (২০-১২-২০১৪ ০১:৫৫)

Re: লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ভ্রমণ

৪৭ বার দেখা হইছে, কিন্তু কমেন্ট আসে নাই! দস্যু ভাইয়ার পোস্ট তো খালি যাবার কথা না!
ব্রাশুদা বাদের  ফোরামে কারো মনে হয় চোখেও পড়ে নাই!  confused নাকি!

যাক! লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান  এ যাওয়া হয় নাই! তবে টিপস গুলো মনে রাখলাম! নো গাইড অনলি দলবল নিয়া ঘুইরা আসা!  smile


মাধবপুরের লেকের সম্পর্কে মনে হয় আগামী মাসের ১৮ তারিখে জানতে পারব! মানে ১৮-০১-২০১৫ তখন আরেকবার এসে হামলা করব! O:)

Re: লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ভ্রমণ

লাউয়াছড়া ট্রেকিংয়ের জন্য চমৎকার জায়গা। তবে অজগরের দেখা পাই নি। আর উল্লুকগুলা এতই লাজুক যে ওদের সুন্দর ডাক শোনা ছাড়া আর কিছুই দেখি নি। এছাড়াও মাকড়শার নকশাদার জাল আসলে বলে শেষ করা যাবে না। লেখাটা খুব ভাল হয়েছে বিশেষ করে যারা সময়াভাবে ভাল করে দেখে নি কিংবা নতুন করে যেতে চায় তাদের অনেক কাজে আসবে।

Eat, drink and be happy

Re: লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ভ্রমণ

Jol Kona লিখেছেন:

৪৭ বার দেখা হইছে, কিন্তু কমেন্ট আসে নাই! দস্যু ভাইয়ার পোস্ট তো খালি যাবার কথা না!
ব্রাশুদা বাদের  ফোরামে কারো মনে হয় চোখেও পড়ে নাই!  confused নাকি!

এখন অনেকের পোস্টেই এই আবস্থা হয়, আমারটায় একটু বেশী হয় আরকি  lol2

Jol Kona লিখেছেন:

মাধবপুরের লেকের সম্পর্কে মনে হয় আগামী মাসের ১৮ তারিখে জানতে পারব! মানে ১৮-০১-২০১৫ তখন আরেকবার এসে হামলা করব!

আরে নাহ, লেখা অল্পই, শেষ করে ফেলেছি, আর ছবিও বাছাই করে রেখেছি। যেকোন দিন হাজির হতে পারে।


Moonstruck লিখেছেন:

লাউয়াছড়া ট্রেকিংয়ের জন্য চমৎকার জায়গা। তবে অজগরের দেখা পাই নি। আর উল্লুকগুলা এতই লাজুক যে ওদের সুন্দর ডাক শোনা ছাড়া আর কিছুই দেখি নি। এছাড়াও মাকড়শার নকশাদার জাল আসলে বলে শেষ করা যাবে না। লেখাটা খুব ভাল হয়েছে বিশেষ করে যারা সময়াভাবে ভাল করে দেখে নি কিংবা নতুন করে যেতে চায় তাদের অনেক কাজে আসবে।

চমৎকার মন্তব্যের জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ।
আমি নিজেই ভালো করে দেখিনি, সারা দিনের জন্য আবার যাওয়ার ইচ্ছে আছে।

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

Re: লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ভ্রমণ

মরুভূমির জলদস্যু লিখেছেন:

এখন অনেকের পোস্টেই এই আবস্থা হয়, আমারটায় একটু বেশী হয় আরকি  lol2


সবাই আলিস হইয়া গেছে!  sleeping sleeping

Re: লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ভ্রমণ

Jol Kona লিখেছেন:
মরুভূমির জলদস্যু লিখেছেন:

এখন অনেকের পোস্টেই এই আবস্থা হয়, আমারটায় একটু বেশী হয় আরকি  lol2


সবাই আলিস হইয়া গেছে!  sleeping sleeping

হ  ghusi

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

Re: লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ভ্রমণ

ভ্রমণ বর্ণনা অতি চমতকার হয়েছে।

Re: লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ভ্রমণ

ইলিয়াস লিখেছেন:

ভ্রমণ বর্ণনা অতি চমতকার হয়েছে।

ধন্যবাদ ইলিয়াস ভাই।

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

Re: লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ভ্রমণ

ভাল লাগল পোষ্ট

জাযাল্লাহু আন্না মুহাম্মাদান মাহুয়া আহলুহু......
এই মেঘ এই রোদ্দুর

১০

Re: লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ভ্রমণ

ছবি-Chhobi লিখেছেন:

ভাল লাগল পোষ্ট

'thanks

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

১১

Re: লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ভ্রমণ

পোস্টটি সত্যিই চমৎকার হয়েছে । ছবিগুলো মনে হচ্ছে জীবন্ত । খুব শীঘ্রই এখানে বেড়াতে যাব ।

১২

Re: লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ভ্রমণ

চমৎকার হয়েছে  thumbs_up

"We want Justice for Adnan Tasin"

১৩

Re: লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ভ্রমণ

aloeindica লিখেছেন:

পোস্টটি সত্যিই চমৎকার হয়েছে । ছবিগুলো মনে হচ্ছে জীবন্ত । খুব শীঘ্রই এখানে বেড়াতে যাব ।

বেড়িয়ে এসে জানায়েন কেমন লাগলো।

আউল লিখেছেন:

চমৎকার হয়েছে  thumbs_up

ধন্যবাদ আউল ভাই।

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

১৪

Re: লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ভ্রমণ

সাত রঙ্গা চা দেখিতে যতটা উৎকৃষ্ট পাণ করিতে ততটাই নিকৃষ্ট । আপনার মোহনীয়    ছবি দেখে আমার আবার যেতে ইচ্ছে হচ্ছে ।

এক টুনিতে টুনটুনালো সাত রানির নাক কাঁটালো

১৫

Re: লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ভ্রমণ

RubaiyaNasreen(Mily) লিখেছেন:

সাত রঙ্গা চা দেখিতে যতটা উৎকৃষ্ট পাণ করিতে ততটাই নিকৃষ্ট । আপনার মোহনীয়    ছবি দেখে আমার আবার যেতে ইচ্ছে হচ্ছে ।

কথা সত্যি, নামেই চা, আসলে চায়ের ধারে কাছেও না।

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

১৬

Re: লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ভ্রমণ

জায়গাটা আসলেই অনেক সুন্দর।একবার গিয়েছিলাম কিন্তুু তখন কোন ক্যামেরা ছিল না.তাই পিক তুলতে পারি নাই  sad..

ভাবতে ভীষন অবাক লাগে............নেই আমি আর আগের মত

১৭

Re: লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ভ্রমণ

red_devil লিখেছেন:

জায়গাটা আসলেই অনেক সুন্দর।একবার গিয়েছিলাম কিন্তুু তখন কোন ক্যামেরা ছিল না.তাই পিক তুলতে পারি নাই  sad..

আমি এর আগে একবার গিয়েছিলাম, সেবারের কিছু ছবি থাকার কথা কিন্তু খুঁজে পাচ্ছি না।

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

১৮

Re: লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ভ্রমণ

আপডেট করা হলো।

১৯

Re: লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ভ্রমণ

ইলিয়াস লিখেছেন:

আপডেট করা হলো।

আপডেট করলেই এমন হিজিবিজি হয়ে যাচ্ছে কেনো?  shame

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

২০

Re: লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ভ্রমণ

প্রায় ৬-৭ বছর আগে গিয়েছিলাম। আসলেই অনেক সুন্দর জায়গা।
আপনার ছবিগুলো দেখে মনে পড়ে গেল, আবার যাওয়ার ইচ্ছে জাগছে।
একা বলে গাইড না নিয়ে নিজের মত ইচ্ছে মত ঘুরে বেরিয়েছি, প্রায় ৩-৪ ঘন্টাতো হবেই।
২০ টাকা দিয়ে একটা হাতির পিঠেও চড়ি কিছু সময়। বেশ ভালই লেগেছিল।
আপনার ছবিতে খাসিয়া পুঞ্জির কিছু পেলাম না, ওদের পানের বাগানের ছবি।
ওদের জীবন-যাপন ও ওদের জগৎটাই অন্যরকম। এখন কেমন জানি না।

আপনার ছবিগুলো অসাধারন হয়েছে। ধন্যবাদ।  smile

আল্লাহ এক, অদ্বিতীয় ও সর্ব শক্তিমান।