সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন রহস্য মানব (১৫-০১-২০১৪ ২০:১৫)

টপিকঃ Robot man/Rex

৯৮ এর দিকে বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রচারিত এই ড্রামা সিরিয়ালটির কথা নিশ্চয় আপনাদের মনে আছ যেখানে এক রোবট মানুস করে বেরায় দুঃসাহসিক সব অভিযান
http://i.imgur.com/9GTyqVN.jpg

ঠিক সেই আদলেই তৈরি হলো পৃথিবীর প্রথম রোবট মানব রেক্স
রেক্স, পৃথিবীর প্রথম বায়োনিক মানব যার শিরায় রক্ত প্রবাহিত হচ্ছে, শরীরে আছে বৃক্ক, অগ্ন্যাশয় ও শ্বাসনালীর মতো গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ, তারপরও সে মানুষ নয়। রেক্সের চেহারা মানুষের মতো এবং এর বিভিন্ন কৃত্রিম অঙ্গ-প্রতঙ্গ, যেমন অগ্ন্যাশয়, প্লীহা, বৃক্ক ও শ্বাসনালী রয়েছে। এমনকি এর একটি কার্যকরী কৃত্রিম রক্তসঞ্চালন প্রণালীও আছে। এটি লম্বায় সাড়ে ছয় ফিট এবং এর দাম প্রায় এক মিলিয়ন মার্কিন ডলার।
http://i.imgur.com/W0y2Qmj.jpg

একদল রোবট গবেষক রেক্সকে তৈরি করে বলেন, তাদের উদ্দেশ্য ছিল, বিজ্ঞানের সীমারেখা যাচাই করে দেখা। তারা দেখাতে চেয়েছেন, কিভাবে এখন আধুনিক বিজ্ঞানের সাহায্যে মানুষের আসল অঙ্গপ্রতঙ্গকে মানুষেরই তৈরি কৃত্রিম অঙ্গপ্রতঙ্গ দিয়ে প্রতিস্থাপন করা সম্ভব।

গবেষকদের একজন,বারটোল্ট মেয়ার বলেন, ‘আমার ব্যক্তিগতভাবে সবচেয়ে বেশি পছন্দ ন্যানোপার্টিকল দিয়ে তৈরি এর কৃত্রিম রক্ত, যা আসল রক্তের মতোই অক্সিজেনকে সংকুচিত করতে সক্ষম। কিন্তু এটি তো আসল রক্ত নয়, এগুলো হচ্ছে ন্যানোপার্টিকল।’

এছাড়া মেয়ার কৃত্রিম কিডনি প্রতিস্থাপন নিয়েও বেশ আশাবাদী। ভবিষ্যতে হয়তো আর আসল কিডনি প্রতিস্থাপনের প্রয়োজন হবে না। রেক্সকে এই মুহূর্তে লন্ডনের বিজ্ঞান জাদুঘরে রাখা হয়েছে।

তথ্যঃইন্টারনেট

মানুষ মাত্রই মরন শীল , কিন্ত নশ্বর নয় ।।

Re: Robot man/Rex

রোবট যান্ত্রিক হলে রক্তের কাজ কি?

Re: Robot man/Rex

ভয়ংকর গবেষণা! এর পরিণাম নিয়ে কেউ এখন চিন্তা করছে না! কিন্তু যখন ভয়াভ দিক যখন সবার সামনে আসবে সেটা আর কেউ ঠেকাতে পারবে না!

"বিজ্ঞানের সীমারেখা যাচাই করে দেখা।" বিজ্ঞান ও তার গবেষণার কোন সীমারেখা নাই!

Re: Robot man/Rex

ইলিয়াস লিখেছেন:

রোবট যান্ত্রিক হলে রক্তের কাজ কি?

মানবদেহে রক্ত কিন্তু ত্বকের ঠিক নিচ দিয়ে প্রবাহিত হবার সময় ত্বককে ব্যবহার করে দেহের তাপ নিয়ন্ত্রনের বিষয়ে সহায়তা করে। সম্ভবত সেই হিসেবে এই রবোটটার কুলিং প্রসেসে ব্যবহার্য তরলটাকেই রক্তের ন্যায় রঙ্গীন করেছে এই বিজ্ঞানীরা।

Jol Kona লিখেছেন:

ভয়ংকর গবেষণা! এর পরিণাম নিয়ে কেউ এখন চিন্তা করছে না! কিন্তু যখন ভয়াভ দিক যখন সবার সামনে আসবে সেটা আর কেউ ঠেকাতে পারবে না!

মানবদেহ যে কি আশ্চর্য্য সৃষ্টি সেটা হয়তোবা বিজ্ঞানীরা এখনো বুঝে উঠতে পারেননি।

Jol Kona লিখেছেন:

"বিজ্ঞানের সীমারেখা যাচাই করে দেখা।" বিজ্ঞান ও তার গবেষণার কোন সীমারেখা নাই!

হুমম!!

রিং'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: Robot man/Rex

Jol Kona লিখেছেন:

ভয়ংকর গবেষণা! এর পরিণাম নিয়ে কেউ এখন চিন্তা করছে না! কিন্তু যখন ভয়াভ দিক যখন সবার সামনে আসবে সেটা আর কেউ ঠেকাতে পারবে না!

"বিজ্ঞানের সীমারেখা যাচাই করে দেখা।" বিজ্ঞান ও তার গবেষণার কোন সীমারেখা নাই!

তবে সুখের ব্যাপার সম্ভবত আমরা বেচে থাকব না পরিণাম দেখার জন্য।

এখনও শিখছি। আরো শিখতে চাই। পরে নাহয় শেখানো যাবে। আপাতত শেয়ার করতে পারি

Re: Robot man/Rex

Jol Kona লিখেছেন:

ভয়ংকর গবেষণা! এর পরিণাম নিয়ে কেউ এখন চিন্তা করছে না! কিন্তু যখন ভয়াভ দিক যখন সবার সামনে আসবে সেটা আর কেউ ঠেকাতে পারবে না!

ভয়ংকর হওয়ার কিছু নাই, মানুষের অগ্রগতি এভাবেই এগিয়ে যাবে। পারমাণবিক বোমা জিনিসটাও ভয়ংকর, কিন্তু এটা দিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা যায়। দেখা যাবে, এই গবেষণাই মানুষকে আস্তে আস্তে সুপারমানব করে তুলছে।

আমার সকল টপিক

কোনো কিছু বলার নেই আজ আর...