টপিকঃ বার্ড ফ্লুতে আক্রান্ত হয়ে উত্তর আমেরিকাতে প্রথম মৃত্যু

গত ৩রা জানুয়ারী কানাডাতে প্রথম বার্ড ফ্লুতে মৃত্যু ঘটে। ভিকটিম চীন ভ্রমন করে দেশে ফিরেছিলেন। তিনি ডিসেম্বরের ২৭ তারিখে অসুস্থ অবস্থায় দেশে ফেরেন। ১ তারিখে হাসপাতালে ভর্তি হন ও ৩ তারিখে তার মৃত্যু হয়।

সংক্ষেপে বার্ড ফ্লুঃ
এটা এক ধরনের ভাইরাস দ্বারা সংক্রমিত ইনফ্লুয়েঞ্জা । সাব টাইপের নাম H5N1। এটা সাধারণত পাখির অসুখ (অধিকাংশই  পোলট্রি) তাই একে বার্ড ফ্লু বা এভিয়ান ফ্লু বলে। কিন্তু কিছু ভাইরাস মিউটেসানের মাধ্যমে স্পেসিস বেরিয়ার ক্রস করে ফেলে যার ফলশ্রুতিতে রোগটা মানুষে ছড়িয়ে পড়ে। ২০০৩ সালে এটা প্রথম মানুষে ধরা পড়ে। তারপর এশিয়ার সর্বত্র ও পর্যায় ক্রমে ইউরোপ ও আফ্রিকাতে ছড়িয়ে পড়ে।
সংক্রমিত পাখির সংস্পর্শে  অথবা সংক্রমিত তরলের সংস্পর্শে এটা ছড়িয়ে পড়ে। মানুষ থেকে মানুষে খুব একটা হয়না তবে খুব ঘনিষ্ঠ ও দীর্ঘমেয়াদী সংস্পর্শে হতে পারে।
লক্ষন সাধারন ভাইরাস জ্বরের মতই যেমনঃ  জ্বর, সর্দি, মাথা ব্যাথা, হাঁচি, কাশি  ইত্যাদি।
বাংলাদেশেও কয়েকবার এর প্রকোপ হয়েছিলো তবে ইদানিং দেখা যাচ্ছে না।  দেখা না গেলেই ভালো।

সুত্রঃ ইন্টারনেট ও অন্যান্য

Re: বার্ড ফ্লুতে আক্রান্ত হয়ে উত্তর আমেরিকাতে প্রথম মৃত্যু

ভালোবাসার কোড লিখেছেন:

কিন্তু কিছু ভাইরাস মিউটেসানের মাধ্যমে স্পেসিস বেরিয়ার ক্রস করে ফেলে যার ফলশ্রুতিতে রোগটা মানুষে ছড়িয়ে পড়ে।

negative consequence of natural selection

Rhythm - Motivation Myself Psychedelic Thoughts

লেখাটি CC by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত