সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন Jol Kona (২৪-১২-২০১৩ ২২:৫৪)

টপিকঃ পিচ্চিদের জন্য খাবার!! :q

গতকাল বড়ভাইয়ার বাসায় ছিলাম! বিকালে তার ছেলেকে পাহারা দিতে!
পাহারা দিতে গেছি আমি, পিচ্চি উল্টা আমাকে পাহারা দিয়ে রাখছে!  kidding

যাক, আমি যখন বাসায় যাই তখন সে ভাত খাচ্ছিল আর টিভির রিমোট নিয়া মারামারি করতেছিল ভাবি সাথে!আমি যাবার পর ভাবি যাবে হাসপাতাল!

যাবার আগে ভাবী হাত ধরে আমাকে কিচেন এ নিয়ে গেল, বলছে দেখ এই গুলা; আমি তাকায় দেখি চুলার পাশে আমার জন্য কিছু জিনিশ রেখে যাচ্ছেন; চায়ের পাতার পট, চিনির পট, দুধের পট, পাতিল  আর কাপ।
ঘটনা কি! রাফিন কে চা বানায় খাওয়াইতে হবে। আমি তো টাস্কিত! পিচ্চি চা খাবে! ক্যামেরা বন্দী করে রাখার মত ব্যপার!

ভাবী বলেই যাচ্ছে! "এইগুলা দিলাম; যখন চা খেতে মনে চাবে তখন বানায় খেয়ে ফেলবা । আমি জানি আমার নন্দিনী চা ছাড়া বিকালে থাকতে পারবে না!" বলেই কি এখানা বিশাল হাসি দিল।

আমি তো পাশে চারটা বন রাখা দেখলাম! বললাম, এইখান থেকেও একটা মেরে দিবনে! 
ভাবি, উহু!  দুইটা মেরে দিও, বলেই আমার গাল ধরে টান!  roll ,
গালের উপর ট্যাক্স লাগাইতে হবে দেখি! চান্স পাইলে সবাই গাল ধরে টানাটানি করে, এখন একটু বড় হইসি না!!   cool

তো ভাবি চলে গেল! আমি আর রাফিন শুরু করলাম মারামারি! স্বভাবত যা করি আরকি!! টিভির রিমোট নিয়া খামচাখামচি! সে রেস্লিং দেখবে! আমি কার্টুন দেখব!  angry

কইলাম তোর আজ খাবার নাই! সাথে সাথে রিমোট আমার হাতে  dancing
পোলাপাইনের এই এক গুন! খাবার কথা বলে দুনিয়া উদ্ধার। এতে তাদের না নাই। একরকম করে বানায় ধরায় দিলেই হইল; যেন খাবার জন্য বাইছা আছে!  cool

তো যাই হোক!  দুপুর গড়ায় বিকাল হইল! পিচ্চি গেল নিচে বেডমিন্টন খেলতে  sad আমি একা একা বসে বসে বিরক্ত হয়ে গেছিলাম, ভাবিকে ফোন দিয়া বললাম বাসায় এই বন-ফন ছাড়া আর কি আছে! রাফিন আর আমার খাওয়ার মত; বলল ফ্রি এ সসেজ আছে! পারলে মিনি শুকনা বার্গার বানায় খেয়ে ফেলতে।
এর মধ্যের আমার ভাতিজা আমার কয়েকবার খোঁজ নিয়া গেছে! " ফুপি ঠিক আছ তো!!? " আমি ঠিক আছি অই খানের খেলতেছি!" ---- তা অই খানের কোন চিপায় গিয়া যে খেলতেছে তা আমি বুঝলাম না!  whats_the_matter   

ভাবলাম রাফিন আসুক তারপর নাহয় ফুপি-ভাতিজা মিলে খাবার বানাবো! আমাদের বাসায় থাকলে ওকে নিয়ে এটা ওটা বানাতাম! ভালই লাগত! খুব আগ্রহ নিয়া তাকায় তাকায় দেখতে নিজে নিজে করতে চাইত। গেদুপিচ্চি ছিল ভালাই ছিল, এখন যত বড় হচ্ছে বেয়াড়া হইতেছে ...... এই হাবিজাবি ভাবতে ভাবতে আমি চা এর পানি চড়ায় দিলাম চুলায়!

পানি গরম করলাম, ভুট ভুট করে যখন ফুটতে লাগল; তারপর চা পাতা দিলাম দুই চা চামুচ! তারপর একটু ফুটার জন্য অপেক্ষা করলাম! পানি ফুটতে থাকলে একটু পরে পরে চা এর ধোঁয়া টা শুকে দেখছিলাম! যখন চায়ের ফ্লেভারটা বের হতে শুরু কর! তখন চুলা থেকে পাতিল টা নামায় ফেললাম smile

তারপর কাপে, দেড় চামুচ দুধ- দেড় চামুচ চিনি দিয়ে ছাকনি দিয়ে চা ছেকে নিয়ে নাড়তে থাকলাম! চা রেডি!!!  চা বানায় একটা বন দিয়ে খেয়ে ফেললাম! তারপর মোবাইলে বসে এই নেট নিয়া ঘাটা ঘাটি করলাম কিছুক্ষণ!

রাফিন; আজান দেবার পর আসল! ওরে বললাম হাত মুখধুয়ে নামাজ পড়ে আয়, তারপর একসাথে বার্গার বানাই; সে তো নাচতে নাচতে গেল, নাচতে নাচতে আসল tongue
কিন্তু আমরা কিছু শুরু করব, তার ঠিক আগেই ভাবি এসে হাজির!

রাফিন গেল রুমে গেম খেলতে; আমি আর ভাবি বকবক করতে লাগলাম! এই বকবক করতে করতেই ভাবি মিনিট পাঁচ-সাতেকের ভিতরে আমাদের দুইজনের জন্য সসেজ বার্গার বানায় দিল।

কিছু না, খালি সসেজটাকে চাক চাক করে কেটে কেটে টুকরা করে কড়াইতে ভেজে নিল! আমিও বকবক করতে করতে নাড়ছিলাম কিন্তু খেয়াল করি নাই কি নাড়ছিলাম! হয়ে গেলে নামালাম।
তারপর বার্গার বনটা মাঝে থেকে কেটে; সেটা কড়কড়া গরম তাওয়াতে গরম করে নিল দুই পিঠ! নামায় ফেলল!
এরপর পাশে গ্লাসে পনির ছিল ওটা বনের দুই পিঠে হালকা লাগাল! আর সস!
আর তার ভেতরে সসেজ দিয়ে ফিল করে দিল! ব্যাস একটা আমার হাতে আরকেটা পিচ্চির হাতে ধারায় উনি ফ্রিজ থেকে কি জানি এনে তিন টুকরা করলেন। দেখি ভুট্টা সিদ্ধ!  একটুকরা আমাকে, একটা উনি, আর একটুকরা রাফিনকে দিলেন! জিজ্ঞাসা করলাম কেমনে করছেন! বলে দিল, একটা পাতিলে পানি রেখে, উপরে একটা প্লেট রেখে ভেপে সিদ্ধ করে নিয়েছেন! প্রেশারকুকার এ রেখেও করা যায়!! তারপর ফ্রিজে এ রেখে দিয়ে ছিলেন, নষ্ট না হবার জন্য!

তারপর টুপ করে এসে চেয়ারে বসে, গা এলায় দিয়ে বিশাল একটা হাসি দিলেন! যেন যুদ্ধ জয় করে আসছেন!

তারপর বলে, "দুই পিচ্চির পেট ঠান্ডা হইসে তো এইবার!"
আমরা দুই পিচ্চি -  big_smile  tongue_smile


এই সেই বন আর ভুট্টা!  cool

https://fbcdn-sphotos-d-a.akamaihd.net/hphotos-ak-frc3/1491764_401490699984912_1598174351_n.jpg



আর তিন কামুড়ে পর বনের ভেতরে অবস্থা!

https://fbcdn-sphotos-g-a.akamaihd.net/hphotos-ak-ash3/1535729_401776236623025_2045312106_n.jpg

Re: পিচ্চিদের জন্য খাবার!! :q

এহ্‌, ঠিক সময়ে বিয়ে দিয়ে দিলে ক'টা যে হত, কে জানে? আবার পিচ্চি সাজা হচ্ছে!  hehe
জিনিসটা নতুন জানলাম। টার্কিশদের দোকানে হানা দিয়ে হালাল সসেজটা আনতে হবে দেখছি! বেশ ঝটপট ব্যাপার বোঝাই যাচ্ছে।

কিছু বাধা অ-পেরোনোই থাক
তৃষ্ণা হয়ে থাক কান্না-গভীর ঘুমে মাখা।

উদাসীন'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: পিচ্চিদের জন্য খাবার!! :q

big_smile tongue_smile  hehe  kidding  dancing
আমি তো পিচ্চিই!!!!

Re: পিচ্চিদের জন্য খাবার!! :q

ভালো লেখা ধন্যবাদ শেয়ার করার জন্য...
অনেকদিন পরে ভুট্রা সিদ্ধ দেখলাম চীন আর জাপানে এটা অন্যতম প্রিয় খাবার , আমাদের দেশে আমি এইটা শুধু পুড়িয়ে খেতে দেখেছি...হুম...খেয়েওছি...

মানুষ মাত্রই মরন শীল , কিন্ত নশ্বর নয় ।।

Re: পিচ্চিদের জন্য খাবার!! :q

জলের লেখা এবং লেখার সাবজেক্টে বেশ উন্নতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। একটা সম্মাননা পাওনা রইল। নেক্সট টপিকে দিয়ে দিব ইনশাআল্লাহ।

Re: পিচ্চিদের জন্য খাবার!! :q

tongue_smile সবাইকে ধইন্যা পাতা!  cool

আগে কি আমার সাবজেক্ট গুলা খ্রাপ আছিল  brokenheart  worried  cry crying
@ইলিয়াসদা

Re: পিচ্চিদের জন্য খাবার!! :q

Jol Kona লিখেছেন:

tongue_smile সবাইকে ধইন্যা পাতা!  cool

আগে কি আমার সাবজেক্ট গুলা খ্রাপ আছিল  brokenheart  worried  cry crying
@ইলিয়াসদা

নব্য পিচ্চি হিসাবে তিনি উন্নতি দেখেছেন৷ আগে ভাবতেন ধাড়ি৷  lol  big_smile  hehe

গল্প-কবিতা - উদাসীন - http://udashingolpokobita.wordpress.com/
ছড়া - ছড়াবাজ - http://chhorabaz.wordpress.com/

Re: পিচ্চিদের জন্য খাবার!! :q

অরুণ লিখেছেন:

নব্য পিচ্চি হিসাবে তিনি উন্নতি দেখেছেন৷ আগে ভাবতেন ধাড়ি৷  lol  big_smile  hehe

tongue_smile তাইলে ঠিক আছে!  cool

dancing

Re: পিচ্চিদের জন্য খাবার!! :q

কচি ভুট্টা সেদ্ধ খেতে বেশ লাগে আমার।  dream

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

১০

Re: পিচ্চিদের জন্য খাবার!! :q

বাত্তি ভুট্টা সিদ্ধ অত মজা নাই! তবে! ভুট্টা পুড়ায় একটু ঘি উপরে মেখে দিলে কিন্তু টেইস্ট চেঞ্জ হয়ে যায়!  tongue_smile
কচি গুলো সিদ্ধ খেতেই ভাল লাগে!