২১

Re: বিজ্ঞান নিয়ে কিছু প্রশ্ন

শামীম লিখেছেন:

গ্রাফ না বুঝলে আপাতত বাদ দেন।  whats_the_matter

সেটাই ভালো  hairpull

২২

Re: বিজ্ঞান নিয়ে কিছু প্রশ্ন

শর্তাধীন লিখেছেন:

কেন্দ্রে ভরশূন্য হওয়ার পর তো গতিও শূন্য হয়নি

হ্যা গতি শুন্য হয়ে যাবে। তবে আরেকটা ব্যাপার বলা দরকার। কেন্দ্রে কিন্তু কোন বস্তুরই ভর শুন্য হয় নি। যখন পৃথিবীর পৃষ্ঠে বা বাইরে কোন বস্তু থাকে তখন পৃথিবী তাকে আকর্ষন করে পুরো ভর দিয়ে যে দিকে পৃথিবী আছে সেই দেকে।  আমরা যখন দাড়িয়ে থাকে তখন পৃথিবী আকর্ষন করে নিচের দিকে। কারণ পৃথিবী তখন নিচের দিকে থাকে। উল্টো হলে হাতের উপর দাড়ালে আপনার উপরের দিকে পৃথিবী থাকবে এবং আকর্ষন করে উপরের দিকে। মোদ্দা কথা একটাই, পৃথিবী যেই দিকে আছে সেই দিকে টানবে।
যখন আপনি পৃথিবীর ভেতরের দিয়ে যাত্রা শুরু করেন তখন আপনার ডানে, বামে, উপর, নিচে, সামনে, পিছনে সব দিকেই কিন্তু  পৃথিবী থাকে। একটু কল্পনা করে দেখুন। এখন সব দিকে যে মাটি আছে তার পরিমান কিন্তু সমান না। চারিদিকে যে পরিমান পৃথিবীর অংশ রয়েছে তা আপনার উপর বল প্রয়োগ করবে। এখানে পৃথিবীর অংশ গুলো কাজ করবে। তো যেই দিকে কেন্দ্র সেই দিকে বেশি পরিমান পৃথিবীর অংশ থাকবে। আর অন্যান্য দিকে কম পরিমান পৃথিবীর অংশ থাকবে। তাই আকর্ষন মূলতঃ কেন্দ্রের দিকেই থাকবে। কিন্তু মোট আকর্ষন কম হবে। কারণ প্রথমত কেন্দ্রের দিকে পুরো পৃথিবী নেই। আছে একটা বৃহত্তর অংশ।  আর উপরে আছে সামান্য অংশ। এই অংশটুকুও আপনাকে আকর্ষন করে। এই আকর্ষনের কারণে কেন্দ্রের দিকের বৃহত্তর অংশের আকর্ষনের উল্টো দিকে হওয়ায় কেন্দ্রের দিকের আকর্ষন আরও কমে যাবে।
এই ভাবে অগ্রসর হতে থাকলে একসময় উপরে, নিচে, সামনে, পিছনে, ডানে, বায়ে পৃথিবীর অর্ধেক করে অংশ থাকবে। তখন মোট আকর্ষন বল হবে ০। কারণ একেকটা বল আরেকটাকে নিষ্ক্রিয় করে দিচ্ছে।

এবার আসি গতির কথায়। যখন আপনার  উপর মোট প্রয়োগকৃত বলের পরিমান ধীরে ধীরে কমতে থাকবে তখন ত্বরণও ( বেগ বৃদ্ধির  হার ) কমতে থাকবে। F=ma অনুসারে Force কমতে থাকা মানে acceleration কমা। কিন্তু ভর (mass) কখনও কমবে না। আপনার ভর যদি ৬০ কেজি হয় তাহলে তখনও ৬০ কেজিই থাকবে। ত্বরণ কমতে থাকা মানেই বেগ বৃদ্ধির হার কমতে থাকা। মানে আসলে বেগ হ্রাসের হার বাড়া। অর্থাৎ প্রতি সেকেন্ডে আপনি যদি ১০ মিটার করে এগোতেন। এখন প্রতিসেকেন্টে এই ১০ মিটার আস্তে আস্তে কমতে থাকবে। হয়ত নেক্সট সেকেন্ডে এটা হবে ৯ মিটার। এরপর ৮ মিটার। এভাবে আপনি ১ মিটার করে বেগ বা গতি হারাতে থাকবেন। যখন কেন্দ্রে পৌছাবেন তখণ আপনার বেগ অলরেডী শুন্য হয়ে গেছে।



শর্তাধীন লিখেছেন:

ধরুন মার্বেলকে না ফেলে ঠিক কেন্দ্রে ছেড়ে দেয়া হলো, এখন মার্বেল এখানে ভরশূন্য এবং স্থির. এখন মার্বেলের উপর কেন্দ্রের আকর্ষন কি শূন্য?

হ্যা আকর্ষন শুন্য।  চারিদিক থেকে পৃথিবীর অর্ধেকের বল কাজ করবে। এবং একটা আরেকটাকে নিষ্ক্রিয় করে দেবে। তাই কোন দিকে কোন রকম আকর্ষন থাকবে না। কোন গতি প্রাপ্ত হবে না। শুন্য গতি থেকে গতি প্রাপ্ত হতে হলে গতি বৃদ্ধি হতে হবে। সেই বৃদ্ধির হার এখানে ০। তাই গতি বাড়বে না।
ঠিক মহাশুন্যের মত। তবে মহাশুন্যে যদি কোন একটা মার্বেল রাখা হয় তাহলে তা স্থির থাকবে। কিন্তু যদি তাকে একটু ধাক্কা দেয়া হয় বা টোকা দেয়া হয় তাহলে তা আপনার হাত থেকে ভরবেগের কারণে কিছুটা গতি প্রাপ্ত হবে। এরপর সেই গতিতেই অনন্ত কাল চলতে থাকবে। এখানেও ভরবেগের কারণে গতি প্রাপ্ত হওয়ায় এখানে ত্বরণ হবে শুন্য। মানে গতি কখনও বাড়বে বা কমবে না। যা আছে তাই থাকবে।

Feed থেকে ফোরাম সিগনেচার, imgsign.com
ব্লগ: shiplu.mokadd.im
মুখে তুলে কেউ খাইয়ে দেবে না। নিজের হাতেই সেটা করতে হবে।

শিপলু'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি GPL v3 এর অধীনে প্রকাশিত

২৩

Re: বিজ্ঞান নিয়ে কিছু প্রশ্ন

এখানে ভর বলতে তো মনে হল ওজন বুঝাচ্ছে!

"সংকোচেরও বিহ্বলতা নিজেরই অপমান। সংকটেরও কল্পনাতে হয়ও না ম্রিয়মাণ।
মুক্ত কর ভয়। আপন মাঝে শক্তি ধর, নিজেরে কর জয়॥"

২৪

Re: বিজ্ঞান নিয়ে কিছু প্রশ্ন

আরণ্যক লিখেছেন:

এখানে ভর বলতে তো মনে হল ওজন বুঝাচ্ছে!

তাহলে তো ভার বা ওজন বলার কথা।

Feed থেকে ফোরাম সিগনেচার, imgsign.com
ব্লগ: shiplu.mokadd.im
মুখে তুলে কেউ খাইয়ে দেবে না। নিজের হাতেই সেটা করতে হবে।

শিপলু'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি GPL v3 এর অধীনে প্রকাশিত

২৫ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন আমার যত সমস্যা (৩১-০১-২০১৩ ১৫:২৫)

Re: বিজ্ঞান নিয়ে কিছু প্রশ্ন

২। পৃথিবী সেকেন্ডে/মিনিট কতবার ঘোরে/পাক খায় ?

শামীম লিখেছেন:

নিজ অক্ষের চারপাশে ৩৬০ ডিগ্রী ঘুরতে ২৩ ঘন্টা ৫৬ মিনিট ৪ সেকেন্ড লাগে।

সেটা তো আমিও জানতাম। কিন্তু কিছু দিন আগে একজনের কাছে শুনলাম  পৃথিবী প্রচন্ড গতিতে ঘুরছে তাই এই প্রশ্ন করলাম।


শামীম লিখেছেন:

৬। পানিতে জীবাণু আছে কিনা তা পরিষ্কার সহজ উপায় কি?
পানিতে জীবানু পরিষ্কারের সহজ রাস্তা সেই পানি রোদে দেয়া।

পরিষ্কার নয় পরিক্ষা হবে। আমার ভুল হয়ে ছিল। যেমন, ইনিলিভার PURE IT বিজ্ঞাপনে বলে যে, তারা বাসায় এসে পরিক্ষা করে দেয় তাদের পানি জীবাণু মুক্ত কিনা।

শর্তাধীন লিখেছেন:

কঠিন প্রশ্ন

শিপলু লিখেছেন:

এসব বাংলাদেশের প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষাস্তরের সামাজিক বিজ্ঞানের ভূগোল চাপ্টারে (বিজ্ঞান বিভাগ), ভূগোল সাবজেক্টে, সাধারণ বিজ্ঞান  ( মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা, ক্লাস ৩ থেকে ৮) অলরেডি লেখা আছে। স্পেশ্যালি ২, ৩ ও ৫

এই জন্যই মনে হয় ৫ নাম্বার প্রশ্নের জাবাব কেউ দিল না। তাহলে আপনিই দিয়ে দিন ।

আহমাদ মুজতবা লিখেছেন:

নাহলে আর উনার যতো সমস্যা নিকের মানে কি হলো! যত্তসব... .........

আমার সমস্যা হলে আপনার সমস্যা কি ?

অরিহন্ত লিখেছেন:

এককোষী পর্যায়ে প্রাণির দেহে চোখ এসে গিয়েছিল। ইউগ্লিনা নামের একটি এককোষী  প্রাণিতে প্রথম আলোক সংবেদী একটি বিন্দু দেখতে পাওয়া যায়, যা চোখের প্রাথমিক রূপ।

গুগলে কি বলে সার্চ করলে বিস্তারীত পাব ?

শর্তাধীন লিখেছেন:

অনেকেই আছেন ফোরামে এরকম করেন আসলে অনেকটা steam release করার জন্য. উত্তরের তার দরকার নেই তার দরকার একটু সময় কাটানো, মজা করা. হয়তো কম্পিউটারে অন্য কোন জটিল কাজ করতে করতে মাথা আর কাজ করছে না, তখন ফোরামে একটু সময় দিলে এসব ভূলে থাকা যায়. পরে আবার হাল্কা হয়ে নিজের কাজে ফিরে যাবে. ব্যপার যদি এরকম হয়, এরা ফোরামের নিয়ম কানুনের তোয়াক্কা করবে না. এদের দরকার একটু সময় কাটানো - ভালো হয় সময়টা যদি মজায় কাটে. এজন্য বেশীর বেশী না হয় banned ই হবে, তখন না হয় আরেক ফোরামে যাবে. একটা হলেই হলো

নিজে প্রশ্ন করলেন তাতে কোন সমস্যা নাই। আর আমি করাতে আপনার সমস্যা ?

২৬

Re: বিজ্ঞান নিয়ে কিছু প্রশ্ন

আমার যত সমস্যা লিখেছেন:

নিজে প্রশ্ন করলেন তাতে কোন সমস্যা নাই। আর আমি করাতে আপনার সমস্যা ?

আমার কোন সমস্যা নেই  smile. যত ইচ্ছা প্রশ্ন করুন, উদ্ভট হলেও সমস্যা নেই. যত উদ্ভট তত ভালো.  love

২৭ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন আরণ্যক (৩১-০১-২০১৩ ১৫:৫১)

Re: বিজ্ঞান নিয়ে কিছু প্রশ্ন

শিপলু লিখেছেন:
আরণ্যক লিখেছেন:

এখানে ভর বলতে তো মনে হল ওজন বুঝাচ্ছে!

তাহলে তো ভার বা ওজন বলার কথা।

শিপলু ভাই আপনার লেখা-

শিপলু লিখেছেন:

কেন্দ্রে কিন্তু কোন বস্তুরই ভর শুন্য হয় নি। যখন পৃথিবীর পৃষ্ঠে বা বাইরে কোন বস্তু থাকে তখন পৃথিবী তাকে আকর্ষন করে পুরো ভর দিয়ে যে দিকে পৃথিবী আছে সেই দেকে। 

আমি যা জানি এটাকে তো ওজন বলে- বস্তুকে পৃথিবীর কেন্দ্রর দিকে আকর্ষণের পরিমান। ওজন পরিপর্তিত হয়। কিন্তু বস্তুর ভর তো নির্দিষ্ট। পৃথিবীতে যা চাঁদেও তা। উপরে যা, কেন্দ্রেও তা।

"সংকোচেরও বিহ্বলতা নিজেরই অপমান। সংকটেরও কল্পনাতে হয়ও না ম্রিয়মাণ।
মুক্ত কর ভয়। আপন মাঝে শক্তি ধর, নিজেরে কর জয়॥"

২৮

Re: বিজ্ঞান নিয়ে কিছু প্রশ্ন

আরণ্যক লিখেছেন:

শিপলু ভাই আপনার লেখা-

শিপলু লিখেছেন:

কেন্দ্রে কিন্তু কোন বস্তুরই ভর শুন্য হয় নি। যখন পৃথিবীর পৃষ্ঠে বা বাইরে কোন বস্তু থাকে তখন পৃথিবী তাকে আকর্ষন করে পুরো ভর দিয়ে যে দিকে পৃথিবী আছে সেই দেকে। 

আমি যা জানি এটাকে তো ওজন বলে- বস্তুকে পৃথিবীর কেন্দ্রর দিকে আকর্ষণের পরিমান। ওজন পরিপর্তিত হয়। কিন্তু বস্তুর ভর তো নির্দিষ্ট। পৃথিবীতে যা চাঁদেও তা। উপরে যা, কেন্দ্রেও তা।

যথেষ্ঠ সহজ করে বোঝানোর চেষ্টা করলাম। তারপরও যদি না বুঝতে পারেন। তাহলে এর চাইতে সহজ করা সম্ভব নয়।

যাই হোক, ওজনের সঙ্গা যা দিয়েছেন তাও ঠিক আছে। পৃথিবীর ভরের কথা যা বলেছেন তাও ঠিক।  আমি ওজন টার্মটা ইউজ করিনি। এই যা। কারণ এটা যথেষ্ট কনফিউশনের সৃষ্টি করে যখন এটার সঠিক অর্থ একজন বোঝে আরেকজন বোঝে না।

পৃথিবীর ভর 5.972x10^24 কেজি। এটা সবখানেই সমান। এটা পরিবর্তন হবে না। কিন্তু আমি যখন বলছি পুরো ভরটা দিয়ে আকর্ষন করে তখন আসলে এই 5.972x10^24 এর সাথে অভিকর্ষজ ত্বরণ g কে গুন করলে বল পাওয়া যাবে। এটাকে ওজন বলে। এখন এটাকে যদি আমি ওজন বলি তাহলে নেক্সট পার্টে যখন আংশিক ভরের আলোচনা করছি তখন সাধারণ ইউজারের জন্য কম্পেয়ার করতে সমস্যা হবে।
আপনিই চিন্তা করুন। একটা টার্ম হল "আংশিক ভর"। এটাকে "ওজন" এর সাথে তুলনা করতে সুবিধা নাকি "পুর্ণ ভর" -এর সাথে তুলনা করতে সুবিধা হবে?

Feed থেকে ফোরাম সিগনেচার, imgsign.com
ব্লগ: shiplu.mokadd.im
মুখে তুলে কেউ খাইয়ে দেবে না। নিজের হাতেই সেটা করতে হবে।

শিপলু'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি GPL v3 এর অধীনে প্রকাশিত

২৯

Re: বিজ্ঞান নিয়ে কিছু প্রশ্ন

আমার যত সমস্যা লিখেছেন:
অরিহন্ত লিখেছেন:

এককোষী পর্যায়ে প্রাণির দেহে চোখ এসে গিয়েছিল। ইউগ্লিনা নামের একটি এককোষী  প্রাণিতে প্রথম আলোক সংবেদী একটি বিন্দু দেখতে পাওয়া যায়, যা চোখের প্রাথমিক রূপ।

গুগলে কি বলে সার্চ করলে বিস্তারীত পাব ?

Evolution of Eye সার্চ করুন।
আর প্রশ্ন করতেই থাকুন। আমার কোন সমস্যা নেই।

Life IS Neither TEMPEST, NOR A midsummer NIGHT'S DREAM, BUT A COMEDY OF Errors,
ENJOY AS U LIKE IT

৩০

Re: বিজ্ঞান নিয়ে কিছু প্রশ্ন

https://lh4.googleusercontent.com/-6xJDyrItIxY/UQqvbkfHBwI/AAAAAAAABtU/K959OlOGfAw/s800/Earth-force-1.png
উপরের চিত্রের পুরা গোলকটার সাথে ভেতরে ১ ও ৯ নংএর মধ্যে থাকা স্টারটির আকর্ষন যদি চিন্তা করা যায় তাহলে এভাবে ব্যাখ্যা করা যায়:
১। ১ নং এবং ৫নং অংশ স্টারটিকে বিপরীত দিকে টানে কিন্তু ১ নং কাছে হওয়াতে এর জোর বেশি।

২। ২নং এবং ৮ নং অংশ স্টারটিকে যেভাবে টানে এতে স্টারটি ডানে বামে যেতে পারবে না (ডানে বামে পরষ্পরের বলকে নিষ্ক্রিয় করবে ২ ও ৮ নং) তবে লব্ধি বল উপরের দিকে টানবে।

৩। এভাবে ২নং, ১নং এবং ৮ নং অংশ স্টারকে উপরের দিকে টানবে। অপরপক্ষে ৩নং, ৪নং, ৫নং, ৬নং ও ৭ নং অংশ স্টারকে নিচের দিকে টানবে। নিচের দিকে টানা পার্টি সংখ্যায় বেশি হলেও স্টার থেকে এদের দূরত্ব বেশি হওয়ায় মোট বল বেশি হবে না, বরং ১,২ ও ৮ নংএর সম্মিলিত বলের সমান হবে, ফলে ১নং থেকে ৮ নং অংশের কারণে স্টারের সাথে টানাটানির/আকর্ষণের লব্ধি বল শূন্য।

৪। ফলশ্রুতিতে স্টার এবং ৯ নং অংশের মধ্যে আকর্ষণ বলটুকুই কার্যকর বল হিসেবে কাজ করবে।

তাই কেন্দ্রের যত কাছে যাওয়া যাবে ৯ নং অংশ তত ছোট হবে ফলে মোট আকর্ষন বলও কমবে। কেন্দ্রে অবস্থানকালে স্টারটির উপর চারদিকে থেকে সমস্ত আকর্ষণ বলের লব্ধি শূন্য হবে।

===

শিপলু লিখেছেন:

....
এবার আসি গতির কথায়। যখন আপনার  উপর মোট প্রয়োগকৃত বলের পরিমান ধীরে ধীরে কমতে থাকবে তখন ত্বরণও ( বেগ বৃদ্ধির  হার ) কমতে থাকবে। F=ma অনুসারে Force কমতে থাকা মানে acceleration কমা। কিন্তু ভর (mass) কখনও কমবে না। আপনার ভর যদি ৬০ কেজি হয় তাহলে তখনও ৬০ কেজিই থাকবে। ত্বরণ কমতে থাকা মানেই বেগ বৃদ্ধির হার কমতে থাকা। মানে আসলে বেগ হ্রাসের হার বাড়া। অর্থাৎ প্রতি সেকেন্ডে আপনি যদি ১০ মিটার করে এগোতেন। এখন প্রতিসেকেন্টে এই ১০ মিটার আস্তে আস্তে কমতে থাকবে। হয়ত নেক্সট সেকেন্ডে এটা হবে ৯ মিটার। এরপর ৮ মিটার। এভাবে আপনি ১ মিটার করে বেগ বা গতি হারাতে থাকবেন। যখন কেন্দ্রে পৌছাবেন তখণ আপনার বেগ অলরেডী শুন্য হয়ে গেছে।
.....

লাল করা এই অংশটায় একটু সমস্যা আছে।
ত্বরণ কমতে থাকা মানে বেগ বৃদ্ধির হার কমতে থাকা। অর্থাৎ আপনার বেগ যদি এই মূহুর্তে ২০০ মিটার/সেকেন্ড হয় সমান বল প্রয়োগ হতে থাকে যার ফলে ত্বরন ১০ মিটার/সেকেন্ড^২ হয় তাহলে পরের সেকেন্ডে আপনার বেগ
২ নং সেকেন্ডে = ২১০ মিটার/সেকেন্ড
৩ নং সেকেন্ডে = ২২০ মিটার/সেকেন্ড
৪ নং সেকেন্ডে = ২৩০ মিটার/সেকেন্ড

কিন্তু বল যদি কমতে থাকে তাহলে ত্বরন কমতে থাকবে হয়তে ১০, ৯ ৮ এভাবে এতে বেগের পরিমাপগুলো এমন হত
১ নং সেকেন্ডে = ২০০ মিটার/সেকেন্ড
২ নং সেকেন্ডে = ২১০ মিটার/সেকেন্ড
৩ নং সেকেন্ডে = ২১৯ মিটার/সেকেন্ড
৪ নং সেকেন্ডে = ২২৭ মিটার/সেকেন্ড

অর্থাৎ এতেও গতিবেগ বাড়ছে কিন্তু আগের মত দ্রুত হারে নয়। এজন্যই কাল্পনিক সেই টানেল দিয়ে কেন্দ্রের দিকে এগোনোর সময় আকর্ষণ বল কমতে থাকলেও গতিবেগ বাড়তে থাকে।

===

জীবানু পরীক্ষার কোনো হোম মেড পদ্ধতি জানা নাই। জীবানু নির্নয়ের জন্য পানিকে স্পেশাল ফিল্টারের মধ্য দিয়ে অতিক্রম করাতে হয় প্রথমে, এতে জীবানুগুলো ফিল্টার পেপারে আটকে যায়। এই ফিল্টার পেপারটাকে গ্রোথ হরমোন বা ফুডের মধ্যে রেখে ইনকিউবেটরে রাখতে হয় ১৪ ঘন্টা। এতে জীবানুগুলো কলোনি তৈরী করে। কলোনিগুলোর আকৃতি আলপিনের বুটুলি মাথার মত সাইজের হয়। প্রতিটি জীবানুর জন্য একটি করে কলোনি হয়। সেই কলোনির সংখ্যা গুনে জীবানুর সংখ্যা নির্নয় করতে হয়। একাধিক জীবানু জড়াজড়ি করে থাকলে সেই কলোনির আকার অন্যগুলোর চেয়ে বড় হয়, তাই সেটা গণনা করার সময়ে ঠিক ভাবেই গণনা করা যায়।

নমুনা সংগ্রহ করার বিশেষ পদ্ধতি ও নিয়ম আছে। এছাড়া নমুনাকে ঠান্ডা আইস বক্সে রাখতে হয়, এবং সংগ্রহের ৪ ঘন্টার মধ্যে পরীক্ষা শুরু করতে হয়।

এর চেয়ে শর্টকাট পদ্ধতি থাকলে আমাদের ইউনিভার্সিটির ল্যাবরেটরীর জন্য একটা খরিদ করতে ইচ্ছুক হব।
একটা অনলাইন রেফারেন্স

শামীম'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

৩১

Re: বিজ্ঞান নিয়ে কিছু প্রশ্ন

লব্ধি বলের ব্যাপারটা দারুন বুঝিয়েছেন শামীম ভাই   clap
ব্যাপারটা আরেক ভাবেও দেখা যায়, পৃথিবীটাকে কেন্দ্র বরারব সমান ভরের দুইটা স্লাইস করি। এবার যে কোন একটা স্লাইসে লম্বালম্বি ভাবে মার্বেল ফেললে, মার্বেলটা যতই নিচের দিকে যাক, কেন্দ্র অতিক্রম করার আগে ত্বরন ঋনাত্বক হবে না, কারন অপর স্লাইস তার সমস্ত ভরদিয়ে উল্টা দিক থেকে টানছে। কেবল মাত্র কেন্দ্র অতিক্রম করে অপর স্লাইসে ঢুকার পরই প্রথম স্লাইসের সমস্ত ভর উল্টা দিকে থাকবে এবং ত্বরন ঋনাত্বক হবে।


আমার যত সমস্যা লিখেছেন:

সেটা তো আমিও জানতাম। কিন্তু কিছু দিন আগে একজনের কাছে শুনলাম  পৃথিবী প্রচন্ড গতিতে ঘুরছে তাই এই প্রশ্ন করলাম।

প্রচন্ড গতিতে ঘুরছে তো বটেই। এর কারন পৃথিবীটা অনেক বড়। ২৪ ঘন্টায় ৩৬০ ডিগ্রি বললে গতি খুব বেশী মনে না হওয়াটাই স্বাভাবিক।
কিন্তু পৃথিবীর পরিধী যেহেহু ৪০ হাজার কিলোমিটারেরও বেশী, পৃথিবীর বাইরে মহাশুন্য খেকে কেউ একজন বিষুবরেখা বরারর এর গতি মাপলে এর গতি বেগ হবে সেকেন্ড প্রায় ৫'শত মিটার!!

৩২ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন মারুইস (০১-০২-২০১৩ ০৪:৩৭)

Re: বিজ্ঞান নিয়ে কিছু প্রশ্ন

শর্তাধীন লিখেছেন:

    ধরুন মার্বেলকে না ফেলে ঠিক কেন্দ্রে ছেড়ে দেয়া হলো, এখন মার্বেল এখানে ভরশূন্য এবং স্থির. এখন মার্বেলের উপর কেন্দ্রের আকর্ষন কি শূন্য?


ওজন জিনিসটা খুব ই আপেক্ষিক... আপনার ভর ৬০ কেজি হলে যেখানেই যান সেখানেই ৬০ থাকবে... ওজন বাড়ে বা কমে বা ০  হয়...... সোজা কথায় আপনার থেকে অনেক বড় কিছু আপনাকে  যে বল এ টানবে সেটাই আপনার ওজন... ধরেন স্বাভাবিক স্বাস্থের ৩ জন ব্যক্তি... ১জন বিগ শো, ১জন আপনার কোন ফ্রেন্ড,আরেকজন ২মাস এর শিশু ...... এখন বিগ শো যে শক্তি তে আপনাকে টানবে সেই শক্তি তে আপনার ফ্রেন্ড আপনাকে টানতে পারবে না,আবার ফ্রেন্ড যে শক্তি তে টানবে সেই শক্তিতে ২মাসের শিশু আপনাকে টানতে পারবে না... যদি ধরি কে আপনাকে কত জোর এ টানলো সেটাই আপনার ওজন???তবে সব ক্ষেত্রেই আপনার ভর ঠিক ছিল ,কিন্তু ওজন টা পরিবরতন হয়েছে...... এখন ধরেন পৃথিবী,আপনার পায়ের তলায় যতটুকু মাটি আছে সেটাই আপনাকে টানবে,ফলে আপনি ওজন অনুভব করবেন...  ধরেন পৃথিবীর কেন্দ্র থেকে আপনার পা পর্যন্ত দুরত্বকে ব্যসার্ধ ধরে
বৃত্ত আকা হল,ফলে আপনি বৃত্তের একদম উপরে দারিয়ে,বৃত্ত আপনাকে তার কেন্দ্র বরাবর টানছে,এখন আপনি যতই নিচের দিকে নামবেন ততই আপনি বৃত্তের ব্যসার্ধ কমাচ্ছেন!! মানে আপনার পায়ের নিচের পৃথিবী আগের চেয়ে তত ছোট হয়ে যাচ্ছে,তাই তার আকর্ষন ও কমছে !! ফলে আপনার ওজন ও কমছে !! আপনি যখন কেদ্রে যাবেন তখন সে বৃত্ত ০ হয়ে যাবে,ফলে আপনার ওজন ও ০ হয়ে যাবে... কেন্দ্র বরবর আমরা আকর্ষিত হই বলে ওদিক কে "নিচের দিক" ভাবি।। আপনি যখন কেন্দ্রে যাবেন সেখানে কোন "নিচের দিক" নাই !!!! সব ই উপরের দিক, এবং সব দিকেই সমান সঙ্খক মাটি আপনাকে সমান ভাবে টানবে তাই আপনি কোন ওজন অনুভব করবেন না,করন ৪ দিক এ ৪ জন বিগ শো আপনাকে টানলে আপনি আগের যায়গাতেই থাকবেন, করন ৪ জন এর শক্তি ই সমান, যখন কেঊ আপনাকে অন্যদের চেয়ে বেশি জোর এ টানবে তখন ই আপনি ওজন অনুভব করবেন...... আর মারবেল টা তার গতির করনে কেন্দ্রে গিয়ে নাক বরাবর এগিয়ে যাবে,এবং যত এগিয়ে যাবে ততই আবার সেই বৃত্তের ব্যসার্ধ ও বাড়তে থাকবে,ফলে মারবেলের গতি ও কমতে থাকবে,গতি কমতে কমতে ০ হলে সে আবার নিচের দিক(কেন্দ্রের দিক) এ আসতে থাকবে এবং আগের কাহীনি চলতে থাকবে......।। খুব সহজ ভাষায় বোঝাতে চেষ্টা করলাম......।যদিও ভুল হল অনেক,বাদ গেলো ও অনেক কথা,তবুও বেপারটা এরকম ই...

কিছুই নাকি দেইনি তোমায়
বলো কে করেছে নিঃস্ব আমায়

৩৩ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন সরদার (০১-০২-২০১৩ ১১:১৩)

Re: বিজ্ঞান নিয়ে কিছু প্রশ্ন

শিপলু লিখেছেন:

এখন প্রতিসেকেন্টে এই ১০ মিটার আস্তে আস্তে কমতে থাকবে।

না ভাইয়া, লাল করা অংশে সমস্যা নেই। শিপলু ভাই কিন্তু ঐ ”দশ মিটার“ সংখ্যাটার উপর জোর দিয়েছেন। আর এই ”দশ মিটার“ যে আসলে ত্বরণ, তা উনার লেখা থেকেই স্পষ্ট। তিনি বলেছেন, ”দশ মিটার“ আস্তে আস্তে কমতে থাকবে। মানে ত্বরণ বা বেগ বৃদ্ধির হার আস্তে আস্তে কমতে থাকবে। তাহলে তো কথাটা ঠিকই থাকল।

শিপলু লিখেছেন:

যখন কেন্দ্রে পৌছাবেন তখণ আপনার বেগ অলরেডী শুন্য হয়ে গেছে।

এখানে, ডিরেক্ট বেগ না বলে ত্বরণ বা বেগ বৃদ্ধির হার বলা উচিত ছিল।

অফটপিক:
শামীম ভাইয়া, একটা বাগ মনে হয় ধরা পড়ল। আমি যখন আপনার পোস্ট থেকে শিপলু ভাইয়ের কমেন্ট কোট করছিলাম, তখন শিপলু ভাইয়ার জায়গায় আপনার নাম চলে এসেছিল। এই যে দেখুন,

[quote=শামীম]এখন প্রতিসেকেন্টে এই ১০ মিটার আস্তে আস্তে কমতে থাকবে।[/quote]
[quote=শামীম]যখন কেন্দ্রে পৌছাবেন তখণ আপনার বেগ অলরেডী শুন্য হয়ে গেছে।[/quote]

৩৪

Re: বিজ্ঞান নিয়ে কিছু প্রশ্ন

সরদার লিখেছেন:

... ....

ব্যাপারটা শিপলুর, আমার বা আপনার বুঝতে সমস্যা না হলেও যে মোটেও ধারনা রাখে না তার পক্ষে কনফিউজড হওয়া বা ভুল জানার জন্য যথেষ্ট। এজন্যই ... ...  smile

এছাড়া ত্বরন শূন্য হলেও বেগ যে বৃদ্ধি পেয়ে সর্বোচ্চ জায়গায় পৌঁছে কিভাবে সেটাও কারো কারো কাছে পরিস্কার ছিল না -- যা আগের কিছু মন্তব্য দেখে মনে হল ---- তাই জিনিষটাকে আরেকটু সম্প্রসারিত করলাম।

কোট করার বাগের ব্যাপারটা জানা ছিল না -- পরবর্তীতে সকলেই ব্যাপারটা আবার খেয়াল করে রিপোর্ট করলে ভাল হয়। ধর বাগ, মার বাগ।

শামীম'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

৩৫

Re: বিজ্ঞান নিয়ে কিছু প্রশ্ন

মারুইস লিখেছেন:

ওজন জিনিসটা খুব ই আপেক্ষিক......

ধন্যবাদ, ঠিক বলেছেন - সবদিক থেকে আকর্ষন থাকবে, তাই এই আকর্ষনহীন অবস্থা.

৩৬

Re: বিজ্ঞান নিয়ে কিছু প্রশ্ন

শর্তাধীন লিখেছেন:
মারুইস লিখেছেন:

ওজন জিনিসটা খুব ই আপেক্ষিক......

ধন্যবাদ, ঠিক বলেছেন - সবদিক থেকে আকর্ষন থাকবে, তাই এই আকর্ষনহীন অবস্থা.

ধন্যবাদ

কিছুই নাকি দেইনি তোমায়
বলো কে করেছে নিঃস্ব আমায়

৩৭

Re: বিজ্ঞান নিয়ে কিছু প্রশ্ন

শিপলু লিখেছেন:

যথেষ্ঠ সহজ করে বোঝানোর চেষ্টা করলাম। তারপরও যদি না বুঝতে পারেন। তাহলে এর চাইতে সহজ করা সম্ভব নয়।
যাই হোক, ওজনের সঙ্গা যা দিয়েছেন তাও ঠিক আছে। পৃথিবীর ভরের কথা যা বলেছেন তাও ঠিক।  আমি ওজন টার্মটা ইউজ করিনি। এই যা।

এখানে বুঝা না বুঝার কিছু নাই। আমি বোল্ড করা অংশ টুকুই বলতে  চেয়েছিলাম।

আরণ্যক লিখেছেন:

এখানে ভর বলতে তো মনে হল ওজন বুঝাচ্ছে!

এই তো!

"সংকোচেরও বিহ্বলতা নিজেরই অপমান। সংকটেরও কল্পনাতে হয়ও না ম্রিয়মাণ।
মুক্ত কর ভয়। আপন মাঝে শক্তি ধর, নিজেরে কর জয়॥"

৩৮

Re: বিজ্ঞান নিয়ে কিছু প্রশ্ন

সবাইকে ধন্যবাদ। বিসেশ করে শিপলু ও শামীম কে।