সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন রাশেদুল ইসলাম (৩০-০৯-২০১৩ ১৩:১১)

টপিকঃ ভিনগ্রহের মানুষ (পর্ব ১)

অষ্টাদশ শতাব্দীর গোড়ার দিকে তুর্কী নৌবাহিনীর অধিকর্তা অ্যাডমিরাল পীরি রইসের কাছে ছিল কিছু অতি প্রাচীন ম্যাপ। সেগুলো পাওয়া গিয়েছে টোপকাপী প্রাসাদে। বর্তমানে বার্লিন স্টেট লাইব্রেরিতে এর দুটো ম্যাপ আছে। ভূমধ্যসাগর আর মরুসাগর নিখুঁতভাবে আঁকা আছে এদুটোতে।
http://upload.wikimedia.org/wikipedia/commons/7/70/Piri_reis_world_map_01.jpg
অ্যাডমিরাল পীরি রইসের ম্যাপ।

ম্যাপ দুটো পাওয়ার পর পরই পরীক্ষা করিয়ে নেয়া হয়েছে বিখ্যাত মার্কিন মানচিত্রকর আর্লিংটন এইচ. ম্যালারীকে দিয়ে। গভীর পরীক্ষা নিরীক্ষার পর মানচিত্রকর জানালেন, সমস্ত ভৌগোলিক তথ্যই ম্যাপগুলোতে বর্তমান। ম্যাপগুলো নিয়ে এরপর ওয়াল্টার্সের সঙ্গে পরামর্শ করেন তিনি। দুজনে মিলে ম্যাপ দুটোকে আধুনিক ভুগোলকের ওপর ফেলে পরীক্ষা করে এক অদ্ভুত রোমাঞ্চকর তথ্য আবিষ্কার করেন। শুধু ভূমধ্যসাগর আর মরুসাগরের চিত্রই ত্রুটিহীন নিখুঁত ভাবে আঁকা হয়নি, উত্তর এবং দক্ষিণ আমেরিকার উপকূলভুমি, এমন কি দক্ষিণ মেরুর সীমারেখা পর্যন্ত দেয়া আছে তাতে। দেশগুলোর অভ্যন্তরভাগের স্থান বিবরণও দেয়া আছে স্পষ্ট। নিখুঁত নৈপুণ্যে আঁকা হয়েছে পাহাড়, পর্বত, দ্বীপ, নদী, মালভূমি ইত্যাদি।

উনিশশো সাতান্ন সাল ভূ-প্রাকৃতিক বৎসর নামে খ্যাত। ম্যালারী আর ওয়াল্টার্সের দেখার পর ওই বছরই ম্যাপ দুটো পরীক্ষার জন্যে তুলে দেয়া হয় জেসুইট ফাদার লাইনহ্যামের হাতে। ওয়েস্টন মানমন্দিরের অধ্যক্ষ এবং মার্কিন নৌবাহিনীর মানচিত্রকর তিনি। চুলচেরা পরীক্ষার পর ঘোষণা করেন ম্যালারী আর ওয়াল্টার্সের কথা ঠিক, ম্যাপ দুটো অসম্ভব রকম ত্রুটি শূন্য। ম্যাপে অঙ্কিত দক্ষিণ মেরুর কিছু কিছু পর্বতমালা মাত্র কিছুদিন আগে আবিষ্কৃত হয়েছে। একটা তো হয়েছে এই সেদিন, উনিশশো বায়ান্ন সালে, এর নকশা আঁকা হয়েছে প্রতিধ্বনি পরিমাপক যন্ত্রের সাহায্যে। কিন্তু হাজার হাজার বছর আগে ওই ম্যাপে ওগুলো আঁকা হলো কি করে? প্রতিধ্বনি পরিমাপক যন্ত্রের নামও তো শোনার কথা নয় তখনকার মানুষের?

অদ্ভুত একটা কথা বলেছেন অধ্যাপক চার্লস এইচ. হ্যাপগুড এবং অঙ্কশাস্ত্রবিদ ডাবলিউ. স্ট্রেচান। কৃত্রিম উপগ্রহ থেকে তোলা পৃথিবীর বিভিন্ন জায়গার ছবির সঙ্গে নাকি অদ্ভুত মিল আছে পীরি রইসের ম্যাপের।

কায়রোর ওপরের আকাশ থেকে পৃথিবীর ছবি তুলেছিল একটা উপগ্রহ। ফিল্মটা ধোয়ার পর যে ছবি এল, তাতে কায়রো থেকে পাঁচ হাজার মেইল ব্যাসার্ধের মধ্যে যা কিছু ছিল সবই পরিষ্কার ফুটে উঠেছে। এর কারণ, এই জায়গাটুকু ছিল সরাসরি ক্যামেরার লেন্সের নিচে। কিন্তু এর বাইরের মহাদেশগুলোর ছবি বেঁকে গেছে। লেন্সের কাছ থেকে দূরত্ব যার যত বেশি সেটা তত বাঁকা। আমাদের পৃথিবী গোলাকার, তাই যে মহাদেশগুলো লেন্সের কেন্দ্র থেকে তফাতে ছিল, ওগুলো বেঁকে গিয়েছিল। এতে দক্ষিণ আমেরিকাকে লম্বালম্বি ভাবে অদ্ভুত বাঁকা দেখা যায়। পীরি রইসের ম্যাপেও কিন্তু ঠিক তাই আছে। কি করে ঘটল এমনটা?

বলা কি যায় না, আকাশ থেকেই তোলা হয়েছিল পীরি রইসের ম্যাপের ছবি? যদি তাই হয়, নিশ্চয়ই আমাদের পূর্বপুরুষেরা তোলেনি সেই ছবি? কারণ আকশযান ছিল না তাদের, ছিল না ওরকম ছবি তোলার অতি উন্নতমানের যন্ত্রপাতি। তাহলে কে তুলল?

পীরি রইসের ম্যাপগুলো কিন্তু আসল ছবি নয়, নকল। আসল ছবি দেখে আঁকা হয়েছিল। আসল ছবি যে তুলেছিল সে উড়তেও জানত, ছবি তোলার যন্ত্রপাতিও ছিল তার কাছে। কে এই ব্যক্তি?


রাকিব হাসানের গ্রহান্তরের আগন্তুক ও ভিনগ্রহের মানুষ অবলম্বনে।

চলবে......

Re: ভিনগ্রহের মানুষ (পর্ব ১)

চলুক.......।সত্য আর মিথ্যা যাই হোক পড়তে চমৎকার লাগে.......।পরের পর্ব দ্রুত চাই  smile

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন তার-ছেড়া-কাউয়া (২৯-০৯-২০১৩ ১৮:১০)

Re: ভিনগ্রহের মানুষ (পর্ব ১)

পড়তে ভালো লাগলেও রেলিয়ান ট্রল হবার সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে  neutral

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন invarbrass (২৯-০৯-২০১৩ ১৯:২৩)

Re: ভিনগ্রহের মানুষ (পর্ব ১)

আহা!  dream ছুটুবেলায় দানিকেনের বইতে কতই না পড়েছি পিরী রেইসের বিস্ময়কর, "বহির্জাগতিক", "ভিনগ্রহবাসীর প্রমাণ" ম্যাপের কাহিনী (রকিব হাসানেরও বারমুডা ট্রায়াঙল বিষয়ক বইতেও কিছু ছিলো সম্ভবতঃ) বড় হবার পরে বুঝলাম সবই গাঁজাপ্যাথেটিক গুলগাপ্পি।  worried

পীরি রেইসের ম্যাপটি নিয়ে বিভিন্ন মীথ এখানে (উইসকনসিন ইউনি) খন্ডন করেছে। ম্যাপের বিভিন্ন অসংগতি নিয়ে কপিপেস্ট মেরে দিলামঃ

http://i.imgur.com/K76Ohqv.gif
Here's a map that does show the earth from space as seen from a point that roughly matches the Piri Reis Map (20N, 30W). We can see that any similarity between this map and the Piri Reis Map, apart from what terrestrial navigators knew in the early 1500's, is imaginary.
This projection is called an orthographic projection. Draftsmen of the 1500's would have been perfectly capable of drawing such a map given the geographic coordinates. You do not need to go into space to do it. For one thing, by this time there were globes to use as models.
http://i.imgur.com/wcrS3dA.gif
At left is the same map with the Piri Reis map superimposed on it. The conclusions don't change:
Europe and Africa, pretty good.
South America, fair. In fact the crudeness of the cartography of the Caribbean coast is more obvious here.
Similarity to North America: vague at best.
Similarity to Antarctica: imaginary.
The fit is actually not as good as the fit with the azimuthal equidistant map shown above.

Calm... like a bomb.

Re: ভিনগ্রহের মানুষ (পর্ব ১)

invarbrass লিখেছেন:

গাঁজাপ্যাথেটিক

lol2 lol2 lol2

যাইহোক পড়তে বসলে কিন্তু বেশ লাগে, নানান কিছু ভাবার সুযোগ হয়।

এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের নিমন্ত্রণ।

Re: ভিনগ্রহের মানুষ (পর্ব ১)

পরের পর্বের জন্য আপেক্ষায় আছি ।

কাজকে বলেন নামাজ আছে, নামাজ কে বলবেন না কাজ আছে.......
premium Place
xpassplace

Re: ভিনগ্রহের মানুষ (পর্ব ১)

আগামীকাল পরের পর্ব পাবেন, ইনশাআল্লাহ্‌।