২১ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন অরুণ (০৫-০৮-২০১৩ ০০:৩২)

Re: শান চিকেন টিক্কা রেসিপি (অপরিবর্তিত)

বাংলারমাটি লিখেছেন:

ফ্রিল্যান্স অনুবাদক হিসেবে মাঝে মাঝেই এই টাইপ অনুবাদের পরিমার্জনা/সম্পাদনা করতে হয়। তাই অবাক হলাম না। ভারতীয় দাদাদের করা অনুবাদগুলো আসলেই অসাধারণ। উনারা রেট দেয় ফকিরের মত, কাজও করে তেমন। পরিমার্জনা/সম্পাদনা করতে মাথার চুল ছিঁড়তে ইচ্ছা করে। পুরো অনুবাদের ৬০% নতুন করে লিখতে হয়।  angry

আসলে আপনি কিরকম সংস্থার সাথে কি রেটে কাজ করছেন সেটা প্রধান বিচার্য ৷ আমি যাদের সাথে ট্রান্সলেসনের কাজ করি (বাংলা থেকে অসমীয়া, মারাঠি, হিন্দী, ওড়িয়া) তাদের শব্দ প্রতি রেট যথেষ্টই এবং কাজ ও যথেষ্ট ভালো....৷ এখন আপনি যেমন গুড় দেবেন সেরকমই মিষ্টি হবে...... আবার গুড়ের কোয়ালিটিটাও দেখতে হবে৷

আর উদাসীনের ছবিটা একটু ভালো করে দেখুন.... বাংলা হরফটা সম্ভবত ভারতের নয় ৷ অ দেখলে বোঝা যায়, সকল ভারতীয় সফ্টওয়্যার কোম্পানীর হরফের অ গুলোর ক্ষেত্র অ এর মাথার থেকে একটা দাগ মাত্রার সাথে লেগে থাকে আর বাংলাদেশের সফ্টওয়্যার কোম্পানী গুলির তৈরি অ তে অ এর মাথার সাথে মাত্রার কোন যোগ থাকে না ৷


বাংলারমাটি লিখেছেন:

পরিমার্জনা/সম্পাদনা করতে মাথার চুল ছিঁড়তে ইচ্ছা করে। পুরো অনুবাদের ৬০% নতুন করে লিখতে হয়।  angry

কলকাতার বা ভারতের প্রকৃত বাংলা কাজের সম্পর্কে আপনার কোন ধারণাই নেই ৷ দুঃখিত এমন রূঢ় ভাবে সত্যিটা বললাম বলে ৷

গল্প-কবিতা - উদাসীন - http://udashingolpokobita.wordpress.com/
ছড়া - ছড়াবাজ - http://chhorabaz.wordpress.com/

২২

Re: শান চিকেন টিক্কা রেসিপি (অপরিবর্তিত)

অরুণ দা,
আমি ক্লাইন্ট নই, ফ্রিল্যান্সার। তাই গুর দেওয়ার প্রশ্নই আসে না। বরং গুর খাওয়ার প্রশ্ন আসে। tongue
যেসকল ভারতীয় অনুবাদক রাও উচ্চ রেটে কাজ করে তাদের কাজের মান নিয়ে কোন সন্দেহ নাই। তারা যোগ্য বলেই ঐ রেট হাঁকতে দ্বিধা করে না। যারা কম রেটে কাজ করে, আমি মুলত তাদের বুঝিয়েছিলাম। আপনি নিশ্চয় অস্বীকার করবেন না, এদের সংখ্যা সত্যিকারের অনুবাদকের সংখ্যার চেয়ে অনেক বেশি।
অবশ্য বর্তমানে বাংলাদেশি কতিপয় অতিউৎসাহী তরুণেরা যেভাবে অনুবাদক হিসেবে কাজ করার দিকে ঝুঁকছে, তাতে অচিরেই তাদের চেয়ে বাংলাদেশিদের সংখ্যা বেশি হয়ে যাবে সে বিষয়ে আমার কোন সন্দেহ নাই। তখন হয়ত, আমার কথাটা আপনি আমাকেই ফিরিয়ে দেবেন।
যাহোক, আগর বক্তব্যর জন্য ক্ষমা চাইছি। বক্তব্যটা একটু বেশিই এগ্রেসিভ হয়ে গেছে। ভাল থাকবেন।

হুজুর কইছে, "কোরআন শরীফে আছে- তোমরা নামাজ থেকে বিরত থাক।" আমি তাই নামাজ পড়ি না। হুজুর যদি ইচ্ছা করে "অপবিত্র অবস্থায়" শব্দ দুটো বাদ দেয়, তার জন্য তো আমি দায়ী না।