টপিকঃ পরিকল্পিত ডিজাইনঃ God Must Be Crazy - হোরাস

- আল্লাহ যা ইচ্ছা সৃষ্টি করেন। নিশ্চয়ই আল্লাহ সবকিছু করতে সক্ষম।
- Allah creates what He pleases; surely Allah has power over all things.
সূরা নূর- আয়াত নং-৪৫(২৪ : ৪৫)

পৃথিবীর সবগুলো প্রধান ধর্মেই মানুষ কিংবা অন্যান্য প্রাণীদের উৎপত্তি সম্পর্কে মোটামুটি ভাবে ইশ্বরকে এভাবেই গুনাণ্মিত করা হয়েছে। এ মহাবিশ্বের সবকিছুই তার সুপরিকল্পিত ডিজাইনের ফলাফল। আজকের পোস্টে আমরা প্রকৃতিতে-প্রাণীজগতে জন্ম/সৃস্টি প্রক্রিয়ায় ঘটে এমন কিছু ঘটনা যা ইশ্বর কতৃক সুপরিকল্পিত ভাবে ডিজাইন করা সেরকম কিছু ঘটনা সম্পর্কে অবহিত হব। ।

প্রাণীজগতে শিশুহত্যা (Infanticide) এবং সহোদর হত্যা (Siblicide) অহরহই ঘটে। জন্মের পরপরই, যখন বাবা-মা কিংবা অন্য সদস্যরা উদ্দেশ্যপ্রনোদিত ভাবে কোন শিশুকে হত্যা করে তখন তাকে Infanticide বলে। আর এই হত্যা যখন ভাই-বোনের হাতে ঘটে তখন তাকে বলা হয় Siblicide। Siblicide কখনও কখনও মাতৃ গর্ভে থাকতেই ঘটে থাকে।

আগে এ ঘটনাগুলোকে ব্যতিক্রম হিসাবে মনে করা হলেও বিজ্ঞানীদের দীর্ঘ দিনের পর্যবেক্ষণ থেকে আমরা জানতে পারছি যে এই ধরণের হত্যার ঘটনা অনেক স্তন্যপায়ী প্রাণী, পাখী, মাছ, কিংবা কীট পতঙ্গের মধ্যে আসলে বহুল প্রচলিত। পুরো প্রাণীজগতেই জন্মের পরপরই কিংবা শিশু অবস্হাতেই সহোদরদের মধ্যে প্রতিযোগীতা দেখা যায় যা কিনা পরবর্তীতে হত্যার মাধ্যমে নিষ্পত্তি হয়। অনেক সময়ই এই হত্যাকান্ডে মা-বাবা অংশগ্রহণ করে অথবা এটাকে ঠেকাতে কোন ভূমিকাই রাখে না। কিছু উদাহরণ দেখা যাকঃ

১) স্যান্ড শার্কঃ মায়ের গর্ভে থাকা অবস্হাতেই শিশু হাঙরেরা একজন আরেকজনকে আক্রমণ করে হত্যা করে এবং তাদের খেয়ে ফেলে যা তাদের পুষ্টি জোগায়। শুরুতে ২০টির মত শিশু হাঙর মায়ের গর্ভে বড় হতে শুরু করলেও ভূমিষ্ঠ হওয়ার আগে একটি মাত্র স্যান্ড শার্কের শিশু বেঁচে থাকে। যে শিশু হাঙরটি ভূমিষ্ঠ হয় তার সম্পর্কে অবধারিত ভাবেই বলা যায় যে সে তার অন্যান্য ১৯টির মত ভাই-বোনকে মায়ের গর্ভেই হত্যা করেছে। এদের জন্মের শুরুই হয় সহোদর ভাই কিংবা বোনকে হত্যা এবং ভক্ষণের মাধ্যমে।

http://www.marietta.edu/~biol/biomes/images/oceans/shark_8009_600.jpg

ভিডিও:[video (unkown provider)]
http://fliiby.com/file/131944/tvzbofz4mf.html

২) ব্লু ফুটেড বুবিজঃ জন্মের পরপরই ভাই বোনদের হত্যার ঘটনা সবচেয়ে বেশী দেখা যায় সামুদ্রিক পাখীদের মধ্যে। এই পাখীদের সব সময় তা দিতে সক্ষম এমন সংখ্যার চেয়ে একটি বেশী ডিম পাড়ে। এর পর যেটা ঘটে তা নির্ভের করে নির্দিষ্ট প্রজাতির পাখী এবং খাদ্যের পর্যাপ্ততার উপর। ব্লু ফুটেড বুবিসদের মধ্যে সহোদর হত্যার ঘটনা শুরু হয় যখন সবচাইতে বড় বাচ্চাটি স্বাভাবিকের চাইতে ২০ ভাগের বেশী ওজন কমে গেলে। বড় বাচ্চাটি তখন তার ছোট ভাই-বোনদের ঠোকর দিতে দিতে মেরে ফেলে অথবা বাসা থেকে বের করে দেয়। ফলশ্রুতিতে ছোট বাচ্চাটি খাদ্যের অভাবে কিংবা অন্য প্রাণীদের আক্রমণের শিকার হয়ে মারা যায়। যতগুলো প্রজাতির পাখীর মধ্যে এই ঘটনা লক্ষ্য করা যায় তাদের সবার মধ্যে যে মিলটা খুব বেশী দেখা যায় তা হলো বড় বাচ্চাদের হাতে ছোট বাচ্চারা নিহত হয়। আরও আশ্চর্য্যজনক ঘটনা হলো বাবা-মা এই হত্যা ঠেকানোর কোন প্রচেষ্টাই নেয় না। প্রকৃতপক্ষে বাবা-মাও কখনও কখনও এই হত্যায় অংশগ্রহণ করে। বড় বাচ্চাটি যখন ছোটবাচ্চাটিকে ঠুকরিয়ে বাসা থেকে বের করে দেয় বাবা কিংবা মা পাখিটি তখন ছোট বাচ্চাটির বাসায় ঢোকার প্রচেষ্টাকে প্রতিহত করে। ব্লু ফুটেড বুবিস পাখিদের ক্ষেত্রে এই হত্যা প্রচেষ্টা একটি দলগত প্রচেষ্টা বা টীম এফোর্ট।

http://images.nationalgeographic.com/wpf/media-live/photos/000/004/cache/blue-footed-booby_473_600x450.jpg



৩) কোকিলঃ যত ধরণের প্রজাতির মাঝে শিশুহত্যার প্রবণতা দেখা যায় তাদের মধ্যে কোকিলকে নিঃসন্দেহে চ্যাম্পিয়্যন হিসাবে ধরা যায়। মা কোকিল অন্য পাখীদের বাসায় ডিম পাড়ে। একটি পাখীর বাসায় একটিই ডিম। কোকিল শিশু ডিম থেকে ফুটে বের হওয়ার সাথে সাথেই সে যে কাজটি করে তা হলো অন্য ডিমগুলোকে বাসা থেকে ফেলে দেয়া, এমনকি জন্ম নেয়া বাচ্চাকেও। শিশু কোকিলের পিঠে বিশেষ ধরণের একটি গর্তের মত থাকে যেটা তাকে ডিমগুলোকে দুই ডানার মাঝের খাঁজে উঠাতে সাহায্য করে এবং পাখির বাসার কার্নিশের উপর দিয়ে ফেলে দিতে সাহায্য করে। কোকিল শিশুরা এই কাজটি সহজাত প্রবৃত্তির বশেই করে থাকে। আর এই কাজটা সে করে ডিম থেকে ফুটে বের হওয়ার সাথে সাথেই যখনও কিনা তার চোখ ফুটেনি বা অন্ধ অবস্হাতেই। কিভাবে একটি ২৪ ঘন্টারও কম বয়সী অন্ধ কোকিলের বাচ্চা সহজাত প্রবৃত্তির বশে আরেকটি জীবন্ত পাখির বাচ্চাকে বাসা থেকে ফেলে হত্যা করতে পারে সেটা আমার লেখা থেকে অনুধাবন করতে ব্যর্থ হলে নিচের ভিডিওটি দেখা আপনার জন্য অতি অবশ্যই ফরয।
আমি নিশ্চিত আপনি আশাহত হবেন না।

http://i54.tinypic.com/2qx0ntd.jpg



ভিডিওঃ [video (cant extract ID)]


৪) মৌমাছিঃ রাণী রাণী মৌমাছি মারা যাওয়ার পর লার্ভাগুলো একটি বিশেষ রাজকীয় সেল-এ বিশেষ যত্নে লালিত হতে থাকে। এই সেল সাধারণ অন্যান্য সেল থেকে বড় হয়ে থাকে। লার্ভা গুলিকে সাধারণ কর্মী মৌমাছিরা বিশেষ ধরনের খাবার খাইয়ে বাঁচিয়ে রাখে। এদেরই একজন হয়ে উঠবে ভবিষ্যতের রাণী। কিন্তু অবাক করা ঘটনা হলো প্রথম ভবিষ্যত রাণী মৌমাছিটা লার্ভা থেকে পিউপাতে পরিণত হওয়ার সাথে সাথেই সে অন্যান্য প্রতিদ্বন্দী সহোদরাদের, এক্ষেত্রেও প্রায় বিশটির মত, হুল ফুটিয়ে মেরে ফেলে। একজনও তার হাত থেকে নিস্তার পায় না। এভাবেই সে তার সব বোনদের যারা তার প্রতিদ্বন্দী হয়ে উঠতে পারে তাদেরকে সে নিশ্চিহ্ন করে দেয়।
http://www.vegetus.org/honey/queen2.jpg



৫) প্যারাসিটোয়েড বোলতাঃ আরেকটা চরম উদাহরণ হলো এই পয়ারাসিটয়েড বোলতারা যারা কিনা নিজেরা প্যারাসিটিক না কিন্তু অন্য একটি হোস্ট দেহে ডিম পাড়ে এবং সেই হোস্টের দেহেই বাচ্চারা খেয়ে-দেয়ে বড় হয়। মা বোলতা একটি শুঁয়োপোকাকে হুল ফুটিয়ে প্যারালাইজড করে ফেলে এবং সেটার দেহে দুটি ডিম পাড়ে। একটি মেয়ে এবং একটি ছেলে ডিম।

শু্যোপোকার দেহে তৈরী হয় বাচ্চাদের জন্য একটি নার্সারী যাতে রয়েছে সীমিত খাদ্য সরবরাহ। মা বোলতা ডিম পেড়ে চলে যাওয়ার পর আর কখনও ফিরে আসে না। এই ডিম দুটো দ্রুত একটা ক্লোনিং পর্যায়ের মধ্য দিয়ে যায় যাকে বলা হয় পলিএমব্রয়নি, যা থেকে ২০০'র মত যময ভাই এবং প্রায় ১২০০'র মত যময বোন জন্ম নেয়। এর মধ্যে থেকে ৫০টির মত বোন খুব দ্রুত বড় হয়'। এদের দেহের তুলনায় বিশাল বড় একটি চোয়াল তৈরী হয় এবং এদের কোন সেক্স অর্গান থাকে না। তাই এদের নিজেদের প্রজননেরও কোন সম্ভাবনাও থাকে না। এরা নিজেদের ভাইগুলোকে খেতে শুরু করে। যে ভাইটি আগে পিউপাতে পরিনত হয় সে অন্যান্য ভাইদের পিউপাতে পরিণত হওয়ার আগেই নিজেদের বোনদেরকে নিষিক্ত করা শুরু করে। একেকটি ভাই বোলতা বহুসংখ্যক বোনকে নিষিক্ত করার ক্ষমতা রাখে।

বড় চোয়াল ওয়ালা বোনরা শেষপর্যন্ত অল্প কয়েকটি ভাইকে জীবিত রাখে যাতে হোস্ট শুঁয়োপোকার দেহের সীমিত খাদ্য সরবরাহ বোনগুলোর বড় হওয়া পর্যন্ত পর্যাপ্ত থাকে। আরও অবাক হওয়ার মত ঘটনা হলো মা বোলতাটি হুল ফুটিয়ে প্যারালাইজ করা থেকে বাচ্চারা বড় হওয়া পর্যন্ত শূঁয়োপোকাটি জীবিত থাকে। এতে করে বাচ্চাদের খাবার পচে যায় না। কি অবাক কান্ড!!!!


http://www.iayork.com/Images/2007/12-5-07/Braconid.jpg


৬) সিফাকা লিমার: পুরুষ সিফাকা লিমারেরা শিশু হত্যার অভিনব পন্হা অবলম্বন করে থাকে। মেয়ে লিমারদেরকে মনঃসংযোগ নস্ট করে তাদের কোল থেকে শিশুকে ছিনিয়ে নেয়ার জন্য তারা অদ্ভূত কিছু কাজ করে যেমন মেয়েটির কাঁধ কিংবা বাহুতে কামড় দেয়া। মেয়ে লিমারটির কোলের শিশু অরক্ষিত হয়ে পরলে ছেলে লিমারটি শিশু লিমারটিকে মায়ের কাছ থেকে ছিনিয়ে নিয়ে পেট দুভাগ করে মাটিতে ফেলে দেয়। বলাই বাহুল্য শিশু লিমারটি সংগে সংগে মারা যায় না। তাকে ভোগ করতে হয় একটি দীর্ঘ বেদনাদায়ক মৃত্যু।

সিফাকা লিমারই শুধু নয় এরকম ২০টি প্রজাতির প্রাইমেট এবং প্রোসিমিয়ানদের (লোয়ার প্রাইমেট) ক্ষেত্রে জীববিজ্ঞানীরা শিশুহত্যার প্রচলন পর্যবেক্ষন করেছেন।

http://www-tc.pbs.org/wgbh/nova/assets/img/16-Killinstinct/image-03-large.jpg


উপরেল্লিখিত প্রজাতি ছাড়াও আরও বহু প্রাণী, মাছ কিংবা কীটপতঙ্গের জন্ম এবং জীবন ধারণের প্রক্রিয়ার সাথে শিশুহত্যা এবং সহোদর হত্যার প্রক্রিয়া অঙ্গাঙ্গী ভাবে জড়িত। যেমন স্পটেড হায়েনা, মাগেলানিক পেঙ্গুইন, রয়াল পেঙ্গুইন, আমেরিকান কুটস (পাখি), ইউরোপীয়ান কালো সারস, বটল নোজ ডলফিন, ম্যাকাকি বানর, হনুমান, সিংহ, এবং প্রায় সব ধরণের প্যারাসিটোয়েড বোলতা ছাড়াও আরও অনেক অনেক প্রাণী।

সৃস্টিকর্তা কেন এই প্রাণিগুলার ক্ষেত্রেই এমন কস্টদায়ক এবং জটিল পরিকল্পনার আশ্রয় নিয়েছেন তার কোন ব্যাখ্যা করা যায় না তবে জীব বিজ্ঞানীরা দাবী করে থাকেন এই ঘটনাগুলোর তাৎপর্য্য নাকি বিবর্তন তত্ত্ব দিয়ে অত্যন্ত পরিস্কার ভাবে ব্যাখ্যা করা যায়।

সূত্র

http://www.somewhereinblog.net/blog/Horus/29242942

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন ইলিয়াস (২৭-০৩-২০১২ ০৯:৩৩)

Re: পরিকল্পিত ডিজাইনঃ God Must Be Crazy - হোরাস

.........................

Re: পরিকল্পিত ডিজাইনঃ God Must Be Crazy - হোরাস

খুব সুন্দর, ইনফরমেটিভ, পিলাচ  smile

Re: পরিকল্পিত ডিজাইনঃ God Must Be Crazy - হোরাস

অল্প কথায় উত্তর দ্যান...

১) শেষপর্যন্ত ১টা বাচ্চাই যদি জন্ম নিবে তাইলে খালি খালি পেটের মধ্যে ২০টারে মারামারি/ কাটাকাটির ডিজাইন করনোর দরকারটা কি ছিলো? অন্য আর দশটা প্রাণীর মত একটা বাচ্চা বড় হইলে অসুবিধা আছিলো?

২) কোকিলের লাইগ্যা নিজের বাসায় ডিম পাড়নের ব্যবস্হা করলে কি অসুবিধা আছিলো? অন্যের বাসায় ডিম পাড়লেও খামাকা বাচ্চাগুলারে জন্ম নেয়ার পর মারণের কি দরকার? অন্য আর দশটা পাখির সিস্টেম করণ যাইত না। কুকু ডাক অন্য পাখির বাসায় ডিম থিকা ফুইটা সোজা পানিতে নাইমা হাটা (সাঁতার) দেয়। মারামারির মধ্যে নাই। কোকিলের এই সিস্টেম হইলো না ক্যান?

Re: পরিকল্পিত ডিজাইনঃ God Must Be Crazy - হোরাস

যে মূল টপিকটা লিখেছে সে একজন ঘোর নাস্তিক! কুরআনের আয়াত ব্যবহার করেছে টিটকিরি মেরে। এই বিষয়টা কি কারও নজরে পরে নাই?

হতে পারে প্রাকৃতিক এই ঘটনাগুলো সত্যি। তাকে এমনভাবে প্রকাশ করা হল যেন মানুষ বিভ্রান্ত হয়ে যায়। যেটা শয়তান করে থাকে মানুষের সাথে।

@ ফায়ারফক্স, আল্লাহ কিছু মানুষকে কুরআন দ্বারা বিভ্রান্ত করে, কিছু মানুষকে হেদায়েৎ করে। আমরা আমাদের ক্ষুদ্রতা, অক্ষমতা ভুলে যাই। মানুষের বাচ্চার জন্ম প্রক্রিয়াও জটিল। আমরা আমাদের অতি ক্ষুদ্র জ্ঞান দিয়ে আর খুব সহজ সাধারন লজিক দিয়ে সব ব্যাখা করে ফেলতে চাই।

আল্লাহ আমাদের জন্য ভালো ও খারাপ উভয় নিদর্শনই স্থাপন করেছেন, তারপর তার জ্ঞান দিয়েছেন আমাদের মধ্যে যেন আমরা ভালো ও মন্দের মধ্য পার্থক্য করতে পারি। আমাদের মধ্যে জ্ঞান দিয়েছেন যেন আমরা পতিত না হই...। ছিটগ্রস্থ অহংকারী মানুষের চটকদার বিভ্রান্তিমূলক জ্ঞান দিয়ে মাথা পূর্ন করার আগে সৃষ্টিকর্তার পৌছে দেওয়া জ্ঞান অর্জন করা জরুরী। যদি নিজের ক্ষুদ্রত্ব বুঝতে পারি, যদি সৃষ্টিকর্তার বড়ত্ব অনুভব করতে পারি, অনায়াসে আরও অনেক কিছুর ব্যাখা আমরা পেয়ে যাব।

এই পোস্টটির উপস্থাপন ভঙ্গি নিয়ে আমার আপত্তি আছে, ইনফরমেশনগুলো নিয়ে নয়। তা বিবর্তন তত্ত্ব দিয়ে অত্যন্ত পরিস্কারভাবে এগুলা কিভাবে ব্যাখ্যা করা যায়?

আল্লাহ আমাদের হেদায়েত করুন। আল্লাহ সর্বশ্রেষ্ঠ!

আল্লাহুম্মা ইন্নাকা য়াফু্‌ঊন - (হে আল্লাহ আপনি ক্ষমাশীল)
তুহীব্বুল য়াফওয়া - (আপনি মাফ করতে ভালবাসেন)
ফা' ফু আন্নী - (আমাকে মাফ করে দিন।)

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন @m0N (২৭-০৩-২০১২ ০১:২১)

Re: পরিকল্পিত ডিজাইনঃ God Must Be Crazy - হোরাস

@ মুন এই টপিক নিয়ে আলোচনা করার মত ফোরাম প্রজন্ম নয়।এর আগেও প্রজন্মেও বিবর্তন নিয়ে টপিক ছিল তার পরিণতি ভালো হয় নি।এখানে ব্যাখ্যা দিতে গেলে অবধারিত ভাবে কিছু কথাকে কেউ কেউ ধর্ম বিদ্বেষী বলে মাইনাসের ঝড় বইয়ে দিবেন।এর আগেও ইনভারব্রাশ ও আমার একটা ধর্ম বিষয়ক আপাত নিরীহ টপিক কারো অভিযোগে ডিলিট হয়েছিল।তাই অযথাই এখানে ব্যাখ্যা করার দরকার আছে বলে মনে করি না।আর আইডি তত্ত্ব বহুদিন হল বাতিল।" survival of the fittest".

ঘোর নাস্তিক ছিটগ্রস্থ অহংকারী

বুঝলাম না কারো কথা অগ্রহনযোগ্য বা কাউকে নাস্তিক মনে হলে এসব বলতে হবে।যেখানে কিনা প্রজন্মের নিয়ম
৪) বিশেষ কোন ব্যাক্তি, জাতি বা গোষ্ঠিকে আঘাত করে বা উষ্কানীমূলক কিছু লেখা যাবে না।
আপনার মত পুরানো ফোরামিক থেকে আরো অসাধারণ আচরণ আশা করি।

http://forum.projanmo.com/topic32713-p2.html

hit like thunder and disappear like smoke

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন invarbrass (২৭-০৩-২০১২ ০৮:৩৯)

Re: পরিকল্পিত ডিজাইনঃ God Must Be Crazy - হোরাস

ফায়ারফক্স লিখেছেন:

অল্প কথায় উত্তর দ্যান...

১) শেষপর্যন্ত ১টা বাচ্চাই যদি জন্ম নিবে তাইলে খালি খালি পেটের মধ্যে ২০টারে মারামারি/ কাটাকাটির ডিজাইন করনোর দরকারটা কি ছিলো? অন্য আর দশটা প্রাণীর মত একটা বাচ্চা বড় হইলে অসুবিধা আছিলো?

২) কোকিলের লাইগ্যা নিজের বাসায় ডিম পাড়নের ব্যবস্হা করলে কি অসুবিধা আছিলো? অন্যের বাসায় ডিম পাড়লেও খামাকা বাচ্চাগুলারে জন্ম নেয়ার পর মারণের কি দরকার? অন্য আর দশটা পাখির সিস্টেম করণ যাইত না। কুকু ডাক অন্য পাখির বাসায় ডিম থিকা ফুইটা সোজা পানিতে নাইমা হাটা (সাঁতার) দেয়। মারামারির মধ্যে নাই। কোকিলের এই সিস্টেম হইলো না ক্যান?

অল্প কথায় উত্তর: Natural Selection
@m0N যেমন বলেছেন survival of the fittest - হাঙর বা কোকিল শাবকগুলো তাদের কম্পিটিটরদের সরিয়ে দিচ্ছে। যেকোনো প্রাণীর জীবনধারণের জন্য প্রচুর রিসোর্সের প্রয়োজন হয়। এমন যদি হয় যে রিসোর্স পরিমিত (লিমিটেড), কিন্তু ব্যবহারকারী অনেক - সেক্ষেত্রে ভাগীদারদের এলিমিনেট করাই যৌক্তিক নয় কি? সদ্য জন্ম নেয়া শাবককে নির্ভর করতে হয় মা-প্রাণীর উপর - খাবার সাপ্লাই, নিরাপত্তা এমন অনেক কিছুর জন্য এরা মা-এর উপর নির্ভরশীল থাকে। এসব রিসোর্স যদি অন্যদের সাথে শেয়ার করতে হয়, তাহলে নিজের কপালে রিলিফের মাল কম জুটবে - আর তাতে করে বেঁচে থাকার সম্ভাবনাও অনেক কমে যায়।

বাই দি ওয়ে, প্রকৃতিতে শুধু কোকিল পাখিই একমাত্র ফন্দিবাজ না। আমেরিকান রবিন-এর মত আরও এক ডিগ্রী চালাক পাখি আছে। রবিন পাখি যদি তার বাসায় কখনও প্যারাসাইট ডিম পায়, তাহলে তা মুহুর্তেই ধ্বংস করে ফেলে। cool

@m0N লিখেছেন:

ঘোর নাস্তিক ছিটগ্রস্থ অহংকারী

বুঝলাম না কারো কথা অগ্রহনযোগ্য বা কাউকে নাস্তিক মনে হলে এসব বলতে হবে।যেখানে কিনা প্রজন্মের নিয়ম
৪) বিশেষ কোন ব্যাক্তি, জাতি বা গোষ্ঠিকে আঘাত করে বা উষ্কানীমূলক কিছু লেখা যাবে না।
আপনার মত পুরানো ফোরামিক থেকে আরো অসাধারণ আচরণ আশা করি।

argumentum ad hominem - কেউ যখন তর্কে হেরে যায়, তখন এ্যাড হমিনেম আক্রমণের দিকে গড়ায়।

যাকগে, ফায়ারফক্স স্মার্ট ফোরামিক। মনে প্রশ্ন জেগেছিলো বলেই পোস্টটি করেছিলেন। অবুঝের মত কপি-পেস্ট তিনি সাধারণত: করেন না।

Calm... like a bomb.

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন হৃদয় (২৭-০৩-২০১২ ১২:০২)

Re: পরিকল্পিত ডিজাইনঃ God Must Be Crazy - হোরাস

@ফায়ারফক্স

invarbrass ভাই উত্তর দিয়েছেন। আসলে মারামারি কাটাকাটি করানোর দরকারটা হয় অত্যধিক প্রজনন হার (Prodigality of reproduction) এর কারণে। প্রত্যেকটা জীব গুণোত্তর প্রগতিতে বংশবৃদ্ধি করে। একটি স্ত্রী স্যামন (Salmon) মাছ এক প্রজনন ঋতুতে প্রায় 28,000,000 টি ডিম পাড়ে, একজোড়া মাছি থেকে বংশপরম্পরায় প্রজননের মাধ্যমে মাত্র পাঁচ মাসের মধ্যে 191,000,000,000,000 টি মাছি সৃষ্টি হতে পারে। একজোড়া হাতি থেকে 750 বছরের মধ্যে 19,000,000 টি হাতি উৎপন্ন হতে পারে (প্রতিটি অপত্য পূর্ণ জীবনকাল বাঁচলে এবং সমহারে অপত্য সৃষ্টি করলে), সুতরাং জীবজগতের মারাত্মক ফ্লাডিং ( big_smile) এড়ানোর জন্য তৈরি হচ্ছে কিছু সীমাবদ্ধতা, সেটা খাদ্য ও বাসস্থানের সীমাবদ্ধতা হতে পারে, অথবা জীবনধারণের অন্য যে কোন সীমাবদ্ধতা হতে পারে। মোট কথা একটি নির্দিষ্ট সংখ্যক জীবের বেশী জীবকে পরিবেশ অ্যাকোমোডেট করতে নারাজ। তাই এতো মারামারি কাটাকাটি (Struggle for existence), ডারউইনিজমের প্রথম দিকের আলোচনা এগুলো।

"No ship should go down without her captain."

হৃদয়১'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি LGPL এর অধীনে প্রকাশিত

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন invarbrass (২৭-০৩-২০১২ ১২:০৪)

Re: পরিকল্পিত ডিজাইনঃ God Must Be Crazy - হোরাস

আফসোস! ঈশ্বর যদি এই মারামারি কাটাকাটির ব্যবস্থা না করিতেন, তা হইলে আজিকে ফায়ারফক্স ভ্রাতার আনুমানিক ৩০ কোটি ভাইবেরাদারগণ জীবিত থাকিতেন...  dontsee

আশা করি ফায়ারফক্স এইবার বুঝিতে পারিতেছেন ডারউইন সাহেবের উপযোগীতা...  lol

Calm... like a bomb.

১০ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন ফায়ারফক্স (২৭-০৩-২০১২ ১২:৩৭)

Re: পরিকল্পিত ডিজাইনঃ God Must Be Crazy - হোরাস

যেকোনো প্রাণীর জীবনধারণের জন্য প্রচুর রিসোর্সের প্রয়োজন হয়। এমন যদি হয় যে রিসোর্স পরিমিত (লিমিটেড), কিন্তু ব্যবহারকারী অনেক - সেক্ষেত্রে ভাগীদারদের এলিমিনেট করাই যৌক্তিক নয় কি? সদ্য জন্ম নেয়া শাবককে নির্ভর করতে হয় মা-প্রাণীর উপর - খাবার সাপ্লাই, নিরাপত্তা এমন অনেক কিছুর জন্য এরা মা-এর উপর নির্ভরশীল থাকে। এসব রিসোর্স যদি অন্যদের সাথে শেয়ার করতে হয়, তাহলে নিজের কপালে রিলিফের মাল কম জুটবে - আর তাতে করে বেঁচে থাকার সম্ভাবনাও অনেক কমে যায়।

কিন্তু ব্রাসু ভাই  রিসোর্স সিমিত তাই কম্পিটিটর সিমিত তৈরী করলেই সমস্যা মিটে যায় তাইনা??  মানে সিমিত বাচ্চা আরকি??
আর আমি জন্মের পর মারামারির কথা বলছি তার আগের না!!! cry

১১

Re: পরিকল্পিত ডিজাইনঃ God Must Be Crazy - হোরাস

আচ্ছা ডারউইন এর বিবর্তনবাদ তথ্য কি প্রমাণিত? কিছু বিজ্ঞানী একে বাতিল করেছেন বলে শুনা যায়।

এ বিষয়ে আমার সঠিক জানা নেই। invarbrass ভাই এ বিষয়ে আপনি কি কিছু বলতে পাবেন?

"সংকোচেরও বিহ্বলতা নিজেরই অপমান। সংকটেরও কল্পনাতে হয়ও না ম্রিয়মাণ।
মুক্ত কর ভয়। আপন মাঝে শক্তি ধর, নিজেরে কর জয়॥"

১২

Re: পরিকল্পিত ডিজাইনঃ God Must Be Crazy - হোরাস

invarbrass লিখেছেন:

আফসোস! ঈশ্বর যদি এই মারামারি কাটাকাটির ব্যবস্থা না করিতেন, তা হইলে আজিকে ফায়ারফক্স ভ্রাতার আনুমানিক ৩০ কোটি ভাইবেরাদারগণ জীবিত থাকিতেন...  dontsee

আশা করি ফায়ারফক্স এইবার বুঝিতে পারিতেছেন ডারউইন সাহেবের উপযোগীতা...  lol

৩০ কোটি, একজন মায়ের পেট হতে? sad sad sad sad
এক বা দুইজন জন্ম দিতেই মায়ের খবর হয়ে  যায়, সেখানে ৩০ কোটি হলে কি যে হত ঐ আল্লাহপাকই জানেন।

তোমাকে ভালবাসি, তোমারই চরণে ঠাঁই,
মা,
তোমার ভালবাসার কোন তুলনা নাই।

১৩ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন invarbrass (২৭-০৩-২০১২ ১৪:১৬)

Re: পরিকল্পিত ডিজাইনঃ God Must Be Crazy - হোরাস

ফায়ারফক্স লিখেছেন:

কিন্তু ব্রাসু ভাই  রিসোর্স সিমিত তাই কম্পিটিটর সিমিত তৈরী করলেই সমস্যা মিটে যায় তাইনা??  মানে সিমিত বাচ্চা আরকি??
আর আমি জন্মের পর মারামারির কথা বলছি তার আগের না!!! cry

ঠিক তা নয় - সমস্যা মিটে যায় না।

কিছুদিন আগে পৃথিবীর জনসংখ্যা ৭ বিলিয়ন নিয়ে বেশ হৈচৈ হয়ে গেছিলো। ঐ সময় বিবিসি-তে একটি আর্টিকলে পড়েছিলাম, অনুমান করা হয় এ পর্যন্ত পৃথিবীতে যত মানুষ জন্মগ্রহণ করেছে তারা সংখ্যায় ২%-এরও কম। বাকি ৯৮%-এরও বেশি 'মানুষ' ভ্রুণাবস্থাতেই মৃত্যুবরণ করেছে! এটাতো শুধুমাত্র মানবজাতীর পরিসংখ্যান। বাদবাকী প্রাণীজগতকে হিসাবে ধরলে...  ghusi

বুঝতেই পারছেন, ইনপুট কমিয়ে দিলে আউটপুটও কিন্তু ভয়ানকভাবে হ্রাস পেয়ে যাচ্ছে। বিবর্তন ঐ পথে যায় না। বরং ইনপুট বাড়িয়ে দিয়ে তুমুল প্রতিযোগীতার মধ্য থেকেই সবচাইতে ফিটেস্ট এলিমেন্টগুলোকে বেরিয়ে আসার সুযোগ করে দেয়।

স্টিফেন জে গুল্ডের অসাধারণ বই ওয়ান্ডারফুল লাইফ (১৯৮৮)-এ ক্যানাডার বিখ্যাত বার্জেস শেল নামক ফসিল বেডের ব্যাপারে বিস্তারিত বর্ণনা আছে। বারজেস শেল-এ ৫০০ মিলিয়ন বছর আগের ক্যামব্রিয়ান যুগের অজস্র ফসিল সংরক্ষিত আছে।
ক্যাম্ব্রিয়ান পিরিয়ডটি বেশ গুরুত্বপূর্ণ - পৃথিবীর বয়স আনুমানিক ৪.৫ বিলিয়ন বছর। প্রথম ৩/৪ বিলিয়ন বছর খুবই বোরিং, প্রাণ-টান কিছুই ছিলো না। শেষের ৫-৬০০ মিলিয়ন বছর অর্থাৎ ক্যাম্ব্রিয়ান পিরিয়ডে এসে হঠাৎ প্রাণের বিস্ফোরণ ঘটে (ক্যাম্ব্রিয়ান এক্সপ্লোশন)। আর ঐ ক্যাম্ব্রিয়ান যুগের অসাধারণ এই বিস্ফোরণের বিবরণ লিপিবদ্ধ আছে বার্জেস শেইলে। এমনিতেই বার্জেশ শেইল মাথা খারাপ করে দেয়, তার উপর গুল্ডের একটি উক্তি একদম স্তম্ভিত করে দেওয়ার মত...
ব্যাপারটি এ রকম: বায়োলজীতে ট্রী অব লাইফ বা ডারউইনের ফাইলোজেনীক টৃ ধারণাটি প্রচলিত। লম্বা গাছের বদলে স্টিফেন গুল্ড বিবর্তনশীল এই প্রাণিজগতকে তুলনা করেছিলেন বিরাট প্রসারিত এক জংলা ঝোপের সাথে - যার ৯৯% ডালপালাই কোনো না কোনো এক জায়গায় এসে থেমে গেছে, বাকি ১% ডালপালা এখনো মেলছে (ঐ ১%-এর এক অতি ক্ষুদ্র মাইক্রোস্কোপিক ভগ্নাংশ হলাম আমরা worried)।

গুল্ডের সেই বিখ্যাত উক্তিটি ছিলো অনেকটা এরকম:
টাইম মেশিনে রিওয়াইন্ড করে যদি বার্জেস শেলের ক্যামব্রিয়ান পিরিয়ডে ফিরে যাওয়া যেত, এবং বিবর্তনের ডিভিডিটা আবার রি-প্লে করা হতো... তাহলে আউটকাম সম্পূর্ণরূপে ভিন্ন হতো। প্রায় নি:সন্দেহে আজকে মানবজাতী বলে কোনো প্রাণীকুলের অস্তিত্বই থাকতো না!  hairpull (অন্য কোনো বুদ্ধিমান প্রাণী হয়তো থাকতো - সাইফাই মুভিগুলোতে হয়তো মানুষাকৃতির এলিয়েন দেখানো হতো  lol)

তয় তেলচুরা অবশ্য থাকতো  angry ২/১ দিন আগে একটি ওয়েবসাইটে দেখলাম ৩৫০ মিলিয়ন বছর আগের আরশোলার ফসিল - এই প্রাণীটি খুব সামান্যই বিবর্তিত হয়েছে।

বিবর্তন অনেকটা কয়েন টসের মত। যত বেশি কয়েন টস করবেন, আউটকামও তত বেশি হবে।

আর ন্যাচারাল সিলেক্সন জন্মের আগে এবং পরে দুই ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য। তবে ঈদানীং মানুষের উদ্ভাবিত মেডিকেল এবং বায়োটেকনোলজী প্রকৃতির "সার্ভাইভাল অব দ্যা ফিটেস্ট"-কে কিছুটা হলেও কাচঁকলা দেখাচ্ছে। ফার্মাকোলজীর ছাত্র হিসাবে আপনি এ্যান্টিবায়োটিক এবং অন্যান্য ড্রাগের ক্ষমতা ভালই জানেন। মানব জন্ম নিয়ে ম্যাজিশিয়ান এবং বেইস গিটারিস্ট পেন জিলেটের (স্টার ওয়ার্ল্ডে পেন & টেলার নামে একটা প্রোগ্রাম দেখাতো) এি বিখ্যাত নাস্তিক (এবং মজার) উক্তিটি পড়ে দেখতে পারেন।  lol

৩০ কোটি, একজন মায়ের পেট হতে?   
এক বা দুইজন জন্ম দিতেই মায়ের খবর হয়ে  যায়, সেখানে ৩০ কোটি হলে কি যে হত ঐ আল্লাহপাকই জানেন।

সম্ভব সম্ভব, সবই সম্ভব। মোল্লা ইসমাইলের মত বলবান পিতা থাকিলে ইহাও সম্ভব...

Moulay Ismaïl is alleged to have fathered 888 children. This is widely considered the record number of offspring for any man throughout history that can be verified. It is thought that Ismaïl would have had to copulate with an average of 4.8 women per day for 40 years to achieve that number of children.
...
A total of 867 children, including 525 sons and 342 daughters, was noted by 1703 and his 700th son was born in 1721

Calm... like a bomb.

১৪

Re: পরিকল্পিত ডিজাইনঃ God Must Be Crazy - হোরাস

এই টপিকের মজা হচ্ছে, প্রতিবার বিভিন্ন প্রশ্ন করার জন্য টাইপ করতে যাই, তারপর দেখি ইনভারব্রাস ভাই জবাব দিয়ে দিয়েছেন big_smile

রাবনে বানাদি ভুড়ি :-(

১৫ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন invarbrass (২৭-০৩-২০১২ ১৪:৫১)

Re: পরিকল্পিত ডিজাইনঃ God Must Be Crazy - হোরাস

আরণ্যক লিখেছেন:

আচ্ছা ডারউইন এর বিবর্তনবাদ তথ্য কি প্রমাণিত? কিছু বিজ্ঞানী একে বাতিল করেছেন বলে শুনা যায়।
এ বিষয়ে আমার সঠিক জানা নেই। invarbrass ভাই এ বিষয়ে আপনি কি কিছু বলতে পাবেন?

আয়রনিকালী, মাসদেড়েক আগে এক বন্ধু একদম হুবহু একই প্রশ্ন করেছিলো। আপনারা দুইজনেই সম্ভবত: আদনান ওকতার নামক এক ধাপ্পাবাজের কোনো আর্টিকল পড়েছিলেন।  hehe

সাইন্স আসলে এভাবে আগায় না - শত বছরের তত্ব হঠাৎ করে বাতিল হয়ে যায় না। বরং আরো সলিড কোনো থিওরী দিয়ে রিপ্লেসড হয়... বা বিবর্তিত হয় বলা যায়...  tongue_smile

ডারউইনিজম বাতিল হয় নি - তবে ভার্সন আপগ্রেড হয়েছে। জেনেটিক্স আবিষ্কৃত হবার পর এখন নিও-ডারউইনিজম মতবাদ বহুল প্রচলিত। নিও-ডারউইনিজম বলতে পারেন ডারউইনের বিবর্তনবিদ্যা আর মেন্ডেলের বংশগতিবিদ্যার মিলিত ফল। ডারউইন তাঁর থিওরী বানিয়েছিলেন ম্যাক্রো লেভেলে - আর মেন্ডেলিয়ান জেনেটিক্সের যুগে এখন ঐ তত্ব ঢুকে গেছে আরো মাইক্রো লেভেলে। এ বিষয়ে রিচার্ড ডকিন্সের "সেলফিশ জীন" বইটি অত্যন্ত জনপ্রিয়।

তবে উল্টোটা ঘটছে। ক্রিয়েশনিজম (অর্থাৎ, ওল্ড টেস্টামেন্টের ঈশ্বরের ৬ দিনে মহাবিশ্ব সৃষ্টি করে ৭ম দিনে নিদ্রাযাপন) এখন  আড়াই-তিন হাজার বছর পুরণো নিছক গালগপ্পো ছাড়া বেশী কিছু মনে করে না তেমন কেউ (unless someone is a fanatically biblical literalist)। পাশ্চাত্যে এখন পরিকল্পিত ডিজাইন অর্থাৎ ইন্টেলিজেন্ট ডিজাইন (আইডি) ধারণাটি আবির্ভূত হয়েছে। আইডি-তে বিবর্তন প্রক্রিয়াকে স্বীকার করে নেয়া হয়েছে - তবে সবকিছুর পেছনে প্রাইম মুভারের ভূমিকায় রাখা হয়েছে বিবলিকাল ঈশ্বরকে। দেখা যাচ্ছে ধর্মদর্শনও বিবর্তনের ছোবল থেকে মুক্ত নয়...  smile

Calm... like a bomb.

১৬

Re: পরিকল্পিত ডিজাইনঃ God Must Be Crazy - হোরাস

@invarbrass ভাই ধন্যবাদ।

আর একটা প্রশ্ন: ভাইয়া আমি যতদুর জানি আপনি একজন ডাক্তার। আপনার কাছে প্রশ্ন এ বিষয়েই।

আমেরিকার মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় গুলিতে আজকাল প্রর্থনা বিষয়ে সিরিয়াসলি পাঠদান করানো হচ্ছে। কারণ হিসাবে তার নাকি বলছে- প্রর্থনা করলে রুগীরা দ্রুত সুস্থ হন। আমি বেশ কিছু প্রবন্ধর রেফারেন্স পড়েছি- যেখানে দাবি করা হয়েছে প্রর্থনা করা হয় যে সব রুগীর জন্য তাদের নিরাময়ের হার নাকি সাধারণদের চেয়ে অনেক বেশি। এমন কি তারা বলছে- প্রর্থনার কথা রুগী না জানলেও ফলাফল একই। তাদের দাবি মতে ১০০০ মাইল দুরের রুগীর জন্য প্রার্থনা করেও একই ফল পাওয়া গেছে।

আমরা এরকম একটা কথা জনতে পারি ইদানিং কালের হূমায়ুন আহমেদের একটা লেখা পড়ে। যেখানে কবি শহীদ কাদির নিজেকে নাস্তিক দাবি করলেও হূমায়ুন এর জন্য প্রার্থনা করবেন বলে জানিয়েছেন। কারণ এর নিরাময় এর ক্ষমতার জন্য।

ভাইয়া এ বিষয়ে একটু আপনার মতামত চাচ্ছি। আমেরিকার মেডিকেল সায়েন্স তো এখন সবচেয়ে এগিয়ে। তারা হঠাৎ করে এমন উল্টা পথে হাটা শুরু করলো কেন?

আর একটা কথা, প্রশ্ন করেছি শুধু মাত্র এ বিষয়ে আপনার মতামত জানার জন্য। আপনার পোষ্ট গুলি অনেক চিন্তার সুযোগ করে দেয়। আমি সব সময় মুক্ত বিশ্বসের অধীকারী। আমি মুক্ত মন নিয়েই আমি সব কিছু জানতে চাই।

"সংকোচেরও বিহ্বলতা নিজেরই অপমান। সংকটেরও কল্পনাতে হয়ও না ম্রিয়মাণ।
মুক্ত কর ভয়। আপন মাঝে শক্তি ধর, নিজেরে কর জয়॥"

১৭ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন সদস্য_১ (২৭-০৩-২০১২ ২০:১৪)

Re: পরিকল্পিত ডিজাইনঃ God Must Be Crazy - হোরাস

ফায়ারফক্স লিখেছেন:

   
অল্প কথায় উত্তর দ্যান...

    ১) শেষপর্যন্ত ১টা বাচ্চাই যদি জন্ম নিবে তাইলে খালি খালি পেটের মধ্যে ২০টারে মারামারি/ কাটাকাটির ডিজাইন করনোর দরকারটা কি ছিলো? অন্য আর দশটা প্রাণীর মত একটা বাচ্চা বড় হইলে অসুবিধা আছিলো?

    ২) কোকিলের লাইগ্যা নিজের বাসায় ডিম পাড়নের ব্যবস্হা করলে কি অসুবিধা আছিলো? অন্যের বাসায় ডিম পাড়লেও খামাকা বাচ্চাগুলারে জন্ম নেয়ার পর মারণের কি দরকার? অন্য আর দশটা পাখির সিস্টেম করণ যাইত না। কুকু ডাক অন্য পাখির বাসায় ডিম থিকা ফুইটা সোজা পানিতে নাইমা হাটা (সাঁতার) দেয়। মারামারির মধ্যে নাই। কোকিলের এই সিস্টেম হইলো না ক্যান?)

invarbrass লিখেছেন:

...
বুঝতেই পারছেন, ইনপুট কমিয়ে দিলে আউটপুটও কিন্তু ভয়ানকভাবে হ্রাস পেয়ে যাচ্ছে। বিবর্তন ঐ পথে যায় না। বরং ইনপুট বাড়িয়ে দিয়ে তুমুল প্রতিযোগীতার মধ্য থেকেই সবচাইতে ফিটেস্ট এলিমেন্টগুলোকে বেরিয়ে আসার সুযোগ করে দেয়।
....

@m0N যেমন বলেছেন survival of the fittest - হাঙর বা কোকিল শাবকগুলো তাদের কম্পিটিটরদের সরিয়ে দিচ্ছে। যেকোনো প্রাণীর জীবনধারণের জন্য প্রচুর রিসোর্সের প্রয়োজন হয়। এমন যদি হয় যে রিসোর্স পরিমিত (লিমিটেড), কিন্তু ব্যবহারকারী অনেক - সেক্ষেত্রে ভাগীদারদের এলিমিনেট করাই যৌক্তিক নয় কি?
...

গুড পয়েন্ট।  thumbs_up

তাছাড়া...
১। বাকি বাচ্চা গুলো আরো উদ্দেশ্য পুরনে করে। যেমন শার্কের ক্ষেত্রে বাকি উনিশটা ভাইবোন শক্তিশালী ভাই বা বোন-টার খাবার যোগায় দীর্ঘ্যদিন ধরে (নিজেদের খাদ্য বানিয়ে)। শিকারী হওয়ার বা হিংশ্রতা শেখার ট্রেনিং হয়... ইত্যাদি। প্রথম থেকেই একটা বড় বাচ্চা শার্ক হলে এই সুবিধা গুলো পেত না।

২। এপদ্ধতি ছাড়া অন্য প্রতিদন্দী পাখির (যেমন কাক) বংশ বিস্তার রোধকরার ক্ষমতা কোকিলের নেই।


Moulay Ismaïl is alleged to have fathered 888 children. This is widely considered the record number of offspring for any man throughout history that can be verified. It is thought that Ismaïl would have had to copulate with an average of 4.8 women per day for 40 years to achieve that number of children.
...
A total of 867 children, including 525 sons and 342 daughters, was noted by 1703 and his 700th son was born in 1721

হিসেবটা ঠিক বুঝলামনা। ৪.৮ * ৩৬৫ *৪০ =৭০০৮০ অন্যদিকে সন্তান হল মাত্র ৮৮৮ জন। কনসিভরেট মাত্র ১.২% । এত কম কেন?

১৮ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন দ্যা ডেডলক (২৩-০১-২০১৩ ১৪:৪০)

Re: পরিকল্পিত ডিজাইনঃ God Must Be Crazy - হোরাস

@ফায়ারফক্স
অসাধারণ একটি জীব বিজ্ঞানের লেখা শেয়ার জন্য ধন্যবাদ। এতো দিন এই টপিক চোখে পরে নাই কিন্তু অন্য একটি টপিকে লিংক পেয়ে এখানে আসা। তাই ঠান্ডা ঠান্ডা রীপু নেন।


ছেলে বিড়াল বা বাঘের কথা এতো দিন জানতাম যে, তারা নিজেদের ছোট ছেলে বাচ্চাদের হত্যা করে কিন্তু স্যান্ড শার্ক এর কথা পড়ে তো পুরা থ হয়ে গেলাম।

আমার একটা প্রশ্ন, জন্মের পরপর এরা এতো জ্ঞান পায় কোথা থেকে যেমন কিভাবে খেতে হয়ে, কিভাবে হত্যা করতে হবে বা কিভাবে প্রজন করতে হবে ?? যেখানে মানুষের বাচ্চারা কিছুই জানে না।


invarbrass লিখেছেন:

"সার্ভাইভাল অব দ্যা ফিটেস্ট"-কে কিছুটা হলেও কাচঁকলা দেখাচ্ছে।

এমনো সময় আসতে পারে যখন খাদ্যের অভাবে মানুষ মানুষকে খেতে বাধ্য হবে !!! জাম্বিদের মতো।

মুন লিখেছেন:

যে মূল টপিকটা লিখেছে সে একজন ঘোর নাস্তিক!

এই টপিকে নাস্তিকতার তো কিছুই পেলাম না। পুরা জীব বিজ্ঞান।

invarbrass লিখেছেন:

গুল্ডের সেই বিখ্যাত উক্তিটি ছিলো অনেকটা এরকম:
টাইম মেশিনে রিওয়াইন্ড করে যদি বার্জেস শেলের ক্যামব্রিয়ান পিরিয়ডে ফিরে যাওয়া যেত, এবং বিবর্তনের ডিভিডিটা আবার রি-প্লে করা হতো... তাহলে আউটকাম সম্পূর্ণরূপে ভিন্ন হতো

অসাধারণ একটি উক্তি  thumbs_up

invarbrass লিখেছেন:

পৃথিবীর জনসংখ্যা ৭ বিলিয়ন নিয়ে বেশ হৈচৈ হয়ে গেছিলো

এই সম্পর্কে আমার ক্লাসের হুজুর বলে ছিল "মুখ দিয়েছে আল্লাহ তাই খাবারও তিনিই দেবেন"।

লেখাটি LGPL এর অধীনে প্রকাশিত

১৯

Re: পরিকল্পিত ডিজাইনঃ God Must Be Crazy - হোরাস

দ্যা ডেডলক লিখেছেন:

আমার একটা প্রশ্ন, জন্মের পরপর এরা এতো জ্ঞান পায় কোথা থেকে যেমন কিভাবে খেতে হয়ে, কিভাবে হত্যা করতে হবে বা কিভাবে প্রজন করতে হবে ?? যেখানে মানুষের বাচ্চারা কিছুই জানে না।

এরজন্য দায়ী সহজাত প্রবৃত্তি(Instinct), বলতে পারেন, একটা ফার্মওয়্যার।
পড়ে দেখতে পারেন, "An Introduction to Animal Behaviour"
কিন্ত এখন সবাই জিজ্ঞেস করবে, এই ফার্মওয়্যার কে লিখল‌ো। ইশ্বর-ই হবে বোধহয়!

Life IS Neither TEMPEST, NOR A midsummer NIGHT'S DREAM, BUT A COMEDY OF Errors,
ENJOY AS U LIKE IT

২০

Re: পরিকল্পিত ডিজাইনঃ God Must Be Crazy - হোরাস

কলেজে আজমল স্যার বিবর্তন পড়াইতে গিয়ে বলছিল, বানর থেকে ডারউইন হইছে, আমরা হই নাই। আমরা আল্লাহর তৈরি!

সাম্প্রদায়িকতার শিক্ষা-অজ্ঞানতার শিক্ষা স্কুল-কলেজ থেকে নিপুন যত্নের সাথে দেয়া হয়।