টপিকঃ প্রভাবশালী সেইসব যন্ত্রপাতি......

প্রযুক্তিনির্ভর আধুনিক জীবনযাপনে অভ্যস্ত হতে যেসব যন্ত্রপাতি বিশেষ ভুমিকা রেখেছে,
সেসবের মধ্যে সবচেয়ে প্রভাবশালী ১২টি যন্ত্রের তালিকা .........



১৯৭৬: জেভিসি এইচআর-৩৩০০   [link]
দাম: ১৪০০ ডলার
এই মডেলের ভিডিও ক্যাসেট রেকর্ডারটি (ভিসিআর) যখন প্রথম বাজারে এল তখন চলচ্চিত্র নির্মাতারা শঙ্কিত হয়ে উঠলেন যে এবার হয়তো তাঁদের ছবি আর চলবে না। কারণ বাড়িতেই যদি মানুষ চলচ্চিত্র দেখার সুযোগ পায় তবে আর প্রেক্ষাগৃহে গিয়ে কেন দেখবে। ৩০ পাউন্ড ওজনের এই ভিসিআরটি ভিএইচএস ঘরানার টেপ চালাতে পারত। ভিসিআর জিনিসটিই এখন আর প্রায় নেই। তার জায়গা দখল করেছে ভিসিডি-ডিভিডি প্লেয়ার ও কম্পিউটার।

১৯৭৭: আটারি ২৬০০   [wiki link]
দাম: ২০০ ডলার
বিশ্বের প্রথম ভিডিও গেম খেলার যন্ত্র এটি। ৪০টিরও বেশি গেম প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান এই যন্ত্রের জন্য ২০০টিরও বেশি গেম তৈরি করেছে। এর মধ্যে জনপ্রিয় গেম প্যাক-ম্যান ও অ্যাস্টেরয়েডও ছিল। এত সাফল্যের পরও আটারি ২৬০০ এখন আর নেই। তার জায়গা দখল করে নিয়েছে নিনটেনডো গেমবয়।

১৯৭৯: সনি ওয়াকম্যান   [wiki link]
দাম: ২০০ ডলার
যুক্তরাষ্ট্রে একে ডাকা হতো ‘সাউন্ডঅ্যাবাউট’ নামে। ব্রিটিশরা ডাকত ‘সফটঅ্যাওয়ে’, অস্ট্রেলীয়রা ডাকত ‘ফ্রিস্টাইল’ বলে। সনির তৈরি এই ওয়াকম্যান ছিল ওজনে হালকা। সে সময় মোট ১৮ কোটি ৬০ লাখ এই ওয়াকম্যান বিক্রি করেছে সনি। এটি এতটাই জনপ্রিয়তা পায় যে অক্সফোর্ড ইংরেজি অভিধানে ১৯৮৬ সালে ওয়াকম্যান শব্দটি অন্তর্ভুক্ত হয়।

১৯৮২: কমোডর-৬৪   [wiki link]
দাম: ৬০০ ডলার
আঙ্গুলের সমান এখনকার একটি পেনড্রাইভে যে পরিমাণ তথ্য জমা করা যায়, তার চেয়ে কম ছিল এর তথ্যধারণের ক্ষমতা। এর র্যাডম ছিল মাত্র ৬৪ কিলোবাইট। তার পরও গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস বলছে, কমোডর-৬৪ নামের এই যন্ত্রটি সর্বকালের সবচেয়ে বেশি বিক্রি হওয়া সিঙ্গেল কম্পিউটার। ১৯৮২ থেকে ১৯৯৩ সালের মধ্যে তিন কোটি কমোডর-৬৪ বিক্রি হয়। পার্সোনাল কম্পিউটারের সফল সুচনা হয়েছিল এ কম্পিউটার দিয়েই।

১৯৮৪: অ্যাপল ম্যাকিনটোশ   [wiki link]
দাম: ২৫০০ ডলার
বাজারে ছাড়ার ১০০ দিনের মধ্যে যখন অ্যাপলের ম্যাকিনটোশ কম্পিউটার বিক্রি হয়ে গেল তখন এর নির্মাতা স্টিভ জবস নিজের ওপর আরও আস্থাশীল হয়ে উঠলেন। ১০০ দিনেই ম্যাকিনটোশ কম্পিউটার বিক্রি করে দেড় কোটি ডলার আয় করে অ্যাপল। ম্যাকিনটোশে ব্যবহূত সফটওয়্যার, গ্রাফিক্স আর আইকন ব্যাপক জনপ্রিয়তা পায়। মূলধারার কম্পিউটারগুলোর মধ্যে একটি ছিল ম্যাকিনটোশ। অ্যাপলই প্রথম কম্পিউটারে কাজ করার জন্য মাউসের প্রচলন করে।

১৯৮৯: নিনটেনডো গেমবয়   [wiki link]
দাম: ৯০ ডলার
গেম প্রস্তুতকারকেরা ভিডিও গেম খেলার এই ছোট্ট যন্ত্রের জন্য শত শত গেম তৈরি করেন। এটি যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে শিশুদের হাতে ডিজিটাল খেলনা তুলে দেয়। শিশুরা ইচ্ছেমতো খেলতে থাকে এই গেম। এই ভিডিও গেম প্লেয়ারের পর্দা ছিল কালো এবং সবুজ, যা কোনোভাবেই আজকালকার ঝকঝকে কম্পিউটার পর্দার মতো নয়। এই গেম খেলার যন্ত্রের নাম ছিল গেমবয়। গেমবয়ের সঙ্গে তখন টেট্রিসের মতো কিছু গেম দিয়ে দেওয়া হতো। গেম খেলার আজকের যন্ত্রগুলোর তুলনায় গেমবয় কিছুই নয়, তার পরও এটি ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছিল। সনির প্লেস্টেশন পোর্টেবল (পিএসপি) বাজারে আসার পর নিনটেনডোর চাহিদা কমে যায়।

১৯৯৩: অ্যাপল নিউটন মেসেজপ্যাড    [wiki link]
দাম: ৭০০ ডলার
পারসোনাল ডিজিটাল অ্যাসিস্ট্যান্ট (পিডিএ) বাজারে আসার আগে অ্যাপল এই ইলেকট্রনিক অর্গানাইজারটি তৈরি করেছিল। এটি হাতের লেখা শনাক্ত করতে পারত। ওজনে ভারী হওয়ায় এবং দাম বেশি হওয়ায় নিউটন মেসেজপ্যাড মানুষের মনোযোগ খুব বেশি আকর্ষণ করতে পারেনি। তবে এ থেকে ধারণা নিয়ে পরবর্তীকালে উদ্ভাবন করা হয় পিডিএ এবং পামটপ কম্পিউটার।

১৯৯৯: ব্ল্যাকবেরি   [wiki link]
দাম: ৪০০ ডলার
মোশন নামে একটি প্রতিষ্ঠান তৈরি করে মোবাইল ফোনসহ ব্ল্যাকবেরি নামের এই পিডিএ। বিরামহীনভাবে এই কিবোর্ডে টাইপ করতে করতে অনেকে আঙ্গুল ভেঙে যাওয়ার অভিযোগও করেছে। তবে সরকারি অফিস, প্রযুক্তিনির্ভর প্রতিষ্ঠান ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোয় একসময় ব্ল্যাকবেরি ছাড়া কোনো কাজই হতো না। অনেকে এটিকে এমনভাবে ভালোবেসে ফেলে যে তারা একে ক্র্যাকবেরি নামে ডাকতে শুরু করে। যারা সব সময় ছোটাছুটির মধ্যে থাকত তাদের ই-মেইল আদানপ্রদান, যোগাযোগ রাখা সবই তারা করত এই ব্ল্যাকবেরি দিয়ে।

১৯৯৯: টিভো     [wiki link]
দাম: ৫০০ ডলার এবং মাসে গ্রাহক ফি ১০ ডলার
এটি এক ধরনের ডিজিটাল ভিডিও রেকর্ডার। টেলিভিশন থেকে যেকোনো অনুষ্ঠান ধারণ করা যেত টিভোতে। ভিডিও ক্যাসেটও দেখা যেত টিভোতে। চাহিদামতো চলচ্চিত্র বা ভিডিও দেখা যেত এ যন্ত্র দিয়ে। শুধু গুনতে হতো মাসিক ভাড়া। ডিজিটাল ভিডিও রেকর্ডিং (ডিভিআর) প্রযুক্তি জনপ্রিয় করার ক্ষেত্রে টিভোর অবদান অনেকখানি। যুক্তরাষ্ট্রে টিভো কেব্ল সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর ব্যাপক প্রতিযোগিতার মুখে পড়েছে। তবে অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডে এখনো টিভোর ব্যাপক চাহিদা রয়েছে।


২০০১: অ্যাপল আইপড   [wiki link]
দাম: ৪০০ ডলার
আইপডের আগে ছিল এমপিথ্রি প্লেয়ার। গান শোনার এই যন্ত্রটিতে মাত্র আটটি গান সংরক্ষণ করা যেত। অ্যাপল কম্পিউটারের স্টিভ জবস ও তাঁর সঙ্গীসাথিরা একসঙ্গে এক হাজার গান সংরক্ষণক্ষমতার আইপড বাজারে নিয়ে এলেন। এরপর অবশ্য আইপডের আরও উন্নত সংস্করণ বের হয়েছে। এখন এক হাজারেরও বেশি গান একসঙ্গে সংরক্ষণ করা যায়। ২০০৫ সালে ১০টি ডিজিটাল গান বাজানোর যন্ত্রের মধ্যে আটটিরও বেশি বিক্রি হয় আইপড।

২০০২: স্যানিও এসসিপি-৫৩০০    [link]
দাম: ৪০০ ডলার
ইনফো ট্রেন্ডসের মতে, ২০১০ সাল নাগাদ ক্যামেরা ফোনের মাধ্যমে তোলা ছবির সংখ্যা দাঁড়াবে ২২ হাজার ৮০০ কোটিতে। এই সংখ্যা ডিজিটাল স্টিল ক্যামেরা ও ফিল্ম ক্যামেরায় এ যাবৎ তোলা ছবির চেয়ে বেশি। ২০০২ সালে প্রথম ক্যামেরা সংবলিত মোবাইল ফোন স্যানিও এসসিপি ৫৩০০ বাজারে আসে। লিয়া রিসার্চের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ওই বছর ক্যামেরা ফোনের মাধ্যমে চার হাজার কোটি ছবি তোলা হয়। ২০০৫ সালে এই সংখ্যা দাঁড়ায় ২০ হাজার কোটিতে।

২০০৭ : অ্যাপল আইফোন    [wiki link]
দাম : ৫০০ ডলার এবং মাসিক সেবার জন্য ৬০ ডলার
অ্যাপলের এই নতুন ফোনটি বাজারে ছাড়া হয়েছে মাত্র পাঁচ মাস আগে। এতে কথা বলার পাশাপাশি রয়েছে গান শোনা, সিনেমা দেখা ও ইন্টারনেট ব্যবহারের সুবিধা। এতে কোনো কিবোর্ড বা স্টাইলাস (কাঠি) নেই। হাতের স্পর্শে আইফোনের যাবতীয় কার্যক্রম পরিচালিত হয়। অ্যাপল আশা করছে, আইপডের মতো আইফোনও ব্যাপক জনপ্রিয়তা পাবে। বাজারে আসার মাত্র ৭৪ দিনের মাথায় ১০ লাখ আইফোন বিক্রি হয়েছে।



সূত্রঃ প্রথম আলো
কৃতজ্ঞতাঃ মুর্শেদের ইউনিকোড লেখনী ও পরিবর্তক

ফেসবুকে আমি...

[img]http://img718.imageshack.us/img718/3600/madarak3898937.gif[/img]

Re: প্রভাবশালী সেইসব যন্ত্রপাতি......

Good .
অনেক information. সামনে BCS ! কাজে আসতে পারে ।

:">:">:">:">:">:">:">:">:">

চেষ্টার কোন শেষ নাই !!!!

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন সাকিব (০২-০৩-২০০৮ ১৭:২৪)

Re: প্রভাবশালী সেইসব যন্ত্রপাতি......

চালের দাম বারে, মানুসের না

মানুষ বানান টা মনে হয় এই ভাবে হবে
বাড়ে বানান টা মনে হয় এই ভাবে হবে

ফেসবুকে আমি...

[img]http://img718.imageshack.us/img718/3600/madarak3898937.gif[/img]

Re: প্রভাবশালী সেইসব যন্ত্রপাতি......

ভালো কিছু ইনফো জানা গেল। অনেক ধন্যবাদ(y)।

[img]http://fixpc.co.za/iplocator/flag.php[/img] Let's Go BIG!! [img]http://g.imagehost.org/0746/biggrin.gif[/img]

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন আকাশ (০৩-০৩-২০০৮ ২০:৪৯)

Re: প্রভাবশালী সেইসব যন্ত্রপাতি......

আরে ভাই বাংলায় অভ্যস্ত হতে পারিনি ।  smilesmile:):):):):):)

চেষ্টার কোন শেষ নাই !!!!

Re: প্রভাবশালী সেইসব যন্ত্রপাতি......

অনেক ভালো ভালো তথ্য পাইলাম

থেংকু

Rhythm - Motivation Myself Psychedelic Thoughts

লেখাটি CC by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত