টপিকঃ শিক্ষা-নারীনীতি-সরকার ও বিশ্বাসীদের করনীয়।

গত কিছুদিন পুর্বে আমার করা এই পোষ্টের একটি মন্তব্যের প্রেক্ষিতে আমার এই নিচের লেখাটি সবার পড়া দরকার মনে করে আলাদা পোষ্ট আকারে দেয়া হল। (নিয়ম বহির্ভুত হলে যথাযথ ব্যবস্থায় আপত্তি নেই।)

শিক্ষিত নারীদের জন্য আলাদা কোন নীতি দরকার হয় না। তার নিজেরাই তাদের ভাল মন্দ বুঝতে পারে।
হাজারটা আইন পাশ করলেও এখানে যেই নীতি গুলো আছে তার ১০% ও বাস্তবায়ন হবে না! আমাদের দেশে আইনের প্রয়োগ যে কতটুকু তা আশা করি সবাই ভাল ভাবেই জানেন।


"শিক্ষিত" বলতে আমারা কী বিশ্বজনীন সংজ্ঞা পাই? তাই জানতে আগ্রহী "শিক্ষিত" বলতে আমরা এই প্রেক্ষিতে কি ধরতে পারি?
আরেক টি গুরুত্বপূর্ণ ব্যপার হল, আইন প্রণয়ন প্রয়োগ ও বাস্তবায়ন দুটি সম্পুর্ন ভিন্ন কাজ। যার উদাহরন হিসেবে আমি দ্রুত বিচার আইন অথবা ৫৪ ধারা আইন এর প্রণয়ন ও এগুলোর প্রয়োগের দিকে সবার দৃষ্টি আকর্ষন করতে চাই।

ইসলাম যেখানে নারীদের বসে খাওয়ার (যেহেতু তার খরপোষের দায়িত্ব পিতা/ভাই/স্বামী/পুত্র) অধিকার দিয়েছে, তার বিপরীতে এখন আমাদের কতেকের চাওয়া নারীকে তার রিজিক নিজে উপার্জন করে নিতে হবে। পিতার ঘরে কন্যা, স্বামীর ঘরে স্ত্রী, ভাইয়ের ঘরে বোন, পুত্রের ঘরে মা কে কাজ করে খেতে হবে কারন সমাধিকার এর ক্ষেত্রে দায়িত্বও সমবন্টিত হওয়াই স্বাভাবিক। তাই এই অধিকার নিশ্চিত করন কিসের অধিকার প্রদান তা সুস্থ বিবেক সম্পন্ন মানবের জিজ্ঞাসা হওয়াই স্বাভাবিক।

আরেকটি বাস্তবতার অসামঞ্জস্যতার দিকে একটু ইঙ্গিত না করলেই নয়, আমরা চরম স্ববিরোধী অবস্থাযর সৃষ্টি করে সামাজিক শৃংখলা রক্ষা ও নারী অধিকার নিয়ে কথা বলছি যেখানে, তেতুঁল বাধ্যতামুলক অনাবৃত প্রদর্শিত হবে কিন্তু মানুষের জ্বিভে পানি আসলে তা হবে শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

আরেকটি কথা বর্তমান নারীনীতিটি জাতিসংঘ কর্তৃক প্রবর্তিত একটি এজেন্ডা যেটি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বাস্তুবায়ন ও বাস্তবায়নের উপযোগিতা যাচাইয়ের জন্য প্রেরিত। আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভারত (পাকিস্তান ও) যেখানে এই নীতি বাস্তবায়নের কোন  আগ্রহই দেখায়নি সেখানে ছাগলের তিন নম্বর বাচ্চার মত আমার দেশের এই অতি আগ্রহান্বিত অবস্থানের কারন কী।

আরেকটি স্পর্শকাতর বিষয়ে আমাদের সবাইকে দলমত-ইস্যু নির্বিশেষে সোচ্চার হওয়া উচিত সরকারের মুনাফেকী আচরনের বিরুদ্ধে যেখানে সরকার জনগণের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টির ঘৃন্য অপচেষ্টায় লিপ্ত।

অনেক কথা লিখে ফেললাম, কারো কারো কাছে আজাইরা প্যচাঁল মনে হতে পারে।

শেষ করার পুর্বে একটি কথা সব ইসলামে বিশ্বাসীদের জন্য জানিয়ে দিতে চাই, কুরআন এর একটি অক্ষরের সাথেও যদি কারো দ্বিমত থাকে তাহলে সে ইসলামের গন্ডি হতে বের হয়ে গেল, আর তার দ্বিমতের দ্বারা সে একথাই বলতে চায় যে, কুরআন এর নাজিলকারী কিছু ভুল অথবা অপাংক্তেয় বিষয়ও কুরআনে দিয়েছেন, যা এই আধুনিক সময়ে অচল।

কিন্তু তাদের জন্য আমার শেষ কথা, কুরআন এর শুরুতেই ঘোষণা রয়েছে যে "এই সেই মহাগ্রন্থ যাতে কোন ভুল নেই", এবং কুরআন এর ভিতর কয়েক জায়গায় আছে, "তারা যদি পারে এই কুরআন এর মত একটি কুরআন/ পারা/সুরা/আয়াত বানিয়ে নিয়ে আনুক, যদিও তার নিশ্চিত ভাবে ব্যর্থ হবে"।

তাই বিশ্বাসীদের উচিত হবে কুরআন এর সাথে বিরোধীতায় না যাওয়া, আর যদি বর্তমান কোন কুরআন এর জ্ঞানে জ্ঞানীর(আলেম এর) উপর বিশ্বাস স্থাপন না করতে পারি তবে নিজেই কুরআন এর জ্ঞান অর্জন করে নিজের পথ ও গন্তব্য নির্ধারন করে নেয়া।

<জট্টিল কুরআনিক সাইট>
বৃত্তিতে আই টি প্রফেশনাল হওয়ার তালিম নেয়া শুরু করলাম।
ইসলাম সম্পর্কে পুর্ণাঙ্গ জ্ঞান পেতে দেখুন ইসলাম & লাইফ .অরগ

Re: শিক্ষা-নারীনীতি-সরকার ও বিশ্বাসীদের করনীয়।

অনেক ভালো ভালো কিছু কথা বলেছেন ভাই ।

IMDb; Phone: Huawei Y9 (2018); PC: Windows 10 Pro 64-bit

Re: শিক্ষা-নারীনীতি-সরকার ও বিশ্বাসীদের করনীয়।

সবাইকে সাধ্য ও সুযোগমত জানিয়ে দিয়ে নিজের দায়িত্ব থেকে অব্যহতি পেতে চাই।

সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আরো একটি লেখা পাবেন এখানে নারী নীতির পক্ষের পন্ডিতদের কাছে কয়েকটি সাধারণ প্রশ্ন সামু থেকে।

<জট্টিল কুরআনিক সাইট>
বৃত্তিতে আই টি প্রফেশনাল হওয়ার তালিম নেয়া শুরু করলাম।
ইসলাম সম্পর্কে পুর্ণাঙ্গ জ্ঞান পেতে দেখুন ইসলাম & লাইফ .অরগ