সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন ঝামেলা (০৪-০৩-২০১১ ২০:৫০)

টপিকঃ বিশ্বকাপের চিত্র-বিচিত্র

আগের জুলে রিমে ট্রফিকে বেশ কিছুদিন থাকতে হয়েছিল মাটির তলায়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের আগে ১৯৩৮ সালে বিশ্বকাপ জিতেছিল ইতালি। ফলে বিশ্বযুদ্ধের সময় নাৎসি বাহিনীর কয়েকজনের লক্ষ্য ছিল ওই বিশ্বকাপ। তারা বিশ্বকাপ হাতিয়ে নেওয়ার

চেষ্টায় ছিল। এটা জানতে পেরেই ইতালির ফুটবল কর্তারা ৭ হাত মাটির নিচে পুঁতে রাখেন জুলে রিমে ট্রফিটিকে। বিশ্বযুদ্ধ শেষ হওয়ার পর আবার মাটির তলা থেকে বের করা হয় বিশ্বকাপ।

ভাই ভাই

বিশ্বকাপে দুই ভাই একসঙ্গে খেলেছেন এরকম নজির আছে বেশ কয়েকটি। ১৯৮২ সালে

সোভিয়েত ইউনিয়ন দলে ছিলেন দুই ভাই, ভি'র চানভ ও ভাসেস্লাভ চানভ। উল্লেখ করার মতো

ব্যাপার হলো, দু'জনেই ছিলেন গোলকীপার। কিন্তু দুজনের কেউই ম্যাচ খেলার সুযোগ পাননি। কারণ তখন দুর্দান্ত ফর্মে ছিলেন মূল গোলরক্ষক রিনাত দাসায়েভ। তিন ম্যাচই খেলেছিলেন দাসায়েভ।

A থেকে Z

১৯৮৬ সালের বিশ্বকাপ সেমিফাইনালে পশ্চিম জার্মানির বিরুদ্ধে ফ্রান্সের বেলোনের পরিবর্তে ৬৬ মিনিটে মাঠে নামেন ড্যানিয়েল ক্রুরেভ (DANIEL XUEREB)। তিনি মাঠে নামার সঙ্গে সঙ্গে ইংরেজি বর্ণমালার A থেকে Z পর্যন্ত সব বর্ণ দিয়ে শুরু হওয়া পদবির খেলোয়াড়ের বিশ্বকাপে খেলা হয়ে যায়।

মারিও জাগালো কাহিনী

ব্রাজিলের প্রথম বিশ্বকাপ জয়ের অন্যতম নায়ক মারিও জাগালো। সুইডেনের বিপক্ষে ১৯৫৮-এর ফাইনালে গোলও পেয়েছিলেন তিনি। পরের আসরেও ছিলেন ব্রাজিলের বিশ্বকাপজয়ী দলের

সদস্য। ১৯৬৬ তে ব্যর্থতার পর ব্রাজিলের কোচের দায়িত্ব পান জাগালো। আশাহত করেননি

সমর্থকদের। সাম্বার নাচন তুলে ৭০-এর বিশ্বকাপ এনে দেন তিনিই। সে সঙ্গে গড়েন

ফুটবলারেরপর

কোচ হিসেবে বিশ্বকাপ জয়ের নতুন ইতিহাস। পরের আসরে ব্রাজিলকে সেমিফাইনালে নিয়ে যাওয়া জাগালো ১৯৯৮ বিশ্বকাপে ফাইনালেও পেঁৗছে দিয়েছিলেন রোনালদোদের। এ ছাড়া সহকারী কোচের দায়িত্বে ছিলেন ১৯৯৪ বিশ্বকাপজয়ী দলেরও। বিশ্বকাপ আসলে দুই হাত ভরে দিয়েছে জাগালোকে।

পিতা-পুত্র

১৯৯৮ সালে বিশ্বকাপে ইতালির কোচ ছিলেন সিজার মালদিনি। আর সেই দলের খেলোয়াড়

ছিলেন সিজারের পুত্র পাওলো মালদিনি। সেবার পাওলো ছিলেন ইতালির অধিনায়কও। বাবা কোচ, ছেলে সে দলের খেলোয়াড়, বিশ্বকাপে প্রথম নজির ওটাই। জার্মানিতে গত বিশ্বকাপে সেই নজির ধরে ফেলেন ক্রোয়েশিয়ার জাটকো ও নিকো ক্রানিয়েকার। বাবা জাটকো ছিলেন কোচ। ছেলে নিকো দলের গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়।


রাজার দল!

কোনো জাতীয় নির্বাচন কমিটি নয়, জাতীয় কোচও নন। ১৯৩০ সালে প্রথম বিশ্বকাপ ফুটবলে রোমানিয়া দল বাছাই করেছিলেন সে দেশের রাজা। আপাদমস্তক ফুটবলপ্রেমী ছিলেন রাজা ক্যারল। অন্য কারো ওপর ভরসা না রেখে নিজেই মাঠে এসে খেলা দেখে দল গড়েছিলেন। শুধু তাই নয, ওই দলের অধিকাংশ ফুটবলারই চাকরি করতেন ব্রিটিশ অয়েল কোম্পানিতে। কর্তৃপক্ষ ফুটবলারদের ছুটি দিতে রাজি ছিলেন না। বিনা অনুমতিতে খেলতে গেলে চাকরি যাওয়ার ভয় ছিল। কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে ছুটির ব্যবস্থাও করে দিয়েছিলেন রাজা।



কুয়াশার জন্য!

সরকারি হিসাবে উরুগুয়েতে ১৯৩০ সালের প্রথম বিশ্বকাপ ফাইনাল খেলা দেখেছিলেন ৯৩ হাজার দর্শক। অনেককেই টিকিট কিনতে হয়েছিল কালোবাজারে। টিকিটের চাহিদা আরো বাড়ত। বাড়েনি ঘনকুয়াশার জন্য। দেশ ফাইনালে উঠেছে জেনে আর্জেন্টিনার কয়েক হাজার সমর্থক ১০টি চার্টার্ড বোটে রওয়ানা হয়েছিলেন উরুগুয়ের মন্টেভিডিওর উদ্দেশে। জলপথে ঘনকুয়াশায় সময়মতো ৮টি চার্টার্ড বোট পৌঁছতে পারেনি। ফলে হতাশ হয়েই ওই সমর্থকদের ফিরে যেতে হয়েছিল দেশে।


দাদা ভাই

১৯৫৪ সালে বিশ্বকাপে ব্রাজিলের কোচ ছিলেন আলফ্রেডো মোরেইরা। যিনি বিখ্যাত ছিলেন জে জে মোরেইরা নামে। তিনি ব্রাজিলকে বিশ্বকাপ এনে দিতে পারেননি; কিন্তু পেরেছিলেন তার দাদা আইমোর মোরেইরা। যিনি ছিলেন ১৯৬২ সালে বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল দলের কোচ। আইমোর ছিলেন জে জে'র চেয়ে বয়সে সাড়ে পাঁচ বছরের বড়। দু'জনই অবশ্য মারা গিয়েছিলেন একই বছরে, সাড়ে তিন মাসের ব্যবধানে, ১৯৯৮ সালে।

সুত্রঃ বিডি প্রতিদিন ।

জীবনে চলার পথে কখনও কখনও উদাসীন হতে হয় , তা না হলে জীবন জটিল হয়ে যায় ।

লেখাটি CC by-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: বিশ্বকাপের চিত্র-বিচিত্র

শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ।

Blood group = O+ 
কিভাবে ভাল হওয়া যায়?  হিংষা মানুষকে পশু বানায় , লোভ বানায় অন্ধ।
ম্যানপাওয়ার করে বিদেশে যান বৈধ ভাবে এর জন্য যোগাযোগ করতে পারেন আমার সাথে।

Re: বিশ্বকাপের চিত্র-বিচিত্র

মডারেশন নোট
মৌলিক লেখা ছাড়া পোর্টাল পাতায় প্রকাশ করা যাবে না। তাই পোস্টটি পোর্টাল থেকে সরিয়ে নেয়া হল এবং ভবিষ্যতে পোর্টাল পাতায় পোস্ট করার সময়ে এই নিয়মগুলো সতর্কতার সাথে বিবেচনার অনুরোধ থাকলো।

==
এখন একটা ক্রিকেট বিশ্বকাপ চলছে এবং বাংলাদেশও সেটার সহ আয়োজক। ফুটবল বিশ্বকাপের খবর এই সময়ে আসলো কী মনে করে জানতে ইচ্ছা করছে। এছাড়া কপি করা লেখার লাইন ভেঙ্গে যাওয়ায় পড়তেও অসুবিধা হচ্ছে।  roll

Re: বিশ্বকাপের চিত্র-বিচিত্র

মূল সূত্র লিংক সহ দিন।

লেখাটি LGPL এর অধীনে প্রকাশিত

Re: বিশ্বকাপের চিত্র-বিচিত্র

দ্যা ডেডলক লিখেছেন:

মূল সূত্র লিংক সহ দিন।

কেন ভাই লেখাগুলি কি বিশ্বাসযোগ্য না ?  sad

জীবনে চলার পথে কখনও কখনও উদাসীন হতে হয় , তা না হলে জীবন জটিল হয়ে যায় ।

লেখাটি CC by-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: বিশ্বকাপের চিত্র-বিচিত্র

শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ। clap clap

۞ بِسْمِ اللهِ الْرَّحْمَنِ الْرَّحِيمِ •۞
۞ قُلْ هُوَ اللَّهُ أَحَدٌ ۞ اللَّهُ الصَّمَدُ ۞ لَمْ * • ۞
۞ يَلِدْ وَلَمْ يُولَدْ ۞ وَلَمْ يَكُن لَّهُ كُفُوًا أَحَدٌ * • ۞

Re: বিশ্বকাপের চিত্র-বিচিত্র

ধন্যবাদ শেয়ার করার জন্য!

ওয়েব হোস্টিং | রিসেলার হোস্টিং | অনলাইন রেডিও হোস্টিং
টেট্রাহোস্ট বাংলাদেশ - www.tetrahostbd.com