সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন ইন্জ্ঞিনিয়ার (১৫-১০-২০১০ ২৩:৫৪)

টপিকঃ ব্র্যাক ব্যাংক আমারে পাগল করে ছাড়ল..

আজ বিকালে (১৫ অক্টোবর) ব্র্যাকের ATM বুথ থেকে টাকা তুললাম। কয়েক ঘন্টা পরে ইন্টারনেট ব্যাংকিং এ লগিন করে দেখি তাদের দুই স্টেটমেন্ট দুই রকম কথা বলে। ডিটেইলড স্টেটমেন্ট বলছে সর্বশেষ ট্রানজেকশন ৭ অক্টোবর, মানে আজকেরটা আপডেট হয় নি। সেটাও ভাল, কিন্তু মিনি স্টেটমেন্ট যেটা করছে সেটা ভয়াবহ। সেটায় আজকের ট্রানজেকশন দেখাচ্ছে, কিন্তু তারিখ ১৬ ই অক্টোবর।

দিলাম কল কাস্টমার কেয়ারে। ব্যাটা কল ধরে বলে স্যার আজকে ছুটি তো তাই কালকের ডেট দেখাচ্ছে!!! angry angry angry আমি বললাম কালকেও তো ছুটি! আর কিছু না বলতে পেরে বলল, বিষয়টা দেখবে। নোট নিতে বললাম, বলে আমাদের সিস্টেম আপগ্রেডের কাজ চলছে, তাই এখন আমি ট্রানজেকশন দেখতে পারছি না!!!

http://img87.imageshack.us/img87/6313/statjf.png


আমি বুঝি না একটা ব্যাংকের সিস্টেম কিভাবে এই ধরনের ভুল করতে পারে। তারা নাকি লাখ লাখ ডলার দিয়ে স্পেশালাইজড সফটওয়ার কিনে! তার এই হাল কেন!!! আমার এই সামান্য টাকার তারিখ গড়মিল হলে না হয় কিছু হবে না, কিন্তু এই ঘটনা তো বড় অ্যামাউন্টের গুরুত্বপূর্ণ ট্রানজেকশনেও হতে পারে। সেসব ক্ষেত্রে তো একদিনের গোলমাল অনেক বড় সমস্যা করতে পারে। তখন এরা কি করবে!!!

ইন্জ্ঞিনিয়ার'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন invarbrass (১৬-১০-২০১০ ০১:২১)

Re: ব্র্যাক ব্যাংক আমারে পাগল করে ছাড়ল..

ভাইরে, এখনকার ব্যাংকগুলো দুনিয়ার কঞ্জুস - লাখ লাখ ডলার দিয়ে স্পেশালাইজড সফটওয়্যার কেনে না, কোনোমতে ইনহাউস স্টাফ দিয়ে ঠেকা দিয়ে কাজ চালায়।

এই ব্যাপারে তিক্ত অভিজ্ঞতা আছে।

আমাদের ক্লিনিকে একটি নামী ব্যাংকের (নাম গোপন রাখছি) একজন সিস্টেম এ্যানালিস্ট ৪/৫ বছর আগে ক্লিনিক ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যার ডেভেলপ করেছিলেন - সফটওয়্যারটি ওরাকল ডেটাবেইজ দিয়ে করা। সফটওয়্যার মেইন্টেনেন্সের জন্য প্রতি বছর তাঁকে মোটা টাকা দেয়া হতো, ক্লিনিকের খরচে তাঁকে বাংলাদেশ বিমানে বহুবার ঢাকা-চট্টগ্রাম করানো হয়েছে।

যাকগে, গত কয়েক মাস ধরে সফটওয়্যারটিতে প্রচুর সমস্যা দেখা দিচ্ছিলো। তো সিস্টেম এ্যানালিস্ট সাহেব কারণ বের করলেন যে সার্ভারের মেমরী কম (আগে ২ গিবা ছিলো), আরো র‌্যাম বাড়াতে হবে। তাঁর কথামত ৬০,০০০ /- টাকা দিয়ে ২ গিগাবাইট ECC র‌্যাম কেনা হলো (পরে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে ২গিগা রেজিস্টার্ড র‌্যামের দাম ১৫-২০ হাজারের বেশি হবার কথা না)। যাকগে, অতিরিক্ত র‌্যাম লাগিয়ে কোনো লাভই হলো না, সিস্টেম যথারিতী চরম স্লো।

তারপর ফতোয়া জারী হলো যে অনেক বেশি পুরণো ডেটা জমে গেছে - ওগুলো ডিলিট করতে হবে। তো ঘটা করে সব পুরণো ডেটা ডিলিটও করে দেয়া হলো। এতেও কোনো লাভ হলো না, সিস্টেম আগের মতই শম্বুক গতিতে ল্যাংচাতে লাগলো।

ব্যাপারটা শুনে আমার কাছে বেশ হাস্যকর লেগেছিলো - ওরাকলের মত এন্টারপ্রাইয ডেটাবেইজ যে ১০০-১৫০ বিলিয়ন রেকর্ড কোনো ঝামেলা ছাড়াই মেন্টেন করতে পারে, সেই ওরাকল ১-১.৫ লাখ রেকর্ড সামলাতে গিয়ে গলদঘর্ম হচ্ছে!

যাকগে, কোনো ভাবেই সমস্যার সমাধান না হওয়ায় আমার উপর দায়িত্ব পড়লো এই আযাব থেকে মুক্তির কোনো উপায় আছে কিনা বের করতে।

একদিন সার্ভারে ঢুকে দেখি এলাহী কারবার! সার্ভারে দুই ধরনের ইনম্প্যাটিবল র‌্যাম লাগানো হয়েছে - যার কারণে পুরো সিস্টেম কয়েক সেকেন্ডের জন্য ঘনঘন "হ্যাংড" হয়ে থাকছে। মজার কথা, ৪ গিগা র‌্যাম দিলেও ওপারেটিং সিস্টেম ৩২-বিটের - তাই ইউজেবল র‌্যাম সর্বোচ্চ ৩ গিগা দেখাচ্ছে। আরো মজার কথা, এ্যানালিস্ট সাহেব এত খরচ করে মেমরী আপগ্রেড করালেও ওরাকলের ক্যাশিং/বাফারিং ফীচার কিছুই টিউন করেন নি। অপারেটিং সিস্টেম এবং ডেটাবেইজ মিলে মাত্র ৩৫০ মেগাবাইট মেমরী ব্যবহার করছে!

তারপর একদিন ডেটাবেযে হাত দিলাম।

বাপরে বাপ!  dontsee এতো জঘন্যভাবে ডিজাইন করা ডেটাবেজ জীবনে দেখিনাই!  hairpull ডেটাবেযে ঘোরাঘুরির সময় বারবার মনে হচ্ছিলো একজন ইউনিভার্সিটি ছাত্র যে জীবনে প্রথমবার ২/১ মাস ডেটাবেয ডিজাইন পৃন্সিপলস কোর্স করেছে এমনকি সেও এর চাইতে ভালো এবং টেকনিকালী প্রপার ডেটাবেয মডেলিং করতে পারবে! ডেটাবেয ডিজাইনের বইগুলোর চ্যাপ্টার ১-এ যে নরমালাইযেশন, ইন্ডেক্সিং, primary keys, foreign key, referential integrity ইত্যাদি বেসিক বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা থাকে - এই ভদ্রলোক জীবনে এসবের নাম শুনেছেন কিনা সন্দেহ আছে!  hairpull

মোদ্দাকথা, তাঁর ডেভেলপকৃত সিস্টেমে যেখানেই হাত দিয়েছি সেখানেই অতি নিম্নমানের প্রফেশনালিযমের পরিচয় পেয়েছি।

আমি যখন ডেটাবেইয নাড়াচাড়া করি তখন গত ২/৩ মাসের ডেটা পেয়েছি (এর আগের সমস্ত ডেটা মুছে ফেলা হয়েছিলো)। এই অল্প পরিমাণ ডেটা এ্যানালাইসিস করতে গিয়েও দেখি প্রচুর ভুলভাল। সবচাইতে মারাত্বক ভুলগুলো ছিলো এ্যাকাউন্টিং সাবসিস্টেমে। একজন রুগী যখন পরীক্ষা করাতে আসেন, তিনি সাধারণতঃ পুরো বিল একবারে পরিশোধ করেন না। হয়তো তাঁর বিল এসেছে ১০০ টাকা, তিনি ২০ টাকা এ্যাডভান্স দিয়েছেন, বকেয়া ৮০ টাকা পরীক্ষার রিপোর্ট কালেক্ট করার সময় পরিশোধ করেছেন। এসব তথ্যগুলো ডেটাবেযে স্টোর করা হচ্ছে। তো ডেটাবেয কুয়েরী করতে গিয়ে দেখি প্রচুর ইনভ্যালিড ডেটা - রুগীর বিল এসেছে ১০০ টাকা, কিন্তু তার বকেয়া আদায় দেখাচ্ছে ৪০০ টাকা! প্রায় প্রতি দিনই বেশ কয়েকবার এই ধরণের ইনভ্যালিড ডেটা পেয়েছি। এটা অবশ্যই ক্যাশিয়ারের টাইপিং মিসটেকের কারনে হয়েছে। কিন্তু ব্যাপার তা নয় - ডেটাবেযে ভুল তথ্য ধরার জন্য করার অনেক বিল্ট-ইন ফীচার আছে। ডেটা ভ্যালিডেশনের কোনো সুবিধাই তিনি ব্যবহার করেন নি। এই ভুলের কারণে প্রতি মাসে ক্লিনিকের সম্ভাব্য কিছু আর্থিক ক্ষতি হচ্ছে।

একটা প্রাইভেট ক্লিনিকের ছোটোখাটো এ্যাকাউন্টিং সিস্টেমেরই যদি এই করুণ দশা হয়, তাহলে ওই ব্যাংকের রিয়েল টাইম ট্র্যানয্যাক্সন-এর তো ছেড়ে দে মা কেঁদে বাচিঁ অবস্থা হওয়া উচিত! hairpull

অথচ এই ভদ্রলোকের তৈরী করা সফটওয়্যার দিয়ে ওই ব্যাংকটি চলছে। তাঁর নিজের মুখে শুনেছি, দেশের মধ্যে ব্যাংকটির  ১০০টির বেশি কম্পিউটারাইযড ব্রাঞ্চ আছে, দেশের বাইরেও আরো কয়েকটি ব্রাঞ্চ আছে - সবগুলো ব্রাঞ্চই একটি সেন্ট্রাল ইন্টার্নাল নেটওয়ার্কে কানেক্টেড। প্রতি ব্রাঞ্চে গড়ে কমপক্ষে ৫ জন অপারেটর ধরলে ৪-৫০০ সাইমাল্টেনাস ইউজার তাঁর ডেভেলপকৃত সিস্টেম ব্যবহার করছে। প্রতি বছর ব্যাংকের খরচে তাঁকে লন্ডনে পাঠানো হয় সফটওয়্যার মেন্টেন করার জন্য।

ঊপস! বিরাট অফটপিক পোস্টের জন্য দূঃখিত।  tongue

বিঃদ্রঃ - ইন্টার্ণী করার সময় সরকার ওই ব্যাংকেই আমাদের বেতন জমা করতো। ঘোরতর সন্দেহ হচ্ছে, এই সিস্টেম এ্যানালিস্টের চক্করে পড়ে ২/৪ টাকা ঠকে গেলাম নাকি?!  lol

Calm... like a bomb.

Re: ব্র্যাক ব্যাংক আমারে পাগল করে ছাড়ল..

আমি তো জানতাম ব্যাংকগুলো ফ্লেক্সকিউব নামের একটা বিশ্ববিখ্যাত সফটওয়্যার ব্যবহার করে!!!

আপনি যে কথা শোনালেন তাতে তো মনে হচ্ছে এনালগ সোনালী ব্যাংকেই অ্যাকাউণ্ট খোলা ভাল। কোনদিন আবার পুরাতন ডাটা ডিলিট করতে গিয়ে আমার জমা করা টাকা ডিলিট দিয়ে দেয়!!!  hairpull hairpull hairpull

ইন্জ্ঞিনিয়ার'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: ব্র্যাক ব্যাংক আমারে পাগল করে ছাড়ল..

invarbrass, ভাইতো ভয় ধরাইয়া দিলেন।  thinking thinking thinking

সালেহ আহমদ'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি GPL v3 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: ব্র্যাক ব্যাংক আমারে পাগল করে ছাড়ল..

ইন্জ্ঞিনিয়ার লিখেছেন:

আমি তো জানতাম ব্যাংকগুলো ফ্লেক্সকিউব নামের একটা বিশ্ববিখ্যাত সফটওয়্যার ব্যবহার করে!!!

আপনি যে কথা শোনালেন তাতে তো মনে হচ্ছে এনালগ সোনালী ব্যাংকেই অ্যাকাউণ্ট খোলা ভাল। কোনদিন আবার পুরাতন ডাটা ডিলিট করতে গিয়ে আমার জমা করা টাকা ডিলিট দিয়ে দেয়!!!  hairpull hairpull hairpull


ফ্লেক্সকিউব তো সব ব্যাংক ব্যবহার করে না। মাত্র কয়েকটি ব্যাংক ব্যবহার করে।  তবে আমিও জানতাম ব্র্যাক ব্যাংক ফ্লেক্সকিউব ব্যবহার করেন।

[img]http://twitstamp.com/thehungrycoder/standard.png[/img]
what to do?

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন invarbrass (১৬-১০-২০১০ ১৪:১৬)

Re: ব্র্যাক ব্যাংক আমারে পাগল করে ছাড়ল..

হেহে, আমি যে ব্যাংকটির ব্যাপারে উল্লেখ করেছিলাম সেটি আসলে সরকারী ব্যাংক। ভদ্রলোকের কথামতে ব্যাংকটি নিজেরাই ইনহাউস সফটওয়্যার ডেভেলপ করে থাকে - কতদূর সত্যি কে জানে?

ফ্লেক্সকিউব আমাদের দেশে বেশ জনপ্রিয়। আমার জানামতে ঢাকা ব্যাংক, ওয়ান, ব্র্যাক, ডাচ বাংলা, ইস্টার্ণ ইত্যাদি দেশী ব্যাংকগুলো ফ্লেক্সকিউব (বা মাইক্রোব্যাংকার) ব্যবহার করে। এছাড়া সিটিব্যাংক এবং এইচএসবিসি তো আছেই। ওরাকলের মালিকানাধীন হলেও মূল ফ্লেক্সকিউব কোম্পানীটি সম্ভবত: ভারতীয়।

Calm... like a bomb.

Re: ব্র্যাক ব্যাংক আমারে পাগল করে ছাড়ল..

invarbrass লিখেছেন:

ফ্লেক্সকিউব আমাদের দেশে বেশ জনপ্রিয়। আমার জানামতে ঢাকা ব্যাংক, ওয়ান, ব্র্যাক, ডাচ বাংলা, ইস্টার্ণ ইত্যাদি দেশী ব্যাংকগুলো ফ্লেক্সকিউব (বা মাইক্রোব্যাংকার) ব্যবহার করে। এছাড়া সিটিব্যাংক এবং এইচএসবিসি তো আছেই। ওরাকলের মালিকানাধীন হলেও মূল ফ্লেক্সকিউব কোম্পানীটি সম্ভবত: ভারতীয়।

হুম...আমিও তাই জানতাম। আইফ্লেক্স সলিউশনস কে ওরাকল কিনে নিয়েছিল কয়েক বছর আগে। আর সম্ভবত ইষ্টার্ন ব্যাংকই সর্বপ্রথম এ সফটওয়্যারটি নিয়ে আসে।

[img]http://twitstamp.com/thehungrycoder/standard.png[/img]
what to do?

Re: ব্র্যাক ব্যাংক আমারে পাগল করে ছাড়ল..

ভাবছিলাম ব্রাক ব্যাংক এ একটা একাউন্ট করব। এখন মনেহয় ডাচ-বাংলায়ই করা হবে।

Re: ব্র্যাক ব্যাংক আমারে পাগল করে ছাড়ল..

বেঙ্গল বয় লিখেছেন:

ভাবছিলাম ব্রাক ব্যাংক এ একটা একাউন্ট করব। এখন মনেহয় ডাচ-বাংলায়ই করা হবে।


ঐটাও তে আরেক বাটপার! ঐটাতেও আমার অ্যাকাউন্ট আছে, দুঃখে পরে বাদ দিয়ে ব্র্যাকে আসছিলাম।

ইন্জ্ঞিনিয়ার'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

১০

Re: ব্র্যাক ব্যাংক আমারে পাগল করে ছাড়ল..

ইন্জ্ঞিনিয়ার লিখেছেন:

ঐটাও তে আরেক বাটপার! ঐটাতেও আমার অ্যাকাউন্ট আছে, দুঃখে পরে বাদ দিয়ে ব্র্যাকে আসছিলাম।

হায় হায় কয় কি hairpull hairpull
স্টুডেন্টদের জন্য কোন ব্যাংকের পলিসি ভাল একটু সাজেস্ট করেন কেউ।

লেখাটি CC by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

১১

Re: ব্র্যাক ব্যাংক আমারে পাগল করে ছাড়ল..

বেঙ্গল বয় লিখেছেন:
ইন্জ্ঞিনিয়ার লিখেছেন:

ঐটাও তে আরেক বাটপার! ঐটাতেও আমার অ্যাকাউন্ট আছে, দুঃখে পরে বাদ দিয়ে ব্র্যাকে আসছিলাম।

হায় হায় কয় কি hairpull hairpull
স্টুডেন্টদের জন্য কোন ব্যাংকের পলিসি ভাল একটু সাজেস্ট করেন কেউ।

স্টুডেন্টদের জন্য ব্র্যাকই ভাল  tongue ক্যাম্পাস অ্যাকাউন্ট নেবেন। শুধু কার্ডের চার্জ ৬০০ টাকা, মেইটেনেন্স চার্জ নাই। আর যদি কার্ড না চান তাহলে ন্যাশনাল ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট খুলতে পারেন। চার্জ কম।

ইন্জ্ঞিনিয়ার'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত