টপিকঃ ফিরে দেখা ১৯৭৪ সাল (একটি সাক্ষাৎকার)

সম্পূর্ন পোষ্টটি এখান থেকে নেওয়া   

       
              মুরুব্বীদের মুখে অনেক শুনেছি, বাকশালের বিভিষীকার কথা শুনে ফুঁ দিয়ে উড়িয়ে দিয়েছি, নিছক রাজনীতি, মিথ্যে গালগল্প বলে এড়িয়ে গেছি। অথচ সেই বাকশাল যখন আজ আজরাইলের বেশে দুয়ারে দাড়ায়ে, তখন বুঝতে বাকী থাকে না, কি ভুলই না করেছি আমরা। চারিদিকে শুরু হয়েছে রক্ষীবাহিনী স্টাইলে ছাত্রলীগ, যুবলীগ, পুলিশলীগের হত্যা, গুপ্ত হত্যা, গণধষর্ণ, পৈশাচিক তান্ডব। এখন আর শোধরানোর কোন পথ নেই, হায়েনার হাতে রক্তাক্ত দেশ, বিপন্ন মানবতা। অদ্ভুত উটের পিঠে চলেছে স্বদেশ, চলেছে পেছন পানে, ভিশন নাইনটিন সেভেনটি ফোর, ভিশন বাকশাল, ভিশন রক্ষী বাহিনী, ভিশন দূর্ভিক্ষপীড়িত বাসন্তীর বাংলাদেশ।

আসুন একবার ইতিহাসের পাতায় চোখ মেলে দেখে নেই কেমন ছিল সেসব দিনগুলো। হাজার হাজার করুণ কাহিনীর সৃষ্টি হয়েছে আওয়ামী লীগের শাসন আমলে বাংলাদেশে। যার সবগুলো গুমড়ে মরেছে নির্বিচারে, প্রকাশিত হতে পারেনি। পাবনার বাজিতপুরের কোরাটিয়া গ্রামের কৃষক আব্দুল আলীর ছেলে রশীদকে রক্ষীবাহিনী কর্তৃক নিমর্মভাবে খুনের বিভৎস সে চিত্র মেজর ডালিমের সাইট থেকে তুলে ধরলাম।
আবদুল আলীর সাক্ষাৎকারটা ছিল নিম্নরূপ :-

“আমার সামনে ছেলেকে গুলি করে হত্যা করল। আমার হাতে কুঠার দিয়ে বলল, ‘মাথা কেটে দে, ফুটবল খেলবো।’ আমি কি তা পারি! আমি যে বাপ। কিন্তু অকথ্য নির্যাতন কতক্ষণ আর সহ্য করা যায়। অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে শেষ পর্যন্ত নিজের হাতে ছেলের মাথা কেটে দিয়েছি। রশীদ নাকি রাজনীতি করত আমি জানতাম না। একদিন মাতু আর শাহজাহান এসে ধরে নিয়ে গেল। আওয়ামী লীগ অফিসে সারারাত ওরা ওকে বেদম মার মারল। সকালে বলল এক হাজার টাকা দিলে ছেড়ে দেবে। রশীদ স্বীকার করে এল এক হাজার টাকা দেবার। আমার কাছে টাকা চাইল। কিন্তু আমি দিন আনি দিন খাই, মজুর মানুষ। হঠাৎ তিন দিনের মধ্যে এক হাজার টাকা কোত্থেকে দেব? বললাম, তুই বরং পালিয়ে সিলেট চলে যা। রশীদ সিলেট চলে গেল। কিন্তু ১০-১২ দিন পর ফিরে এসে বলল, ‘বাবা মন মানেনা তোমাদের ফেলে থাকতে।’ সিলেট থেকে ফেরার পরই কঠিন অসুখে পড়ল। টাইফয়েড। অসুখ সারার পর একদিন তার মাকে বলল, ‘মা আজ ভাত খাব।’ তার মা শৈলমাছ দিয়ে তরকারী রানল। এমন সময় আওয়ামী লীগের পান্ডারা রক্ষীবাহিনীসহ বাড়ি ঘেরাও করল। অসুস্থ মানুষ। কোন রকমে বাড়ি থেকে বের হয়ে মাঠের দিকে দৌড় দিল। বাবা আমার জানত না সেখানেও ঘাপটি মেরে বসে আছে আজরাইল। পাষন্ডরা দৌড়ে এসে ধরল তাকে। রশীদ সিরাজের পা ধরে বলল, ‘সিরাজ ভাই, বিমারী মানুষ আমায় ছেড়ে দেন।’ ছাড়ল না। তারপর বাপ-বেটা দু’জনকেই বেধে মার শুরু করল। কত হাতে পায়ে ধরলাম। এরপর মাতু গুলি করল রশীদকে। ঢলে পড়ল রশীদ। আমি নির্বাক তাকিয়ে রইলাম। মরার পর একজন বলল, ‘চল ওর কল্লাটা নিয়ে যাই ফুটবল খেলব।’ মাতু বলল, ‘হ্যাঁ। তাই নেব। তবে ওর কল্লা আমরা কাটব না। তার বাবা কেটে দেবে।’ বলেই আমার হাতে কুঠার দিয়ে বলল কেটে দিতে। আমার মুখে রা নেই। বলে কি পাষন্ডগুলো? চুপ করে আছি দেখে বেদম পেটাতে শুরু করল। বুড়ো মানুষ কতক্ষণ আর সহ্য হয়। সিরাজ এসে বুকে বন্দুক ঠেকিয়ে বলল, ‘এক্ষুনি কাট, নইলে তোকেও গুলি করব।’ ইতিমধ্যে দেড় ঘন্টার মত সময় পার হয়ে গেছে। বুঝতে পারলাম না কাটলে ওরা সত্যি আমাকেও মেরে ফেলবে কিনা? শেষে কুঠার দিয়ে কেটে দিলাম মাথা। নিয়ে সউল্লাসে চলে গেল তারা। আল্লায় কি সহ্য করব?”

Allah is a better planner... so whenever u'r plan fails, cheer up... Allah has a better plan for you

Re: ফিরে দেখা ১৯৭৪ সাল (একটি সাক্ষাৎকার)

আল্লায় সহ্য না করলেও আমাদের সহ্য করতে হবে।

জানার চেষ্টা করছি

Re: ফিরে দেখা ১৯৭৪ সাল (একটি সাক্ষাৎকার)

পরশ লিখেছেন:

আল্লায় সহ্য না করলেও আমাদের সহ্য করতে হবে।

কোন এক চোরকে প্রচন্ডভাবে প্রহার করা হচ্ছে আর সেটা দেখে একজন বললো, এই চোরতো দারুন মার খেতে পারে!!
লোকটির কথা শুনে চোর বললো, হাত পা বেধে মারলে আপনিও পারবেন।

Allah is a better planner... so whenever u'r plan fails, cheer up... Allah has a better plan for you

Re: ফিরে দেখা ১৯৭৪ সাল (একটি সাক্ষাৎকার)

ভাই আমাদের এত ইতিহাস দিয়ে কি লাভ হবে।  roll আমরা নাকি ইতিহাস ব্যাঙ্গ করি। whats_the_matter
আপনার বিরুদ্ধে না লাগলে হয়। dream

     

এই  ইতিহাসের কথা শেয়ার করার জন্য আপনাকে বিশেষ ধন্যবাদ। আমার এই ছোট রাজনৈতিক জীবনে অনেক কাজে দেবে।

Re: ফিরে দেখা ১৯৭৪ সাল (একটি সাক্ষাৎকার)

ভাই আপনি তো এখানে অন্যের কাহিনী তুলে ধরেছেন,সময় পেলে আমি আমাদের পরিবারের কথা তুলে ধরবো,খালি এটুকুই এখন বলবো আমার দাদার আত্মীয় কে রাতের বেলা খাওয়া থেকে তুলে নিয়ে গুলি করে হত্যা করছে তখনকার রক্ষীবাহিনী নামে আওয়ামী জানোয়াররা,তারপর উনার বউকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে সব সম্পত্তি দখল করছে। কেয়ামতের দিনে এদের সত্যিকারের বিচার হবে।  angry  angry

Re: ফিরে দেখা ১৯৭৪ সাল (একটি সাক্ষাৎকার)

Shahanur79 লিখেছেন:
পরশ লিখেছেন:

আল্লায় সহ্য না করলেও আমাদের সহ্য করতে হবে।

কোন এক চোরকে প্রচন্ডভাবে প্রহার করা হচ্ছে আর সেটা দেখে একজন বললো, এই চোরতো দারুন মার খেতে পারে!!
লোকটির কথা শুনে চোর বললো, হাত পা বেধে মারলে আপনিও পারবেন।


খুব সুন্দর উদাহরণ দ্বারা বোঝানোর জন্য ধন্যবাদ। love

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন নাবালক (০৫-০৭-২০১০ ১২:৪৪)

Re: ফিরে দেখা ১৯৭৪ সাল (একটি সাক্ষাৎকার)

Shahanur79 ভাই আমি আপনার পোস্ট এর টাইটেল দেখে মনে করেছিলাম ১৯৭৪ এর কি না তুলে ধরবেন ..  thumbs_down
ভাই যদি এমন করে থাকে তাহলে খুব খারাপ করেছে মোটেও ভাল করেনি .. আপনি যেভাবে তথ্য দিয়েছেন সে ভাবে আমিও দিতে পারি কি পারিনা ? ঘটনা ঘটুক আর না ঘটুক । ভাই তাহলে জীয়া এর ইতিহাস একটু দুলে ধরেন জীয়া এর সময় কি হয়ে ছিল ? এবং জীয়া কে কেন খুন করলো ? কৈ এ নিয়ে তো আপনাদের বা আপনাদের নেতা দের কোন কথা শুনিনা ? কখনো আমি শুনিনি  বেগম খালেদা বলেছেন  জীয়া হত্যার বিচার চাই বেগম জীয়া জানেন জীয়া হত্যার বিচার করতে গেলে বিএনপি আর বিএনপি থাকবে না । যাই হোক আপনার সাথে তর্ক করে আমার সময় এবং আপনাদের সময় নস্ট করবো না । ইতিহাস তুলে ধরলে পুরাটাই তুলে ধরবেন হাগা বগা ইতিহাস তুলে ধরবেন না । ১৯৭৪ সালে কি হয়েছে আপনিও জানেন এবং আমিও জানি ১৯৭৪ সালের পরে কি হইছে এটাও সবায় জানে । দল করেন ভাল কথা অন্ধ হইয়া দল কইরেন না ।

অটঃ আমি কখনো কোন দল করি নাই এবং করবো না  সত্যের সন্ধানে আছি ..

Re: ফিরে দেখা ১৯৭৪ সাল (একটি সাক্ষাৎকার)

কিংকর্তব্যবিমূঢ় লিখেছেন:
Shahanur79 লিখেছেন:

কোন এক চোরকে প্রচন্ডভাবে প্রহার করা হচ্ছে আর সেটা দেখে একজন বললো, এই চোরতো দারুন মার খেতে পারে!!
লোকটির কথা শুনে চোর বললো, হাত পা বেধে মারলে আপনিও পারবেন।


খুব সুন্দর উদাহরণ দ্বারা বোঝানোর জন্য ধন্যবাদ। love

সুন্দরভাবে বোঝার জন্য আপনাকেও ধন্যবাদ।

Allah is a better planner... so whenever u'r plan fails, cheer up... Allah has a better plan for you

Shahanur79'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত