টপিকঃ প্রথম ভুত দর্শন

ভুত বলতে আসলেই কি কিছু আছে নাকি পৃথিবীতে? আমি জানিনা। তবে থাকলেও বা কি! তারা কি আমাদের খুব বেশি ক্ষতি করছে? আমি মনে করি তারা যদি থেকেও থাকে, তো অন্যান্য প্রানীদের মত তারা হয়তবা বসবাস করছে আড়াল করে। ক্ষতি হয়তবা আমরা নিজেরাই নিজেদের করে থাকি। ভীত প্রানী হিসেবে আমরা হয়তবা ভুত আসার আগেই ভুতের খাদ্য হয়ে যাই। যাগ্গে বেশিদিন আগের কথা না, বছর ৭-৮ হবে। পরীক্ষা শেষ, বন্ধুদের সাথে আড্ডা মেরে সময় কাটাই, খাই আর ঘুমাই। তো সেদিনও এক বন্ধুর বাসায় গিয়েছি আড্ডা মারতে বসেছি প্রায় বেশ কয়েকজন। জমপেশ আড্ডা মারতে মারতে সন্ধ্যা শেষে কখন যে রাতের প্রবেশ ঘটেছে তাও জানিনা। তার আগে আমি আমার পরিবেশটার কথা বলে নেই, আমরা গ্রামের বাড়ীতে থাকতাম তখন। আমার ওই বন্ধুর বাড়ী ছিল আমাদের গ্রামের প্রায় পাশেই, ১০ মিনিট লাগে একটু তারাতারি হেটে গেলে। তো সবাই যার যার বাড়ী যেতে শুরু করলম আমিও রওনা দিলাম। দুই গ্রামের মাঝে একটু সরু রাস্তা, যার চারপাশে কোন বাড়ীঘর নাই, এখন অবশ্য লোকালয়ের মত শুরু হয়েছে, আগে তাও ছিল না। একদম নিস্তব্ধ পরিবেশ, গাড়ী বা রিকশা মাঝে মাঝে যায় তবে খুব একটা না। তবে এই রাস্তার মধ্যে একটা ব্যপার রয়েছে এই যে, আমাদের গ্রামে প্রবেশের সময় ডান পাশে ২০০ মিটার দূরে একটা চিতা আছে। হিন্দুদের যেখানে দাহ করা হয়। অনেকেই বলে ওইখানে নাকি অনেক কিছু আসে, এটা সেটা। কিন্তু আমার ভুত বলতে কোনদিনও কোন রকম ভয় ছিল না। যেই কারনে ভীতভাবে না হেটে খুব সুন্দর ভাবেই হাঠছি। একটা রোমান্টিক ভাব চলে আসছিল মনে, আকাশে চাঁদ আর তারা, সাথে জোছনা। তো প্রায় কাছাকাছি চলে এসেছি, আমাদের গ্রামের শুরুতেই কিছু গাছ-পালা দিয়ে রাস্তাটা ঘেরা, তার পাশেই দুইটা বাড়ী, দুই দিকে। ওই গাছ গুলোর নিচে চলে আসলাম, চাদেঁর জোছনায় পুরো রাস্তায় গাছের ছায়া। দেখতে ভালোই লাগছে। চারোপাশে একবার চোখ বুলালাম। তারপর সামনে তাকালাম হঠাৎ দেখি আমার থেকে প্রায় ১০ হাত দুরে একটা মহিলা সাধা কাপড় পড়ে বসে আছে রাস্তার ডান পাশে। থমকে দারিয়ে গেলাম, প্রায় দুই তিন সেকেন্ড দারিয়ে, হাঠবো নাকি না!! মহিলাটির কোন নড়াচড়ার ভাব ভঙ্গিও বুঝা যাচ্ছে না। শুধু দেখলাম বসে আছে। কি করব? ভাবছি কিন্তু পিছনে হাঠবো না এবং কাউকে ডাকবো না এটা ভেবে রেখেছি। আল্লাহর নাম বলে পা ফেল্লাম সামনে যাচ্ছি, মহিলাটা বসেই আছে। কে? নাকি ভুত টুত? মনে নানা প্রশ্ন বাধছে তখন। এভাবে সামনে আরো এগুলাম। আমি প্রায় ৫ হাত দুরে, পুরো স্পষ্ট দেখতে পাচ্ছি, একটা সাদা কাপড় পড়া কেউ বসে আছে। কিন্তু তার শরীর বা কোন হাড় নেই। তখন আমার মনে কি অবস্থা আমি জানি না। সামনে বাড়ছি একপা একপা করে। আমি কি সত্যিই কোন ভুত দেখছি নাকি কিছু!! আচ্ছা এই মহিলা কি আমাকে মারবে টারবে? আমি তার পাশে গেলে সে কি করবে? এরকম কৌতুহল বাড়তে শুরু করল। সাহস করে পুরো গতিতে মহিলার পাশে গিয়ে দারালাম। এরপর যা হল তা আমি নিজেও কখনো ভাবিনি বা আসা করিনি। হয়তবা যদি ওই ঘটনা না ঘটতো, তো আজকে এভাবে লিখতে পারতাম না, এত আগ্রহ নিয়ে জীবনের প্রথম ভুত দেখার অভিজ্ঞতা। আমরা আসলেই অনেক কিছু দেখে না বুঝেই এমনিই ভয় পাই, আর এই ভয়টাই করে দেয় আমাদের দুর্বল। আর সেই দুর্বলতা আমরা কেউ প্রকাশ করি একটু অন্য রকম করে, কেউবা খুব আনন্দে। এটাই....আমার ব্যপারটা পুরোটাই ছিল সাহসীকতার মত। আজও ভাবি সামনে আবার কবে ভুত আসবে!! কবে আবার কখন এক আশ্চর্য অভিজ্ঞতা গ্রহন করব। মজার একটা ব্যপার থাকে, থ্রিলার থ্রিলার ভাব, যেন শেষের পুরো ব্যপারটা প্রকাশ পেয়ে গেলেই মজাটা পুরো সমাপ্ত। অসমাপ্ত থ্রিলার সমন্ধেও একটা ধারনা আছে, যা আজও অজানা। আজও নিস্তব্ধ, কিন্তু জাগ্রত।
ওহো আপনাদের মনে নিশ্চই প্রশ্নটা টান টান করছে কি হয়েছিল আসলে? আসলেই কিছু না। শুধু আমার চোখে দেখার দোষ ছিল, যেই সাধা কাপড় পড়া মহিলাটিকে আমি দেখছিলাম। সেই মহিলাটি হচ্ছে পাশের বাসার বাহিরের লাইটের একটা ছায়া। যা গাছ বেয়ে ঠিক ওই রাস্তার কোনে বসে ছিল, মহিলা হয়ে। হয়ত আজও আছে!! কেউ কি দেখতে চান?

Re: প্রথম ভুত দর্শন

থ্রিলিং! আপনি তো ভূতের ভয়কে জয় করে ফেললেন thumbs_up

আমি মানুষটা বড় বেশি রংছুট,চাঁদের ঘরে কড়া নেড়ে, চাঁদকে করি লুট

Re: প্রথম ভুত দর্শন

আমার মনে হয় ভূত বলতে পৃথিবীতে কিছু নেই। আমাদের এলাকায় একটা কালি মন্দির আছে তার সাথে আছে দুইটা তাল গাছ সেখান থেকে অনেক মানুষ দেখেছে এই গাছটা মানুষ হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। অনেকে দেখেছে কিন্তু আমি অনেক চেষ্টা করেও দেখতে পারিনি অনেকে বলেছে কালির সামনে জ্বীব ভাঙ্গালে এইটা দেখা যায় অনেক দিন দাড়িয়ে কালিকে জ্বীব ভাঙ্গিয়েছি। এমনিতেই ঐ রাস্তা দিয়ে বাড়ী ফিরি বেশীরভার দিনই রাত ১টা হতে ৩টার মধ্যে তাও দেখতে পারিনি। ভূত দেখার জন্য আমি আর আমার এক বন্ধু দুইজন সার রাত ষশানে বসে থেকেছি যেখানে কিনা হিন্দুদের দাহ করা হয় চিতার পাশে বসে থেকেছি ভূত দেখার জন্য কিন্তু আমার সৌভাগ্য হয় নি কোন দিন। তাই আমার বিশ্বাস ভূত বলতে পৃথিবীতে কিছু নেই। আমার জীবনে রাত্রে বাসা থেকে কাওকে না জানিয়ে কত দিন রাস্তায় ঘুরে ঘুরে রাত কাটিয়েছি তার কোন ঠিক নেই কিন্তু আমি কোন দিন ভূতের দেখা পাইনি। এই তো গত সোমবারে আমার এক স্যার মারা যাওয়ার পর তার দাহ শেষ করা পর্যন্ত রাত কত হবে ১টা থেকে ২টা পর্যন্ত ষশানে বসে ছিলাম তারপর একা একা বাসায় ফিরলাম কই কখনও তো কিছু মনে হয় নি।

Re: প্রথম ভুত দর্শন

সাদাত হাসান লিখেছেন:

আমার জীবনে রাত্রে বাসা থেকে কাওকে না জানিয়ে কত দিন রাস্তায় ঘুরে ঘুরে রাত কাটিয়েছি

এইটা তো হুমায়ূন আহমেদের হিমুর সভাব।

যাই হোক, আমারো একই অবস্থা। ভূত খুইজা বেরাই কিন্তু আজ পর্যন্ত দেখা পাই নাই।

অনিশ্চয়তার পৃথিবীতে অনিশ্চয়তার মাঝে ডুবে আছি।

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন ইলিয়াস (১০-১০-২০০৯ ০৮:২৯)

Re: প্রথম ভুত দর্শন

আমার জীবনে রাত্রে বাসা থেকে কাওকে না জানিয়ে কত দিন রাস্তায় ঘুরে ঘুরে রাত কাটিয়েছি

আমিও মনে প্রানে বিশ্ষাষ করি ভূত বলে কিছু নাই। waiting waiting

Re: প্রথম ভুত দর্শন

ভালই ভুত দর্শন করেছেন...

সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন পূরব (০৮-১০-২০০৯ ২১:১০)

Re: প্রথম ভুত দর্শন

আমি অবশ্য বেশ কয়েক বার ভূত দেখেছি, তবে স্বপ্নের মধ্যে।
একবার স্বপ্নে দেখলাম, দুটো সমান্তরাল রাস্তা কয়েক ফুট দূরত্বে। ডান পাশেরটায় আমি হেটে যাচ্ছি, সময় বিকেল বেলা। বাম পাশেরটায় খুব সুন্দরী অল্প বয়স্ক একজন মহিলা। দুজনেই হাটছি একই দিকে আর ঐ মহিলা বার বার আমার দিকে তাকাচ্ছে আর হাসছে আওয়াজ ছাড়া। আমারও ভালো লাগছে। কিছুক্ষণ পর খুব দ্রুত অন্ধকার হতে শুরু করল আর মহিলার বয়স ও দ্রুত বাড়তে লাগল একই সাথে হাসির আওজ ও। আবার উপর থেকে দুটো দাঁত বের হল নিচের দিকে। এর পর মহা বিপদ, রাস্তা দুটো একসাথে লেগে যাচ্ছে। তারপর আর জানিনা। ঘুম ভেঙ্গে গেছে।

Re: প্রথম ভুত দর্শন

ভুত কখনো দেখিনি। তবে অকারণ ভয় পেয়েছি অনেকবার।
ভুতের ভয়টাই বিপজ্জনক, ভুত না।
যখন আপনার মনে হবে কেউ আপনার পাশে দাড়িয়ে। অনুভব করতে পারছেন। কিন্তু দেখতে পারছেন। শরীরের সব লোম দাড়িয়ে  যাবে। হার্টবিট বেড়ে যাবে। শ্বাসপ্রশাসের হার কমে যাবে। শীত শীত লাগতে শুরু করবে। নড়তে পারবেন না। আপনি ভয়ের চোটে একেবারে জমে যাবেন। ঠিক তখনই বুঝতে পারবেন, আপনি ভয় পাচ্ছেন। এটা ভয়। ভয় ব্যাপারটা এরকম ভয়ানক হতে পারে। এরকম ভয়ে হার্ট এটাক করে মারা যাওয়াটা অস্বাভাবিক কিছু না।
এটা হল অকারণ ভুতের ভয়। এর জন্য সামন্য একটু অনুভবই যথেষ্ট। কিছু চোখে দেখতে হয় না।

Feed থেকে ফোরাম সিগনেচার, imgsign.com
ব্লগ: shiplu.mokadd.im
মুখে তুলে কেউ খাইয়ে দেবে না। নিজের হাতেই সেটা করতে হবে।

শিপলু'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি GPL v3 এর অধীনে প্রকাশিত