টপিকঃ নির্বাচনে প্রার্থীতা Customization

BDnews24   এর খবর থেকে উদ্ধৃত করছি..

 
ঢাকা, জুন ০৫ (বিডিনিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম) -- প্রস্তাবিত নির্বাচনী সংস্কার আইনে পরিবর্তন আনছে নির্বাচন কমিশন।

নির্বাচন কমিশনার সাখাওয়াত হোসেন একথা জানিয়ে মঙ্গলবার সাংবাদিকদের বলেন, কোনো প্রার্থীর অন্তত তিন বছর একটি রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যুক্ত থাকার যে শর্ত দেওয়ার প্রস্তাব রয়েছে, তা এবারের নির্বাচনে কার্যকর হচ্ছে না।

তিনি আরো বলেন, এবারই প্রথম ব্যালট পেপারে 'না ভোট' যুক্ত করার কথা ভাবছে নির্বাচন কমিশন।

সাখাওয়াত হোসেন বলেন, "এমন অনেক পুরনো রাজনীতিবিদ আছেন, যারা হয়তো কোনো নতুন দলে যুক্ত হতে চান। তাদের কথা মনে রেখেই এবারের নির্বাচনে প্রার্থীর বাধ্যবাধকতা শিথিল করা হচ্ছে।" নিবন্ধিত হলে নতুন কোনো রাজনৈতিক দলের নির্বাচনে অংশ নিতে সমস্যা হবে না বলেও জানান তিনি।

তিনি বলেন, ১৯৮২ সালের ভোটার তালিকা বিষয়ক আইনে সংশোধনী এনে তাতে ছবিসহ ডিজিটাল ভোটার তালিকা, তালিকা তৈরির প্রক্রিয়ায় স্থানীয় জনপ্রতিনিধি সম্পৃক্ত করা -- ইত্যাদি বিধান রাখার পাশাপাশি ব্যালট পেপারে 'না ভোট' যুক্ত করার কথা ভাবা হচ্ছে। ভোটারের কোনো প্রার্থীকেই পছন্দ না হলে তিনি 'না ভোট' দিতে পারবেন।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে নির্বাচন কমিশনার বলেন, কোনো আসনে ৫০ ভাগ 'না ভোট' পড়লে উপনির্বাচন হবে কী না, কমিশন সে বিষয়ে পরে সিদ্ধান্ত নেবে।

ঘরোয়া রাজনীতি শুরু হলেই কমিশন সংস্কার আইন নিয়ে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা শুরু করবে -- স্পষ্ট করে এ কথা জানিয়ে তিনি বলেন, "এ সময় আমাদের কোনো কাজ তো বন্ধ নেই। এ আলোচনা চার মাস পরে শুরু হলেও তো কোনো অসুবিধা নেই। অবশ্যই আমাদের দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা করতে হবে; আমরা তাদের মতামতকে গুরুত্ব দেবো।"

১০ জুন থেকে গাজীপুরের শ্রীপুর পৌরসভায় পরীক্ষামূলকভাবে (পাইলট প্রকল্প) ছবিসহ ভোটার তালিকার কাজ শুরু হচ্ছে মনে করিয়ে দিয়ে তিনি জানান, ল্যাপটপ কম্পিউটারসহ এই প্রকল্পের সমস্ত উপকরণ সেনা বাহিনী সরবরাহ করছে। এছাড়া পাইলট প্রকল্পে সেনা বাহিনীর সার্বিক সহযোগিতাও থাকছে।

এর আগে যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক ইন্সটিটিউটের (এনডিআই) তিন সদস্যর একটি প্রতিনিধি দল প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) এটিএম শামসুল হুদার সঙ্গে সাক্ষাৎ করে।

বিডিনিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম/ বিআর/জিএনএ/১৮৫৫ ঘ. 

তথ্যপ্রযুক্তির সবকিছু চাই বাংলায়
খেরোখাতায় লিখি মনের কথা।

Re: নির্বাচনে প্রার্থীতা Customization

১৮ মাস তাহলে শুরু হচ্ছে...;q

Re: নির্বাচনে প্রার্থীতা Customization

এই টপিক এর সাথে মিল নেই তবে একটা কথা বলতে চাই
বাংলাদেশের অর্থনীতি এখন বড়ই দূর্বল।
বেশি দিন এভাবে চললে বিরাট একটা ধস নামবে।
ব্যাংক ব্যবস্থা এখন নড়বড়ে।

Re: নির্বাচনে প্রার্থীতা Customization

শুভ্র লিখেছেন:

  .....কোনো প্রার্থীর অন্তত তিন বছর একটি রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যুক্ত থাকার যে শর্ত দেওয়ার প্রস্তাব রয়েছে, তা এবারের নির্বাচনে কার্যকর হচ্ছে না।
....."এমন অনেক পুরনো রাজনীতিবিদ আছেন, যারা হয়তো কোনো নতুন দলে যুক্ত হতে চান। তাদের কথা মনে রেখেই এবারের নির্বাচনে প্রার্থীর বাধ্যবাধকতা শিথিল করা হচ্ছে।" নিবন্ধিত হলে নতুন কোনো রাজনৈতিক দলের নির্বাচনে অংশ নিতে সমস্যা হবে না বলেও জানান তিনি।

এসব কথার মানে কি? অন্য কিছু ভাববার অবকাশ আছে কি?

...ঈশ্বরের মত
ভবঘুরে স্বপ্নগুলো.....                                                                        রক্তের গ্রুপঃ A+

Re: নির্বাচনে প্রার্থীতা Customization

শুভ্র লিখেছেন:

BDnews24   এর খবর থেকে উদ্ধৃত করছি..

 
ঢাকা, জুন ০৫ (বিডিনিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম) -- প্রস্তাবিত নির্বাচনী সংস্কার আইনে পরিবর্তন আনছে নির্বাচন কমিশন।

নির্বাচন কমিশনার সাখাওয়াত হোসেন একথা জানিয়ে মঙ্গলবার সাংবাদিকদের বলেন, কোনো প্রার্থীর অন্তত তিন বছর একটি রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যুক্ত থাকার যে শর্ত দেওয়ার প্রস্তাব রয়েছে, তা এবারের নির্বাচনে কার্যকর হচ্ছে না।

তিনি আরো বলেন, এবারই প্রথম ব্যালট পেপারে 'না ভোট' যুক্ত করার কথা ভাবছে নির্বাচন কমিশন।

সাখাওয়াত হোসেন বলেন, "এমন অনেক পুরনো রাজনীতিবিদ আছেন, যারা হয়তো কোনো নতুন দলে যুক্ত হতে চান। তাদের কথা মনে রেখেই এবারের নির্বাচনে প্রার্থীর বাধ্যবাধকতা শিথিল করা হচ্ছে।" নিবন্ধিত হলে নতুন কোনো রাজনৈতিক দলের নির্বাচনে অংশ নিতে সমস্যা হবে না বলেও জানান তিনি।

তিনি বলেন, ১৯৮২ সালের ভোটার তালিকা বিষয়ক আইনে সংশোধনী এনে তাতে ছবিসহ ডিজিটাল ভোটার তালিকা, তালিকা তৈরির প্রক্রিয়ায় স্থানীয় জনপ্রতিনিধি সম্পৃক্ত করা -- ইত্যাদি বিধান রাখার পাশাপাশি ব্যালট পেপারে 'না ভোট' যুক্ত করার কথা ভাবা হচ্ছে। ভোটারের কোনো প্রার্থীকেই পছন্দ না হলে তিনি 'না ভোট' দিতে পারবেন।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে নির্বাচন কমিশনার বলেন, কোনো আসনে ৫০ ভাগ 'না ভোট' পড়লে উপনির্বাচন হবে কী না, কমিশন সে বিষয়ে পরে সিদ্ধান্ত নেবে।

ঘরোয়া রাজনীতি শুরু হলেই কমিশন সংস্কার আইন নিয়ে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা শুরু করবে -- স্পষ্ট করে এ কথা জানিয়ে তিনি বলেন, "এ সময় আমাদের কোনো কাজ তো বন্ধ নেই। এ আলোচনা চার মাস পরে শুরু হলেও তো কোনো অসুবিধা নেই। অবশ্যই আমাদের দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা করতে হবে; আমরা তাদের মতামতকে গুরুত্ব দেবো।"

১০ জুন থেকে গাজীপুরের শ্রীপুর পৌরসভায় পরীক্ষামূলকভাবে (পাইলট প্রকল্প) ছবিসহ ভোটার তালিকার কাজ শুরু হচ্ছে মনে করিয়ে দিয়ে তিনি জানান, ল্যাপটপ কম্পিউটারসহ এই প্রকল্পের সমস্ত উপকরণ সেনা বাহিনী সরবরাহ করছে। এছাড়া পাইলট প্রকল্পে সেনা বাহিনীর সার্বিক সহযোগিতাও থাকছে।

এর আগে যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক ইন্সটিটিউটের (এনডিআই) তিন সদস্যর একটি প্রতিনিধি দল প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) এটিএম শামসুল হুদার সঙ্গে সাক্ষাৎ করে।

বিডিনিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম/ বিআর/জিএনএ/১৮৫৫ ঘ. 

কষ্ট করে না ভোট যুক্ত করার প্রয়োজন কী? যে যে প্রার্থীকে ভোট দিবে সেতো ভোট দিবেই- আর যার কোন প্রার্থীকে পছন্দ হবেনা- সে ভো দিবেনা। সে ক্ষেত্র আইন করা উচিৎ কোন কেন্দ্র/এলাকায় ৬০% এর কম ভোট কাষ্ট হলে- সেই এলাকার নির্বাচন বাতিল বলে গন্য হবে। যদিএ আজ অব্দি বাংলাদেশের কোন জাতীয় নির্বাচনে (জ্বাল ভোট সহ) ৫০% এর উপর ভোট কাষ্ট হয় নাই।

"We want Justice for Adnan Tasin"