টপিকঃ পূণ:প্রকাশ - কমোডনামা

এই লেখাটি অনেক পূর্বে প্রকাশিত হয়েছিল। ফোরামের নিয়মিত পুরাতন সদস্যগণ সম্ভবত এই লেখাটি পড়েছেন। ইদানিং ফোরামে তেমন লিখতে পারছি না ... তার উপর অন্য একটা সিরিজ লেখায় হাত দিয়েছি। তাই মূলত: সাম্প্রতিক নিয়মিত হওয়া ফোরামিস্টদের জন্য এটা আবার দিলাম।

প্রবাসে থাকার সময়ে লিখেছিলাম। তাই দূর-পরবাস বিভাগে দিলাম।
----------------------------------------------------------------------------------------------------

ফুকুওকা এয়ারপোর্টটা আমার খুব পছন্দ। কারণ একটাই: গরম পানিওয়ালা গরম কমোড। ঢাকা থেকে মিয়াজাকি আসার পথে ফুকুওকা-ই আমার জন্য জাপানের সুবিধাজনক গেটওয়ে। সাধারণত: ব্যাংকক বা সিঙ্গাপুর পড়ে ট্রানজিট হিসাবে। এয়ারপোর্টগুলো ঘুরাঘুরি করতে মন্দ লাগে না, কিন্তু সমস্যা একটাই - টয়লেট! স্প্রে গান ওয়ালা কমোড টয়লেট নাই; টিস্যূ পেপারে কাম সারতে পারি না কিছুতেই - দুই একবার ট্রাই করে ক্ষান্ত দিছি। পানির বোতল নিয়ে ঢুকি, কিন্তু বদনার কাম কি আর বোতলে হয়!

ফুকুওকা এয়ারপোর্টে পৌছে প্রতিবারই হাফ্ ছেড়ে বাঁচি। ব্যাংকক বা সিঙ্গাপুরে নিষ্ক্রান্ত হতে অনিচ্ছুক বর্জ্য, এয়ারপোর্টে করা পূর্বরাত্রের ডিনারের বর্জ্যঅংশ সানন্দে দেহত্যাগ (!) করে, আর প্লেনের ব্রেকফাস্টকে প্রসেসিংএর জায়গা করে দেয়। এই কমোডগুলোর রীম থাকে আরামদায়ক ভাবে উষ্ণ, আর পরিষ্কারের সময় হাতের ব্যবহার সুইচ টিপার মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখলেও চলে। খালি একটু নড়াচড়া করে গরম পানির স্প্রে জায়গামত ফেলতে পারলেই হল। স্প্রে'র জোড় কমানো বাড়ানো যায়, কাজেই শরীরে লেগে থাকা ইয়ের স্টিকিনেস কোন সমস্যাই না!

বাসার কমোডের কথা চিন্তা করলেও খারাপ লাগে। একে তো পানির ব্যাবস্থা নাই - তার উপর এই শীতের (-৩ থেকে ৫ ডিগ্রী সেলসিয়াস) সকালগুলোতে ঠান্ডা রীমের উপর বসলে ঠান্ডা-ছ্যাঁকা লাগে। পানির জন্য বালতি-বদনা, আর ঠান্ডার ছ্যাঁকা ঠেকানোর জন্য রীমের উপর রীম-কভার (মোজা-র মত)।

ইউনিভার্সিটির মধ্যে সব প্যান, কোন কমোড নাই। তাই কখনো ইয়ে পেলেই দে বাসায় ছুট। আশেপাশে অবশ্য ভাল ঝোপ আছে - কিন্তু ঐখানে গেলে জীবনের প্রথম অভিজ্ঞতা হবে, তাছাড়া প্যান আর কি দোষ করল? না না .... ভুল বললাম, প্যানের দোষ আছেরে ভাই; এ প্যান সে প্যান নয়। জাপানের স্পেশাল প্যান বলে কথা। বসতে হয় উল্টা দিকে মুখ করে! কে জানে ওরা স্বাস্থ্যসচেতন জাতি তো, তাই হয়ত এ ব্যাবস্থা - নিজ বর্জ্য দর্শন করে ভিতরে সব ঠিক আছে কি না বোঝার চেষ্টা।

যা হউক, পত্রিকায় দেখলাম আরো উন্নত (ডেভেলপড) কমোড আসতেছে শীঘ্রই। এগুলোও গরম-রীম গরম-পানি ওয়ালা তবে একটুস খানি হাইটেক: এটাতে কম্পিউটার চিপ থাকবে। বাসায় ফিট করার পর মাসখানেক ধরে এটা ব্যবহারের স্ট্যাটিসটিকস রেকর্ড করে সেই অনুযায়ী পাওয়ার ইউজ অপটিমাইজ করবে। অর্থাৎ যে যে সময়ে বাসার লোকজন টয়লেট ব্যবহার করেন, তার আগে আগে অটোমেটিক ভাবে রীম ও পানির হীটার অন করবে - তাতে অযথা বিদ্যূৎ ব্যবহার বা অপচয় রোধ হবে।

এখানেই শেষ না: কমোড হবে ঘরের ডাক্তার। আরও পরে কমোডের রীমের মধ্যে মেটালিক সেন্সর থাকবে - এটা কিভাবে জানি উরুর চর্বি মেপে বডি-ফ্যাট নির্ধারন করবে আর প্রয়োজন অনুসারে ডাক্তারের কাছে যাওয়ার পরামর্শ দেবে (সম্ভবত: প্রিন্টেড আউটপুট)। এরও পরের পরিকল্পনা হচ্ছে প্যাথোলজিস্ট কমোড - বুঝতেই পারছেন স্টুল-ইউরিন পরীক্ষা করবে। বলা যায় না donttell এমনও দিন আসতে পারে যে দেখা যাবে টয়লেট থেকে বের হওয়ার সময় দরজা খোলা যাচ্ছে না ... ব্যাপার কী...... কমোড বলবে ... "আরে মিয়া টেস্ট রিপোর্ট না নিয়া যাও কৈ" কিংবা "এখনই আপনার ডাক্তারের সাথে এপয়েন্টমেন্ট ঠিক করেন, তাহলেই দরজা খুলতে দিব"।

তবে বাংলাদেশে এসব চাইলে আগে ২৪ ঘন্টা বিদ্যূৎ সরবরাহ নিশ্চিত করা দরকার।

ধৈর্য্য ধরে এতদুর পড়ার জন্য ধন্যবাদ।

শামীম'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি CC by-nc-sa 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: পূণ:প্রকাশ - কমোডনামা

আপনার লেখাটা পড়ে ভাল লাগল। জাপানে এত সুন্দর কমোড থাকলেও আমাদের এখানে এত ভাল ব্যবস্থা নাই্। আপনি যখন বলেছেন তখন আমার কিছু কথা বলি। বাসায় কাজ সারি বালতি আর মগ দিয়ে। বদনা কি জিনিস ভুলে গেছি। আর কলেজ বা বাইরে অন্য কোন জায়গায় টিস্যু ছাড়া গতি নাই। তাই বাইরে কখনো কাজ সারি নাই। আল্লাই জানে কত দিন এভাবে চলতে পারব। পানি ছাড়া কি ঐ কর্ম করা যায় বলেন। এর মধ্যে একদিন কলেজে বসে কর্ম ধরল। কি আর করব ক্লাশ শেষ করে বাসায় দিলাম ছুট। কিন্তু কলেজ থেকে বাসায় আসতে ১ ঘন্টা লাগে। এই ১ ঘন্টা যে কি কষ্ট করেছি এক মাত্র আমার মত ভুক্ত ভুগীরাই জানবে। বাথরুম করার জন্য বাংলাদেশই মনে হয় বেস্ট প্লেস।

Re: পূণ:প্রকাশ - কমোডনামা

সামিউল লিখেছেন:

বাথরুম করার জন্য বাংলাদেশই মনে হয় বেস্ট প্লেস।

lol2lol2=))ভাই,দারুন মজার কথা বলেছেন।

যা আপনার দুর্বলতা, সেটাই আপনার সবচে শক্তিশালী দিক হতে পারে...

Re: পূণ:প্রকাশ - কমোডনামা

lol2lol2=))=))=))=))=))=)) সামি ভাই সময় থাকেত চলে আসেন । কবে আবার বাইরেই কাজ েশের ফেলান lol2lol2

OH DEAR NEVER FEAR SAIF IS HERE
BOSS অর্থাৎ সাইফ

Re: পূণ:প্রকাশ - কমোডনামা

হিলারিয়াস!! সহজ সরল বর্ণনা। ভালো লাগল পড়ে।
আমার তো কমোডের প্রতি এমন ভালবাসা জন্মে গেছে love , কমোড ছাড়া হয়ই না!!:">