টপিকঃ ইউনিজয়, মোস্তফা জব্বারের হুমকি ও আমাদের নিন্দা

আমি মনে করি, আমাদের প্রযুক্তি সাইটের সাথে জনাব মোস্তফা জব্বার যে অশোভন আচরন করেছেন তা সকলের দৃষ্টি গোচর হওয়া প্রয়োজন। তাই এই সম্পর্কিত  পোস্টটি এখানে  দিয়েছি


গত ১৯ অক্টোবর, ২০০৭ দৈনিক প্রথম আলো-তে বাংলা ভাষায় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক প্রথম অনলাইন ফোরাম আমাদের প্রযুক্তি সংক্রান্ত রিপোর্ট ‘আমাদের ভাষায় আমাদের প্রযুক্তি’ প্রকাশ হবার পর আনন্দ মাল্টিমিডিয়ার কর্ণধার জনাব মোস্তফা জব্বার  আমাদের প্রযুক্তি টিমের সদস্যদের ফোন করে জানান, আমাদের সাইটে ওয়েবভিত্তিক ইউনিজয় কি-বোর্ডটি আনন্দ মাল্টিমিডিয়ার বানিজ্যিক সফটওয়্যার বিজয়ের লে-আউটের হুবুহু নকল এবং কি-বোর্ডটি সরিয়ে নেয়ার  জন্য আহবান জানান এবং নাহলে উকিল নোটিশ পাঠানোর কথা বলেন। এর উত্তরে আমরা তাকে জানিয়েছিলাম, ২০০২ সাল থেকেই এই উন্মুক্ত ওয়েব ভিত্তিক কি-বোর্ডটি বিনামূল্যে বিতরন করছে ওপেন সোর্স প্রতিষ্ঠান একুশে এবং এরপরেও যদি তা বিজয়ের নকল হয় তবে তা আমরা দেখবো এবং এ দাবি সত্য হলে তা সরিয়ে নেয়া হবে। তবে পুজার ছূটিতে সাইটের ডেভোলাপার টিমের সদস্যগণ ঢাকার বাইরে অবস্থান করায় এক সপ্তাহ সময় লাগবে এ কাজে। তিনি এ ব্যাপারে সম্মত হন। কিন্তু এর পরদিনই (২০ অক্টোবর, ২০০৭) আমরা দুঃখজনকভাবে লক্ষ্য করলাম, জনাব মোস্তফা জব্বার ফোরামে সদস্য হিসেবে নিবন্ধন করে একটি পোস্টের মাধ্যমে দাবি জানান, আমরা নাকি বিজয় সফটওয়্যারের পাইরেসির সাথে যুক্ত এবং আমরা আমাদের প্রযুক্তি সাইট বন্ধ না করলে বিষয়টি র‌্যাবকে জানাবেন।   
http://thumbnails.imajr.com/bijoy_367389.JPG

ছবিঃ মোস্তফা জব্বারের হুমকি সম্বলিত পোস্ট যা এখন মডারেশন জোন থেকে সরিয়ে পুনরায় অভ্যর্থনা বিভাগে আনা হয়েছে।

ইতোমধ্যে দেশ এবং দেশের বাইরে অনেক বাংলা ভাষাভাষী মানুষ এই উদ্যোগটিকে স্বাগত জানিয়েছেন এবং এই কর্মকান্ডের সাথে সম্পৃক্ত হবার ইচ্ছে ব্যক্ত করেছেন। মোস্তফা জব্বারের মতো একজন প্রবীণ তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞের কাছ থেকে আমাদের প্রযুক্তি-র মতো একটি কর্মকান্ডের প্রতি এ ধরনের অসহনশীল আচরণ বা হুমকি আমাদের ব্যাতীত ও হতাশ করেছে। তাছাড়া তিনি কি-বোর্ডটি সরিয়ে নেয়ার দাবি না জানিয়ে সরাসরি সাইট বন্ধ করে দেয়ার দাবি জানিয়েছেন যা আপত্তিকর এবং অশোভন। তার মতো একজন প্রবীন তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞের কাছ থেকে এ ধরনের আচরণ কোনভাবেই কাম্য নয়।   

উল্লেখ্য, মাসিক টেকনোলজি টুডে অক্টোবর ২০০৭ সংখ্যায় একটি কলামে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধেও তিনি অভিযোগ এনেছেন, তারা ভোটার তালিকার কাজে বিজয় কি-বোর্ড লে-আউটের নকল কি-বোর্ড ব্যবহার করছে। বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের বিরুদ্ধেও এ ধরনের অভিযোগ এনেছেন। কিন্তু তাদের বিরুদ্ধে তিনি কোন ধরনের আনুষ্ঠানিক অভিযোগ করেননি, কিন্তু আমাদের তিনি বিভিন্নভাবে হুমকি দিয়েছেন। বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তির ইতিহাসে এর আগে এ ধরনের অশোভন হুমকি আগে কোথাও দেয়া হয়েছে বলে আমাদের জানা নেই। যেখানেই বাংলা কম্পিউটিং বা কি-বোর্ড সংক্রান্ত কাজ হয়েছে সেখানেই জনাব মোস্তফা জব্বার অভিযোগ জানান তা বিজয়ের নকল এবং সেই কাজের ডেভোলপারকে হয়রানি করার চেষ্টা করেন। এছাড়া বিভিন্ন সময় তিনি বিশেষজ্ঞ কলামের নামে বিভিন্ন আইটি পত্রিকায় রাজনৈতিক কলাম লেখেন। এসব কলামে অনেক সময় দেশের মহামান্য রাষ্ট্রপতিও তার অশোভন  উক্তি থেকে রক্ষা পান না। অর্থ্যাৎ এক বিজয় সফটওয়্যারের মাধ্যমে তিনি ধরাকে সরা জ্ঞান করে  চলেছেন যা দুঃখজনক। এ ব্যাপারে যথাযথ কতৃর্পক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।   

মোস্তফা জব্বার আমাদের বিরুদ্ধে পাইরেসির অভিযোগ করেছেন যা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। কারন, আমরা কোন লাইসেন্সবিহীন বিজয় সফটওয়্যার ব্যবহার করিনি, ব্যবহার করেছি একুশের  ইউনিজয় ওপেনওয়্যার। যদি একুশের ইউনিজয়ে বিজয়ের লে-আউট ব্যবহার করা হয় তবে এর সকল দায়দায়িত্ব সম্পূর্ণ বিতরনকারী হিসেবে একুশে বহন করবে, ব্যবহারকারীরা নয়। ইউনিজয়/ইউনিবিজয় এ বিজয়ের কপিরাইট প্রযোজ্য নয়। আমরা মনে করি আমাদের সাইটে বিজয় বাংলা সফটওয়্যার, প্রিন্টেড কী-বোর্ড, বিজয় লে-আউট কোথাও কপি করা হয়নি। কারন, একুশে বাংলার অফিসিয়াল সাইটে স্পষ্ট লেখা রয়েছে-এই স্ক্রিপ্টের সাথে মোস্তফা জব্বার বা আনন্দ মাল্টিমিডিয়ার কোন সম্পৃক্ততা নেই। এছাড়া সুপরিচিত বাংলা টাইপিং সফটওয়্যার অভ্রতেও ইউনিবিজয় নামে একটি কি-বোর্ড রয়েছে। তাছাড়া আমরা একুশের ইউনিজয় লে-আউটের সাথে বিজয়ের বেশ কিছু পার্থক্যও দেখেছি। যেমনঃ
১। একাধিক কি ভিন্ন। যেমন x চাপলে আসে ো।   
২। এ-কার, ই-কার, ও-কার এগুলো ভিন্ন। ইউনিজয়ে অক্ষরের পরে চাপতে হয়। এতে করে প্রায় সমগ্র লে-আউট টাই বদলে যায়।
এসব পার্থ্যকের কারনে আমাদের প্রযুক্তি টিম মনে করে না ইউনিজয় কি-বোর্ডটি কোনভাবেই অবৈধ। তাই আমরা এ ব্যাপারে একুশের প্রতি নৈতিক সমর্থন জানাচ্ছি। 

http://thumbnails.imajr.com/ekhushy_367425.JPG
ছবিঃ ইউনিজয়ের সাথে মোস্তফা জব্বারের কোন সম্পৃক্ততা নেই (সূত্রঃ একুশে)

জনাব মোস্তফা জব্বার প্যাটেন্ট ভঙ্গের কথা বলেছেন। তবে এ ব্যাপারে আমরা কিছু কথা বলতে চাই- 
১. ্‌+া=আ, ক+্‌+ক=ক্ক । বিজয়ে যুক্তাক্ষর লেখার নিয়ম ইউনিকোডে র সাথে হুবহু মিলে যায়। ইউনিকোড একটা চলমান স্ট্যান্ডার্ড, এর কোন খন্ডাংশের পেটেন্ট বাংলাদেশের পেটেন্ট অফিস যদি না জেনে তাকে দিয়েও দেয়, সেটার বৈধতা নিয়ে অবশ্যই যে কেউ প্রশ্ন তুলতে পারেন।     
২. বিজয় লে-আউটঃ g+f = আ, j+g+j = ক্ক। সেক্ষেত্রে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের জাতীয় কীবোর্ড লেআউটের বিরুদ্ধেই পেটেন্ট না মানার অভিযোগ আসে। এখন পর্যন্ত এই কি-বোর্ডটিও বৈধ হিসেবে বিবেচিত।
৩. যেহেতু, মোস্তফা জব্বার বিভিন্ন সময় বিভিন্ন জনের বিরুদ্ধে তার কি-বোর্ড লে-আউট ব্যবহারের অভিযোগ করেছেন(অভিযোগের তালিকায় নির্বাচন কমিশনের মতো প্রতিষ্ঠানও আছে) সেহেতু বিষয়টি কিছুটা হলেও বিতর্কিত। এ বিতর্কের অবসান না করে প্যাটেন্ট কেন দেয়া হলো তা আমাদের বোধগম্য নয়।   
৪. আমরা মনে করি, কি-বোর্ডের লে-আউট প্যাটেন্ট করার প্রবণতা দেশের সফটওয়্যার শিল্পের বিকাশ এবং ওপেন সোর্স ও বাংলা কম্পিউটিং –এর অগ্রযাত্রাকে স্থিমিত করে দেবে। এ ধরনের প্যাটেন্ট করায়  আমাদের মতো দেশের দরিদ্র জনগোষ্ঠী কয়েকজন মুনাফাখোর ব্যবসায়ীর হাতে জিম্মি হয়ে পড়বে। সারা বিশ্ব যখন সফটওয়্যার প্যাটেন্টের বিরুদ্ধে সোচ্চার তখন আমাদের দেশে একটি কি-বোর্ড লে-আউটকে এভাবে প্যাটেন্ট করে এমন একটি অসুস্থ প্রবণতাকে উৎসাহিত করার বিষয়টি দুঃখজনক।

তিনি জানিয়েছেন, আমরাই নাকি তার চোখে এই লে-আউটের প্রথম ব্যবহারকারী যা সম্পূর্ণ ভূল। এখন পর্যন্ত স্যামহোয়ারইনব্লগ, সচলায়তনপ্রজন্ম ফোরাম সহ বাংলা ভাষার বেশ কিছু জনপ্রিয় ইউনিকোডভিত্তিক বাংলা ওয়েব সাইটে বেশ কিছুদিন ধরেই এই লে-আউট ব্যবহার হয়ে আসছে। একজন প্রবীণ আইটি বিশেষজ্ঞ হিসেবে তার তা দৃষ্টিগোচর হবার কথা। তাছাড়া একুশে নামক ওপেন সোর্স ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান সম্পর্কেও তার না জানার কথা নয়। এরপরেও তিনি যদি না জেনে থাকেন তাহলে সে সম্পর্কে আমরা তাকে খোঁজ খবর নেয়ার জন্য এবং যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য বিনীত অনুরোধ করবো।       

আজ পর্যন্ত একুশে সাইটে ইউনিজয়ের বিনামূল্যে বিতরন সম্পর্কে জনাব মোস্তফা জব্বার কোন ধরনের আনুষ্ঠানিক অভিযোগ করেননি বা প্যাটেন্ট ভঙ্গ হয়েছে এ অভিযোগে কোন আইনপ্রয়োগকারী সংস্থাও কোন ধরনের ব্যবস্থা গ্রহন করেনি। আর যতক্ষণ পর্যন্ত বিতরণকারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে কোন ধরনের অভিযোগ আনা হয়নি ততোক্ষণ পর্যন্ত ইউনিজয়ের বিতরণ ও ব্যবহার বৈধ। তাই ইউনিজয় কি-বোর্ডের ব্যবহারকারী হিসেবে আমরা মনে করি, এতোদিন বৈধভাবেই আমরা ইউনিজয় লে-আউটটি ব্যবহার করে আসছি এবং ওপেন সোর্স হিসেবে এটি ব্যবহারে আমাদের নৈতিক অধিকার আছে। তবে আমাদের প্রযুক্তি সবসময়ই দেশের প্রচলিত কপিরাইট এবং মেধাস্বত্ত্ব আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। ইউনিজয় কি-বোর্ড সম্পর্কে কোন চূড়ান্ত ফয়সালা না হওয়া আমরা এই লে-আউটটি আমাদের প্রযুক্তি সাইট থেকে সাময়িকভাবে প্রত্যাহার করছি। জনাব মোস্তফা জব্বার যদি একুশে –এর বিরুদ্ধে কোন আনুষ্ঠানিক অভিযোগ না করেন বা তিনি যদি প্রমান করতে না পারেন যে /৭ইউনিজয় কি-বোর্ডের মাধ্যমে বিজয় কি-বোর্ডের লে-আউট প্যাটেন্ট ভঙ্গ হয়েছে (বিষয়টি কিভাবে নিস্পত্তি হবে তা নির্ভর করছে একুশে এবং আনন্দ মাল্টিমিডিয়ার উপর) তবে আগামী ১ জানুয়ারি, ২০০৮ তারিখ থেকে এই কি-বোর্ডটি পুনরায় এই সাইটে ব্যবহার করা হবে।

আমরা আশা করি, আমাদের প্রযুক্তি’র মতো একটি উদ্যোগের সাথে একজন প্রবীণ তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ হিসেবে জনাব মোস্তফা জব্বার এর সাথে একাত্মতা ঘোষনা করবেন এবং এর প্রতি সহনশীলতা বজায় রেখে যেকোন ধরনের হুমকি প্রদান থেকে বিরত থাকবেন এবং এর অগ্রযাত্রায় পূর্নাঙ্গ সহায়তা করবেন।


ধন্যবাদান্তে,
আমাদের প্রযুক্তি টিম
www.amaderprojukti.com

Re: ইউনিজয়, মোস্তফা জব্বারের হুমকি ও আমাদের নিন্দা

প্রজন্ম ফোরাম থেকেও আমরাও মোস্তফা জব্বারের এহেন আস্পর্ধা'র বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। এবং একই সাথে সবাইকে একযোগে এসব কর্মকান্ডকে প্রতিহত করার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি।

Re: ইউনিজয়, মোস্তফা জব্বারের হুমকি ও আমাদের নিন্দা

মানচুমাহারা আপনার এই লেখাটা আমার ব্লগে দিতে চাচ্ছি। অনুমতি আছে?

Re: ইউনিজয়, মোস্তফা জব্বারের হুমকি ও আমাদের নিন্দা

মনে হচ্ছে সে প্যাটেন্ট নয় আলাদিনের চেরাগ পেয়েছে।

Feed থেকে ফোরাম সিগনেচার, imgsign.com
ব্লগ: shiplu.mokadd.im
মুখে তুলে কেউ খাইয়ে দেবে না। নিজের হাতেই সেটা করতে হবে।

শিপলু'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি GPL v3 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: ইউনিজয়, মোস্তফা জব্বারের হুমকি ও আমাদের নিন্দা

ডার্কলর্ড লিখেছেন:

মানচুমাহারা আপনার এই লেখাটা আমার ব্লগে দিতে চাচ্ছি। অনুমতি আছে?

ডার্কলর্ড আপনি আপনার ব্লগে দিতে পারেন ...কোন সমস্যা নেই। আপনার ব্লগ সাইটে জব্বার সাহেবের লেখার প্রতিউত্তর সম্বলিত যে লেখা আছে তা আমাদের প্রযুক্তি ফোরামে পোস্ট করতে পারেন...তার চোখে পড়বে।

Re: ইউনিজয়, মোস্তফা জব্বারের হুমকি ও আমাদের নিন্দা

আমার পরিচিত তিনটি গ্রুপে ফরওয়ার্ড করে দিলাম।

Feed থেকে ফোরাম সিগনেচার, imgsign.com
ব্লগ: shiplu.mokadd.im
মুখে তুলে কেউ খাইয়ে দেবে না। নিজের হাতেই সেটা করতে হবে।

শিপলু'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি GPL v3 এর অধীনে প্রকাশিত

Re: ইউনিজয়, মোস্তফা জব্বারের হুমকি ও আমাদের নিন্দা

আমি সোজা সাপ্টা একটা কথা বলি-

জব্বার বাংলা নিয়ে ব্যবসা শুরু করেছে। এখানে বিজয়/ইউনিজয় কোনো বিষয় না। আজকে একুশে বা অভ্র আছে বলে সারা বিশ্বের মানুষ বাংলা ব্যবহারে সক্ষম হয়েছে। বাংলাকে বিশ্বায়ন করেছে একুশে, এই কথার কোনো বিকল্প নেই।

অভ্র/একুশে কেউই আমাদের ভাষা নিয়ে ব্যবসা করেনি আর আমি আশা করি তারা কোনোদিন করবেও না। কিন্তু জব্বার চায় পৃথিবীতে যারা বাংলা ব্যবহার করবে, তারা সবাই উনাকে টাকা দেবে।

আমাদের চিন্তু করা উচিৎ যে আমরা কি এটা হতে দেবো? বাংলাকে ইংরেজদের হাত থেকে রক্ষা করেছিলাম আমরা, রক্ষা করেছিলাম পাকিস্তানীদের হাত থেকে। এখন কি সময় আসেনি জব্বারের হাত থেকে বাংলাকে রক্ষা করার? জব্বারের উচিৎ হবে এখনি আমাদের স্বাগতম জানিয়ে সরে যাওয়া, বাংলাদেশের কম্পিউটারে উনি বাংলার ব্যবহার প্রণয়ন করেছেন একথা আমরা যেমন অস্বীকার করিনা, সেরকম উনি এই ফালতু কথা বাদ দিলে আমরা উনার সন্মান সবসময়ই রক্ষা করবো।

তবে ভাষা নিয়ে আমরা ব্যবসা করতে দিতে পারিনা। বিষয়টা কিন্তু ভেবে দেখার।

অমি আজাদ
http://omi.net.bd

Re: ইউনিজয়, মোস্তফা জব্বারের হুমকি ও আমাদের নিন্দা

ডার্কলর্ড অবশ্যই দেবেন। আমরা চাই এটার প্রতিবাদ হোক।

আপাতত আমাদের প্রযুক্তি ফোরাম থেকে কিবোর্ডটি সরিয়ে রেখেছি কারন যারা এটার পেছনে কাজ করি সবার পরীক্ষা সামনে।

Re: ইউনিজয়, মোস্তফা জব্বারের হুমকি ও আমাদের নিন্দা

omiazad লিখেছেন:

আমি সোজা সাপ্টা একটা কথা বলি-

জব্বার বাংলা নিয়ে ব্যবসা শুরু করেছে। এখানে বিজয়/ইউনিজয় কোনো বিষয় না। আজকে একুশে বা অভ্র আছে বলে সারা বিশ্বের মানুষ বাংলা ব্যবহারে সক্ষম হয়েছে। বাংলাকে বিশ্বায়ন করেছে একুশে, এই কথার কোনো বিকল্প নেই।

অভ্র/একুশে কেউই আমাদের ভাষা নিয়ে ব্যবসা করেনি আর আমি আশা করি তারা কোনোদিন করবেও না। কিন্তু জব্বার চায় পৃথিবীতে যারা বাংলা ব্যবহার করবে, তারা সবাই উনাকে টাকা দেবে।

আমাদের চিন্তু করা উচিৎ যে আমরা কি এটা হতে দেবো? বাংলাকে ইংরেজদের হাত থেকে রক্ষা করেছিলাম আমরা, রক্ষা করেছিলাম পাকিস্তানীদের হাত থেকে। এখন কি সময় আসেনি জব্বারের হাত থেকে বাংলাকে রক্ষা করার? জব্বারের উচিৎ হবে এখনি আমাদের স্বাগতম জানিয়ে সরে যাওয়া, বাংলাদেশের কম্পিউটারে উনি বাংলার ব্যবহার প্রণয়ন করেছেন একথা আমরা যেমন অস্বীকার করিনা, সেরকম উনি এই ফালতু কথা বাদ দিলে আমরা উনার সন্মান সবসময়ই রক্ষা করবো।

তবে ভাষা নিয়ে আমরা ব্যবসা করতে দিতে পারিনা। বিষয়টা কিন্তু ভেবে দেখার।

ভাষা নিয়ে যারা ব্যবসা করছে তাদের প্রতিহত করুন... thumbs_up

১০

Re: ইউনিজয়, মোস্তফা জব্বারের হুমকি ও আমাদের নিন্দা

omiazad লিখেছেন:

আমি সোজা সাপ্টা একটা কথা বলি-

জব্বার বাংলা নিয়ে ব্যবসা শুরু করেছে। এখানে বিজয়/ইউনিজয় কোনো বিষয় না। আজকে একুশে বা অভ্র আছে বলে সারা বিশ্বের মানুষ বাংলা ব্যবহারে সক্ষম হয়েছে। বাংলাকে বিশ্বায়ন করেছে একুশে, এই কথার কোনো বিকল্প নেই।

অভ্র/একুশে কেউই আমাদের ভাষা নিয়ে ব্যবসা করেনি আর আমি আশা করি তারা কোনোদিন করবেও না। কিন্তু জব্বার চায় পৃথিবীতে যারা বাংলা ব্যবহার করবে, তারা সবাই উনাকে টাকা দেবে।

আমাদের চিন্তু করা উচিৎ যে আমরা কি এটা হতে দেবো? বাংলাকে ইংরেজদের হাত থেকে রক্ষা করেছিলাম আমরা, রক্ষা করেছিলাম পাকিস্তানীদের হাত থেকে। এখন কি সময় আসেনি জব্বারের হাত থেকে বাংলাকে রক্ষা করার? জব্বারের উচিৎ হবে এখনি আমাদের স্বাগতম জানিয়ে সরে যাওয়া, বাংলাদেশের কম্পিউটারে উনি বাংলার ব্যবহার প্রণয়ন করেছেন একথা আমরা যেমন অস্বীকার করিনা, সেরকম উনি এই ফালতু কথা বাদ দিলে আমরা উনার সন্মান সবসময়ই রক্ষা করবো।

তবে ভাষা নিয়ে আমরা ব্যবসা করতে দিতে পারিনা। বিষয়টা কিন্তু ভেবে দেখার।

অমি ভাই আপনাকে ধন্যবাদ। আপনার  ব্লগেও দেখেছি এই বিষয়গুলো নিয়ে পোস্ট দিতে। জব্বার সাহেবের উচিৎ নতুনকে মেনে নেওয়া। নতুন প্রযুক্তিকে আহবান  জানানো। ইউনিকোডের বিপক্ষে  উনার লেখা পড়তে পড়তে একসময় হাসি পেতো। আর উনি ইউনিজয়  নিয়ে আমাদের প্রযুক্তি টিমের সদস্যদের যেভাবে মোবাইলে হুমকি ও সরাসরি আমাদের প্রযুক্তি  ফোরামে পোস্ট করে র‌্যাব এর ভয় দেখালেন তা শুধু নিন্দা জানালেই মনে হয় না শেষ হয়ে যাবে।

১১

Re: ইউনিজয়, মোস্তফা জব্বারের হুমকি ও আমাদের নিন্দা

মূলতঃ অভ্র আসার পর থেকেই বাংলা কম্পিউটিং এর সাথে আমার পরিচয়। এখনও অভ্র ছাড়া বাংলা লিখতে পারি না। বিজয় সম্পর্কে আমার ধারণা শূন্যের কোঠায়। মানচুর পোস্ট থেকেই বিজয় সম্পর্কে অনেক কিছু জানলাম। 

জব্বার সাহেবের দাবী আমার কাছে পাগলের প্রলাপ ছাড়া তেমন কিছু মনে হচ্ছে না।

রংধনু দেখতে হলে বৃষ্টিকেও হাসিমুখে বরণ করতে হয়। বৃষ্টি নিজেই তখন রূপান্তরিত হয় আনন্দের উৎসে।

রুমন'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

১২ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন মনি (২৪-১০-২০০৭ ২৩:২৫)

Re: ইউনিজয়, মোস্তফা জব্বারের হুমকি ও আমাদের নিন্দা

কিছু তো করতেই হবে। জব্বার সাহেবের এই হুমকির তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। পেটেন্ট পেয়েছেন বলে নিজেকে বিল গেটস মনে করছেন!!

কবে যে দেশে আসব? কবে যে সাক্ষাত করব? লোকটাকে দেখার খুবই সখ আমার.. খুবই সখ।

প্রজন্ম ফোরামের এডমিনকে বলছি সাবধান। আবার কি হতে না কি হয়ে যায়. পরে জব্বার সাহেবের
মাথার চুল ছিড়বে ওনার প্রোডাক্ট ইউজ করছেন ভেবে।;q

কারো কাছে কি উনার ফোন নাম্বার হবে! থাকলে প্লিজ দিন.. ওনার সাথে কথা বলব।

১৩

Re: ইউনিজয়, মোস্তফা জব্বারের হুমকি ও আমাদের নিন্দা

ভাই আংকেল কে যে কি বলব তা ভাষয়ায় প্রকাশ করতে পারছি না। আবার কিছু লিখতেও পারছি না। কারণ তাহলে এই পোস্টটি মুছে দিতে পারে এডমিন। তাই চুপচাপ মনে মনে গালি দিই ঐ বুড়ো হাদাটাকে। স্যরি আমার ভাষার জন্য। কেউ কিছু মনে করবেন না। কবে যে হাঁদাটার একটু শিক্ষা হবে। বাংলাদেশ শুধু তার কারণেই ভাষার দিক দিয়ে অনেক পিছিয়ে পড়ল। আর কিছু কিছু মানুষ ওনাকে এমন দাম দেয় যে আমার দেখলে রাগ লাগে। বিশেষ করে সব কম্পিউটার ম্যাগাজিনগুলি তার জন্য বিশেষ জায়গা রাখে। ইত্যাদি ইত্যাদি। ওনাকে বাংলাদেশ থেকে বিতারিত করা উচিত।

১৪

Re: ইউনিজয়, মোস্তফা জব্বারের হুমকি ও আমাদের নিন্দা

আমি একটু অন্য কথা বলতে চাই। সেটা হচ্ছে আমাদের আসলে এসব কিবোর্ড সফটওয়্যার থেকে বেরিয়ে আসা উচিত। ওএসে ইন্টিগ্রেটেড কিবোর্ড ব্যবহার করাটাই সবচেয়ে ভালো পদ্ধতি। আসকি যুগে আমাদের বর্ণমালার জন্য কোন জায়গা ছিল না। তাই বাধ্য হয়ে এসব কিবোর্ড হ্যাকার ব্যবহার করতে হয়েছে। কিন্তু এখন তো ইউনিকোডের যুগ, আমাদের বর্ণমালার নিজস্ব জায়গা হয়েছে ক্যারেক্টার টেবিলে। তাহলে কী দরকার কিবোর্ড হ্যাকার ব্যবহারের?

আর লেআউটের কথা বলতে গেলে, বিজয়ের চাইতে ফোনেটিক ব্যবহার করাটাই সুবিধাজনক হচ্ছে। প্রফেশন্যালরা অবশ্যই বিজয় পছন্দ করেন, তবে জব্বার সাহেবের এহেন আচরণে তারাও এটা বর্জন করতে পারেন।

তবে এখানে একটা পজিটিভ ব্যাপার হল যে, সফটওয়্যার পেটেন্ট যে কতটা অযৌক্তিক, হাস্যকর ও ভয়ঙ্কর জিনিষ তা বেরিয়ে এল। সফটওয়্যার কপিরাইট করা যায়, কিন্তু পেটেন্ট করা সম্পূর্ণ অযৌক্তিক।

১৫

Re: ইউনিজয়, মোস্তফা জব্বারের হুমকি ও আমাদের নিন্দা

স্বপ্নচারী ভাই, ফনেটিক লেয়াউটের যে কোনটি নিয়ে যদি বাজারে কিবোর্ড বের হয় মানে এখন যেমন কিবোর্ড বিজয় এর লেয়াউট এর বাংলা অক্ষরগউলো লেখা থাকে সেই রকম করে ফনেটিক লেয়াউট এর যে কোনটি যদি বাজারে বের হয় তো বিজয় ১ বছরের ভেতর উঠে যাবে বলে আমার বিশ্বাস। বিডিওএসএন, অমিক্রনল্যাব কিংবা একুশে সাইট থেকে যদি এই ধরনের উদ্যোগ নেওয়া হয় তাহলে এটা বাস্তবায়ন করা খুব সহজ হবে। আশা করি এই ধরনের পদক্ষেপ দ্রুত নেওয়া হবে। আমি ব্যক্তিগত ভাবে বিডিওএসএন এর মুনির হাসান স্যারের সাথে কথা বলেছিলাম সম্প্রতি মোস্তফা জব্বারের বিষয়টা নিয়ে তখন  উনি এই রকম উদ্যোগ নেওয়ার দরকার বা নেওয়া হতে পারে। আর কিবোর্ড প্যাটেন্ট করা খুবই অন্যায়। সফটওয়্যার এর কপিরাইট হতে পারে কিন্তু কিবোর্ড প্যাটেন্ট কেন হবে।

১৬

Re: ইউনিজয়, মোস্তফা জব্বারের হুমকি ও আমাদের নিন্দা

স্বপ্নচারী লিখেছেন:

সফটওয়্যার পেটেন্ট যে কতটা অযৌক্তিক, হাস্যকর ও ভয়ঙ্কর জিনিষ তা বেরিয়ে এল। সফটওয়্যার কপিরাইট করা যায়, কিন্তু পেটেন্ট করা সম্পূর্ণ অযৌক্তিক।

thumbs_up

১৭

Re: ইউনিজয়, মোস্তফা জব্বারের হুমকি ও আমাদের নিন্দা

মান্চু,
তোমরা বুয়েট থেকে তো কত কিছু কর, কত চমৎকার চমৎকার কাজ বেরিয়েছে স্টুডেন্টদের হাত দিয়ে। তোমরাই কী‌-বোর্ড বের কর না কেন ?
আমি অবশ্য প্রভাত লে আউট ব্যবহার করি, তবু বের করলে অন্তত একজন ক্রেতার নিশ্চয়তা দিলাম।

“All our dreams can come true if we have the courage to pursue them.” - Walt Disney
http://www.amanpages.com/

১৮

Re: ইউনিজয়, মোস্তফা জব্বারের হুমকি ও আমাদের নিন্দা

স্বপ্নচারী লিখেছেন:

আমি একটু অন্য কথা বলতে চাই। সেটা হচ্ছে আমাদের আসলে এসব কিবোর্ড সফটওয়্যার থেকে বেরিয়ে আসা উচিত। ওএসে ইন্টিগ্রেটেড কিবোর্ড ব্যবহার করাটাই সবচেয়ে ভালো পদ্ধতি। আসকি যুগে আমাদের বর্ণমালার জন্য কোন জায়গা ছিল না। তাই বাধ্য হয়ে এসব কিবোর্ড হ্যাকার ব্যবহার করতে হয়েছে। কিন্তু এখন তো ইউনিকোডের যুগ, আমাদের বর্ণমালার নিজস্ব জায়গা হয়েছে ক্যারেক্টার টেবিলে। তাহলে কী দরকার কিবোর্ড হ্যাকার ব্যবহারের?

আর লেআউটের কথা বলতে গেলে, বিজয়ের চাইতে ফোনেটিক ব্যবহার করাটাই সুবিধাজনক হচ্ছে। প্রফেশন্যালরা অবশ্যই বিজয় পছন্দ করেন, তবে জব্বার সাহেবের এহেন আচরণে তারাও এটা বর্জন করতে পারেন।

তবে এখানে একটা পজিটিভ ব্যাপার হল যে, সফটওয়্যার পেটেন্ট যে কতটা অযৌক্তিক, হাস্যকর ও ভয়ঙ্কর জিনিষ তা বেরিয়ে এল। সফটওয়্যার কপিরাইট করা যায়, কিন্তু পেটেন্ট করা সম্পূর্ণ অযৌক্তিক।

মানচুমাহারা লিখেছেন:

স্বপ্নচারী ভাই, ফনেটিক লেয়াউটের যে কোনটি নিয়ে যদি বাজারে কিবোর্ড বের হয় মানে এখন যেমন কিবোর্ড বিজয় এর লেয়াউট এর বাংলা অক্ষরগউলো লেখা থাকে সেই রকম করে ফনেটিক লেয়াউট এর যে কোনটি যদি বাজারে বের হয় তো বিজয় ১ বছরের ভেতর উঠে যাবে বলে আমার বিশ্বাস।

সম্পূর্ণ সহমত।(y)(y)

রংধনু দেখতে হলে বৃষ্টিকেও হাসিমুখে বরণ করতে হয়। বৃষ্টি নিজেই তখন রূপান্তরিত হয় আনন্দের উৎসে।

রুমন'এর ওয়েবসাইট

লেখাটি by 3.0 এর অধীনে প্রকাশিত

১৯ সর্বশেষ সম্পাদনা করেছেন TRIVUz (২৫-১০-২০০৭ ১২:৪৯)

Re: ইউনিজয়, মোস্তফা জব্বারের হুমকি ও আমাদের নিন্দা

বাংলায় ওয়েব সাইট করাটা কিছুদিন আগেও স্বপ্নের মত ছিলো। অনেক কঠিন পথ পাড়ি দেয়ার পর আজ আমরা খুব সহজেই একটি বাংলা সাইটের স্বপ্ন দেখতে পারছি। আমি ব্যক্তিগত ভাবে কম্পিউটার ব্যবহার করছি ১৯৯৬ সাল থেকে। কিন্তু বাংলা টাইপ করছি মাত্র দুই বছর হলো তাও ওয়েবে। ওয়েবে এই বাংলা লিখাটা সম্ভব হয়েছে মূলত ইউনিকোডে করা চমৎকার কিছু বাংলা টাইপ ইন্টারফেসের কল্যানে যা বাজারে বিনা পয়সায় পাওয়া যাচ্ছে। আমরা জানি বিজয় বাংলা নামের একটি সফটওয়্যার যেটি মোস্তফা জব্বার বাজারজাত করে থাকেন(উল্লেখ্য সেই সফটওয়্যার তিনি নিজে বানাননি..) সেটি কিছুদিন আগেও ইউনিকোড সমর্থন করতো না। এখন আমরা যদি তার সেই সফটওয়্যারের পথ চেয়ে বসে থাকতাম তাহলে বাংলায় আজ এতগুলো ওয়েব সাইট করা স্বপ্নই থেকে যেতো। বরং আমরা সবাই জানি এই ইউনিকোডের বিরুদ্ধে তিনি কি পরিমান অপপ্রচার চালিয়েছেন (এই ভদ্রলোককে আবার নিজেকে আইটি বিশেষজ্ঞ মনে করেন এবং বিসিএসের মত যায়গা সভাপতি ছিলেন.. সেলুকাস!!)। সেই তিনিই এখন দাবী করতে শুরু করেছেন ইউনিজয় লে-আইট নাকি তার সফটওয়্যারের নকল। অথচ আমরা জানি  মোস্তফা জব্বার নিজেই ইউনিজয় এর লেআইট নকল করেছেন বিজয়ে ইউনিকোড যুক্ত করেছেন। প্রশ্ন হলো সরকার কি করে একটি ওপেন সোর্স সফটওয়্যারের নকল কপিকে আরেকজনের ইন্টেল্যেকচুয়্যাল প্রপার্টি করার সুযোগ করে দিলো?  আর মোস্তফা জব্বারই বা কোন বুদ্ধিতে একটি ওপেন সোর্স সফটওয়্যার (যেটি তার সফটওয়্যার বানানোর আগে বানানো হয়েছে এবং তিনি নিজে সেটি নকল করেছেন) বিরুদ্ধে পাইরেসির অভিযোগ আনেন?

মোস্তফা জব্বারের প্রতি আমার কয়েকটি প্রশ্ন আছে-
মোস্তফা জব্বার কি জানেন ওপেন সোর্স দুনিয়া বলে যে একটি বিশাল দুনিয়া আছে?
তিনি কি জানেন একটি ওপেন সোর্স প্রোডাক্টের কত ধরনের লাইসেন্সিং হয়ে থাকে?
তিনি কি জানেন একটি ওপেন সোর্স প্রোডাক্ট নিজের মত করে কাষ্টমাইজড করে বাজারে ছাড়ার জন্য কি কি কন্ডিশন এপ্লাই হয়?
সর্বপরি তিনি কি জানেন ওপেনসোর্স সফটওয়্যারের বিরুদ্ধে পাইরেসীর অভিযোগ আনাটা কতটা হাস্যকর কাজ?

আমার মনে হয় না তিনি জানেন। আমার খুব জানতে ইচ্ছে করে এই বুদ্ধি নিয়ে তিনি কেন নিজেকে আইটি বিশেষজ্ঞ মনে করেন।

যাই হোক, এইসব টেকনিক্যাল আলোচনার বাইরে গিয়ে খুব সাধারন যে প্রশ্নগুলো আলোচনায় এসেছে সেগুলোর সাথে একমত পোষন করছি এবং সাথে আরো কিছু যুক্ত করতে চাই-
ইউনিজয় লে-আউটের বিতরন করছে একুশে ডট অর্গ। আমাদের প্রযুক্তি বা পজন্ম ফোরামের মত সাইটগুলো শুধু এর ব্যবহারকারী। এখন যদি মোস্তফা জব্বার পাইরেসীর অভিযোগ আনতে চান তাহলে তার উচিত এর পরিবেশকদের বিরুদ্ধে আনা.. ব্যবহারকারীদের বিরুদ্ধে নয়। কিন্তু আমরা অত্যন্ত দু:খের সাথে লক্ষ করলাম তিনি আমাদের প্রযুক্তি সাইটের ব্যবস্থাপকদের কি নির্লজ্বভাবে ফোন করে হুমকি প্রদান করেছেন এমনকি ওখানে গিয়ে মন্তব্য করে এসেছেন। কতটা হীন ও নীচ হলে মানুষ এটা করতে পারে.......

আমি মনে করি এইধরনের সংকীর্ন মানষিকতা নিয়ে যিনি চলেন তার কাছে আমাদের মাতৃভাষা নিরাপদ নয়। সময় এসেছে তার বাজারজাত করা সফটওয়্যার বয়কটের। আমাদের বিকল্প কিছু নিয়ে ভাবতে হবে। এক্ষেত্রে আমাদেরকে বিজয়ের অল্টানেটিভ একটি ফ্রি সফটওয়্যার বাজার ছাড়তে হবে এবং তার জন্য এখুনি পদক্ষেপ নিতে হবে বলে মনে করি। বুয়েটের কম্পিউটার সায়েন্সের ছাত্রদের এবং বাংলা নিয়ে ইতিপূর্বে যারা কাজ করেছেন এমন কয়েকজনকে (যেমন হাসিন ভাই, অমি আজাদ এবং আরো বেশ কয়েকজন) নিয়ে একটি টিম গঠন করে কাজ শুরু করে দেয়া যায়। অত:পর সেই সফটওয়্যার আমরা বিনামূল্যে বিতরন করবো।

আমরা মোস্তফা জব্বারের নোংরামী থেকে বাংলা ভাষাকে মুক্ত করতে চাই। সবাই মিলে একটি সুন্দর পরিকল্পনা করে কাজে লেগে যান। আমরা পারবো.. কোন সন্দেহ নাই। আমরা আমাদের ভবিষ্যত প্রন্মকে মোস্তফা জব্বারের মত লোকদের চোখ রাঙ্গানী থেকে রক্ষা করতে চাই।

--
(মন্তব্যটি একই সাথে আমাদের প্রযুক্তি ফোরামেআমার ব্যক্তিগত ব্লগে প্রকাশিত হলো।)

আমি আমার আমিকে চিরদিন এই বাংলায় খুঁজে পাই....

২০

Re: ইউনিজয়, মোস্তফা জব্বারের হুমকি ও আমাদের নিন্দা

ভাল, ওনার এই আচারন এর কারনে আমরা বিজয় থেকে বেরিয়ে আসতে পারবো। ওনাকে ধ্যনবাদ।